1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাকিস্তান

পাকিস্তানে সাংবাদিকতার গলদটা কোথায়?

পাকিস্তানে ইলেকট্রনিক মিডিয়া বেড়ে চলেছে দুর্ধর্ষ গতিতে, কিন্তু সে তুলনায় সাংবাদিকদের প্রশিক্ষণ সীমিতই থেকে যাচ্ছে – কেননা কর্তৃপক্ষ মনিটরিং-এর পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রাখেননি৷

সদ্য খোঁড়া কবরের ভিতর শুয়ে রিপোর্টিং, বা পাবলিক পার্কে প্রেমিক-প্রেমিকাদের উপর পুলিশি হামলা, পাকিস্তানি টেলিভিশনে প্রায় সব কিছুই দেখানো যেতে পারে৷ তার ফলে যদি সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় ওঠে, তা-তেও কোনো আপত্তি নেই, বিশেষ করে যদি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নীরব থাকেন৷

মিডিয়ার আউটপুট মনিটর করার দায়িত্ব পাকিস্তান ইলেকট্রনিক মিডিয়া রেগুলেটরি অথরিটি ‘পেমরা'-র হাতে৷ তা সত্ত্বেও পাকিস্তানের দ্রুত বিকাশশীল ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় সাংবাদিকতার মান নিয়ে উদ্বেগ অনেকদিনের৷

নিম্নমানের প্রশিক্ষণ

বিগত ১৭ বছরে পাকিস্তানের মিডিয়া সেক্টরের দ্রুত সম্প্রসারণই এই পরিস্থিতির জন্য দায়ী, বলে অনেকে মনে করেন৷ ২০০০ সাল অবধি পাকিস্তানের একমাত্র মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ছিল পাকিস্তান টেলিভিশন নেটওয়ার্ক বা পিটিভি; যাবতীয় খবর ও মনোরঞ্জনমূলক অনুষ্ঠান সম্প্রচারিত হতো এই পিটিভি থেকে৷ এক্ষেত্রে পরিবর্তন আনেন এক সামরিক একনায়ক: পারভেজ মুশাররফ৷

বিরাট পরিবর্তন: পেমরা-র বিবৃতি অনুযায়ী পাকিস্তানে আজ স্থানীয় অপারেটরদের হাতে ৮৯টি চ্যানেলের লাইসেন্স আছে; এছাড়া ২৩টি বিদেশি কোম্পানিকে পাকিস্তানে অনুষ্ঠান সম্প্রচারের অধিকার দেওয়া হয়েছে৷ সেন্টার ফর এক্সেলেন্স ইন জার্নালিজম-এর পরিচালক ও সাংবাদিক কামাল সিদ্দিকি মনে করেন যে, মিডিয়া শিল্পে তেজীর কারণেই সাংবাদিকদের প্রশিক্ষণে ঘাটতির সৃষ্টি হয়েছে – যেহেতু সাংবাদিকতার মানের চেয়ে রেটিং-কেই বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে৷

সাংবাদিকতার নিম্ন মানের জন্য রেটিং-এর প্রতি আসক্তিকে দোষী করা চলে না

সাংবাদিকতার নিম্ন মানের জন্য রেটিং-এর প্রতি আসক্তিকে দোষী করা চলে না

অপরদিকে মিডিয়া সংস্থা এক্সপ্রেস গ্রুপের প্ল্যানিং ও স্ট্র্যাটেজি পরিচালক কামরান ওয়াজিহ মনে করেন যে, সাংবাদিকতার নিম্ন মানের জন্য রেটিং-এর প্রতি আসক্তিকে দোষী করা চলে না৷ ‘‘রেটিং হলো সেই বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত মুদ্রা, যা বিনিয়োগের উপর মুনাফা এনে দেয়'', ডয়চে ভেলেকে বলেন ওয়াজিহ৷

কোয়ালিটি কন্ট্রোল

তবে রেটিং-এর খোঁজে সাংবাদিকতার নৈতিক বাধাবাঁধন ঢিলে হয়ে যেতে পারে৷ ২০১৬ সালে দানী আব্দুল সাত্তার এধি-র মৃত্যুর পর একাধিক নিউজ আউটলেট যেভাবে তাদের রিপোর্টিং করেছে, তা বিপুল সমালোচনার সম্মুখীন হয়৷ এমনকি এক অত্যুৎসাহী রিপোর্টার কবরের জন্য খোঁড়া গর্তের মধ্যে ঢুকে সেখান থেকে লাইভ রিপোর্টিং করার সিদ্ধান্ত নেন৷

২০১৪ সালে করাচি বিমানবন্দরে একটি অবরোধ চলাকালীন সেনাবাহিনীর অভিযান সংক্রান্ত রিপোর্টিং-এ যেভাবে সংখ্যালঘু ধর্মীয় সম্প্রদায়গুলির বিরুদ্ধে সহিংসতার প্ররোচনা দেওয়া হয়, তাও স্মরণ করা যেতে পারে৷ ওয়াজিহ মনে করেন যে, পেমরা-র তরফ থেকে দুর্বল মনিটরিং-এর কারণেই এভাবে সাংবাদিকতার নীতিমালা লঙ্ঘন করা সম্ভব হয়েছে৷

এছাড়া যেহেতু পাকিস্তানের অধিকাংশ মিডিয়া গ্রুপ কোনো না কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত, সেহেতু অতীতে পেমরার-র অধিকাংশ পদক্ষেপই রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত ছিল এবং আগামীতেও থাকবে, বলে সিদ্দিকির আশঙ্কা৷

আসিম সালিম/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন