1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

পাকিস্তানে অপহৃত ব্রিটিশ শিশু মুক্ত

পাকিস্তানে অপহৃত এক ব্রিটিশ শিশুকে অর্থের বিনিময়ে মুক্ত করা হয়েছে৷ সম্পূর্ণ সুস্থ অবস্থায় মঙ্গলবার তাকে পাওয়া গেছে পাঞ্জাবের একটি রাস্তার পাশে৷ তবে, তাকে মুক্ত করতে যে অর্থ দেয়া হয়েছে তার সংস্থান নিয়ে চলছে বিতর্ক৷

default

বেশিরভাগ অপহরণের সঙ্গে জঙ্গি গোষ্ঠী তালেবান জড়িত (ফাইল ফটো)

শেষ পর্যন্ত শিশুটিকে উদ্ধার করতে মুক্তিপণ দিতে হল৷ তবে, জিম্মি পাকিস্তানে থাকলেও এই অর্থ লেনদেন নাকি হয়েছে ইউরোপের কোন একটি দেশে৷ আর তাই অপহরণকারীদের বলা হচ্ছে ‘আন্তর্জাতিক'৷ পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের আইন মন্ত্রী রানা সানাউল্লাহ জানিয়েছেন এই তথ্য, তবে মুক্তিপণের টাকা কারা দিল সেটা অবশ্য জানাননি তিনি৷

মার্চের তিন তারিখে পাঞ্জাবের জেহলুম থেকে অপহরণ করা হয় পাঁচ বছর বয়সী ব্রিটিশ শিশু সাহিল সাইদকে৷ এরপর তাকে উদ্ধারে নানা চেষ্টা চালায় পাকিস্তান এবং ব্রিটিশ সরকার৷ সেই চেষ্টার ফলে হোক আর মুক্তিপণ প্রদান করে হোক, সাহিলকে ফিরে পেয়ে প্রচণ্ড আনন্দিত তার পরিবার৷ ব্রিটেনে অবস্থানরত সাহিলের মা আকিলা জানিয়েছেন, আমি ফোনে তার সঙ্গে কথা বলেছি, যা আমাকে বুঝিয়েছে আমার ছোট্ট শিশুটি এখন মুক্ত৷

এদিকে, সাহিল মুক্ত হলেও তার মুক্তিপণের টাকা কোথা থেকে আসল তা নিয়ে সরব মিডিয়া৷ জানা যায়, তাকে মুক্ত করতে ১ লাখ পাউন্ড দিতে হয়েছে অপহরণকারীদের৷ এই অর্থ কি পরিবারের নাকি ব্রিটিশ সরকারের তা নিয়েও প্রশ্ন অনেকের মনে৷ অবশ্য পরিবার জানিয়েছে, মুক্তিপণের বিষয়ে কিছুই জানেন না তারা৷

তবে, সানাউল্লাহ-র দাবি, মুক্তির দুই দিন আগে সাহিল এর বাবাই অপহরণকারীদের কাছে অর্থ পৌঁছে দিয়েছেন৷ ব্রিটিশ সরকার এই অর্থ সংস্থানে সহায়তা করে থাকতে পারে বলেও মত তাঁর৷

পাঞ্জাব প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর বিশেষ সহযোগী পারভেজ রশীদ অবশ্য বলেছেন, শিশুটি মুক্তি পেলেও অপহরণকারীদের অবশ্যই গ্রেপ্তার করা হবে৷ তিনি বলেন, এই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার করা উচিত, শাস্তি হওয়া উচিত৷ খুব শীঘ্রই তা হবে৷ আমাদের কাছে যে খবর তাতে অপহরণকারীদের কেউ কেউ পাকিস্তানে আছে কেউ কেউ আছে দেশের বাইরে৷ তবে খুবই শীঘ্রই সবকিছু জানা যাবে৷

ইসলামাবাদে ব্রিটিশ দূতাবাসের মুখপাত্র জর্জ শেরিফ জানিয়েছেন, শিশুটিকে যত দ্রুত সম্ভব পরিবারের কাছে পাঠিয়ে দিতে চেষ্টা করছেন তাঁরা৷ তবে, একইসঙ্গে তাদের মতামত শিশুটিকে উদ্ধারে দেয়া মুক্তিপণে কোণ ধরণের সহায়তা করেনি ব্রিটিশ সরকার৷ আর তাই আপাতত মুক্তিপণের অর্থ কোথা থেকে এসেছে তা জানা যাচ্ছে না৷

উল্লেখ্য, পাকিস্তানে অপহরণ একটি বড় সমস্যা৷ আনুষ্ঠানিক হিসেবে দেশটিতে গত বছর ৪৮০টি অপহরণের ঘটনা ঘটেছে৷ তবে বাস্তবে এই সংখ্যা অনেক বেশি কারণ অপহরণের অনেক ঘটনাই নথিভুক্ত হয় না পাকিস্তানে৷ আর বেশিরভাগ অপহরণের সঙ্গে জঙ্গি গোষ্ঠী তালেবান জড়িত৷

প্রতিবেদক: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়