1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

পাকিস্তানের মাটিতে লাদেনের মৃত্যুতে ভারতের প্রতিক্রিয়া

পাকিস্তানের মাটিতে আল কায়েদার প্রধান ওসামা বিন লাদেনের নিহত হওয়ার ঘটনায় ভারত তার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে৷ ভারত বলেছে, বিভিন্ন সন্ত্রাসী গোষ্ঠী এবং তার নেতাদের নিরাপদ বিচরণভূমি যে পাকিস্তান তা আবার সত্য প্রমাণিত হলো৷

default

পররাষ্ট্র মন্ত্রী এস.এম কৃষ্ণা

বিশ্ব সন্ত্রাসের জনক আল কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেন পাকিস্তানের বুকে মার্কিন সেনা অভিযানে আজ নিহত হওয়ার ঘটনায় ভারত উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছে, বিভিন্ন সন্ত্রাসী গোষ্ঠী এবং তার নেতারা পাকিস্তানে কীভাবে নিরাপদ আশ্রয় পায়, এই ঘটনা তারই প্রমাণ৷ পররাষ্ট্র মন্ত্রী এস.এম কৃষ্ণা এক বিবৃতিতে বলেছেন, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক লড়াই-এ লাদেনের নিহত হওয়ার ঘটনা এক ঐতিহাসিক সাফল্যের মাইলফলক হয়ে থাকবে৷প্রায় এক দশক ধরে লাদেনের বিরুদ্ধে তল্লাসি অভিযানের সফল পরিণতি এটা৷ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বিবৃতি উল্লেখ করে বলেন, প্রতিবেশী দেশে সন্ত্রাসীদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল ধ্বংস করার মিলিত অভিযান যেন শিথিল না হয়৷ হাজার হাজার নিরপরাধ পুরুষ,মহিলা ও শিশু সন্ত্রাসের বলি হয়ে আসছে৷ পাকিস্তানে ২৬/১১-এর মুম্বই হামলার আসল পাণ্ডাদের উপস্থিতির কথা ভারত বারংবার বলে আসছে৷

অনুরূপ এক বিবৃতিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি.চিদাম্বরম বলেন, মুম্বই সন্ত্রাসী কান্ডের চাঁইরা এবং তাদের সাহায্যকারীদের যে পাকিস্তান আশ্রয় দিচ্ছে ভারতের অভিযোগ আরেকবার সত্য প্রমাণিত হলো৷ ৯/১১-এর সন্ত্রাসী হামলার পর লাদেনকে মৃত বা জীবিত ধরে তাঁকে বিচারের কাঠগোড়ায় আনার পেছনে যথেষ্ট যুক্তি আছে৷ মুম্বাই কাণ্ডের আসামীদের যে তালিকা পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে ভারত দিয়েছে, তাদের গ্রেপ্তার করে তাদের কন্ঠস্বরের নমুনা পাঠাবার আহ্বান জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চিদাম্বরম৷ তিনি মনে করেন, মুম্বই কাণ্ডের অভিযুক্তরা পাকিস্তানেই আছে৷ ন্যায়বিচার তাঁদের শাস্তি দাবি করে৷

বিজেপি বলেছে, পাকিস্তান যে সন্ত্রাসীদের আশ্রয় দেয়, ইসলামাবাদের নাকের ডগায় মার্কিন সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানে লাদেনের মৃত্যু তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল দুনিয়াকে৷ বিজেপি মুখপাত্র রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেন, এটাও চূড়ান্তভাবে প্রমাণিত হলো যে পাকিস্তান কার্যত সন্ত্রাসের আঁতুড়ঘর৷ একই কথা বলেছেন, বাজপেয়ি সরকারের সাবেক জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার উপদেষ্টা ব্রজেশ মিশ্র৷বলেছেন পাকিস্তানের সেনা ছাউনির গায়ে লাদেন প্রাসাদোপম বাড়িতে থাকতেন আর পাকিস্তানি সেনাকর্তারা তা জানতেন না, এটা অবিশ্বাস্য৷ কাজেই ভারতকে আরো সতর্ক থাকতে হবে৷ সন্ত্রাসীরা যথারীতি সক্রিয়৷

অন্যদিকে, এই ঘটনার প্রেক্ষিতে, নতুনদিল্লির মার্কিন দূতাবাস এবং তার আশপাশের এলাকার নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে৷ মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ৷ এছাড়া ভারত-নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর এবং অন্যত্র নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে৷

লাদেনের মৃত্যুতে ভারতের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী তৎপরতায় ভাটা পড়বে বলে মনে করেন না ভারতের বিশেষজ্ঞ মহল৷ ভারত-পাকিস্তানের শান্তি সংলাপে এই ঘটনার ছায়া পড়বে৷ সন্ত্রাস ইস্যুতে পাকিস্তানকে খেলতে হবে ব্যাকফুটে৷

প্রতিবেদন: অনিল চট্টোপাধ্যায়, নতুনদিল্লি

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক