1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

পাঁচ মাসের হরতালে ক্ষতি ৫১ হাজার কোটি টাকা

ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, ডিসিসিআই-এর গবেষণায় দেখা গেছে গত পাঁচ মাসের হরতালে বাংলাদেশের শিল্প এবং ব্যবসা-বণিজ্য খাতে আর্থিক ক্ষতি হয়েছে ৫১ হাজার কোটি টাকা৷ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তৈরি পোশাক খাত৷

তবে অর্থনীতিবিদরা বলছেন, বাস্তবে ক্ষতির পরিমাণ আরো বেশি৷

জানুয়ারি থেকে মে – এই পাঁচ মাসে দেশব্যাপী হরতাল হয়েছে ৩২ দিন৷ এর বাইরে আঞ্চলিক হরতাল এবং অবরোধসহ অন্যান্য কর্মসূচি ছিল, যা স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত করেছে৷ ডিসিসিআই গবেষণা করে দেখিয়েছে যে প্রতিদিনের হরতালে ক্ষতির পরিমাণ ১ হাজার ৬শ' কোটি টাকা৷ সেই হিসেবে ৩২ দিনের হরতালে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৫১ হাজার কোটি টাকা৷ এই ক্ষতির শীর্ষে আছে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্প৷ এক দিনের হরতালে পোশাক শিল্পে ৩৬০ কোটি টাকা ক্ষতি হয়৷ আর ৩২ দিনের হরতালে ক্ষতি হয়েছে প্রায় ১১ হাজার কোটি টাকা৷

তৈরি পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ-এর সহ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান ডয়চে ভেলেকে জানান, দীর্ঘ মেয়াদে এর চেয়ে বড় ক্ষতির মুখে পড়ছে পোশাক শিল্প৷ ক্রেতারা হরতালসহ রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে বাংলাদেশ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে শুরু করেছে৷ এর প্রধান কারণ হলো তাদের নির্ধারিত সময়ে পোশাক সরবারাহ করা যাচ্ছে না৷ হরতাল অবরোধের কারণে উত্‍পাদন পুরোপুরি বন্ধ না থাকলে পরিবহন বন্ধ থাকে৷ তিনি জানান, এসব কারণে পোষাক খাতে প্রবৃদ্ধির ধারা এখন নিম্নমুখী৷ ক্রেতারা এখন চীন, ভিয়েতনাম, মিয়ানমার, তাইওয়ান এবং কম্বোডিয়ার দিকে চলে যাচ্ছে৷ তিনি বলেন, সস্তা শ্রমের কারণে পোশাকের দাম কম হলেই চলবে না৷ ঠিক সময়ে পোশাক সরবরাহ করাও জরুরি৷

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতির অধ্যাপক ড. হেলাল উদ্দিন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ডিসিসিআই-এর হিসাবে বাস্তবতার প্রতিফলন ঘটেনি৷ তিনি বলেন, বাস্তবে এই ক্ষতির পরিমাণ অনেক বেশি৷ তাঁর মতে, শুধু এই পাঁচ মাস কেন, বাংলাদেশে যদি হরতাল অবরোধসহ রাজনৈতিক অস্থিরতা না থাকত তাহলে প্রবৃদ্ধির হার হতো শতকরা ১০ ভাগ৷ ডিসিসিআই বর্তমান অবস্থায় উত্‍পাদন ক্ষতির হিসেব ধরে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ হিসেব করেছে৷ কিন্তু এই চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতায় যে সম্ভাবনা নষ্ট হয়েছে তার হিসেব করেনি তারা৷

তিনি বলেন, এই অবস্থা চলতে থাকলে বাংলাদেশ ভবিষ্যতে বড় ধরনের অর্থনৈতিক সংকটে পড়বে৷ এরই মধ্যে বিদেশি বিনিয়োগ কমে যাচ্ছে৷ কমছে রপ্তানি৷ এই ধারা চলতে থাকলে তা অর্থনীতির জন্য হবে বড় আঘাত৷ তাতে বেকারত্ব বাড়বে৷ তার সঙ্গে কর্মসংস্থানের সুযোগ যেমন কমবে, তেমনই যাঁরা এখন কাজ করছেন তাঁদের একাংশও কাজ হারাবেন৷

এর বাইরে আরো একটি বড় ধরনের আশঙ্কার কথা বলেন ড. হেলাল৷ তিনি বলেন, রাজনৈতিক অস্থিরতায় তরুণ সমাজের একটি অংশ সেখানে ব্যবহৃত হয়৷ এছাড়া, হেফাজতের মতো মৌলবাদী শক্তির উত্থান হয়৷ সেখানেও তরুণরা জড়িয়ে পড়েন৷ যার ফলে যে তরুণদের উত্‍পাদন এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নে অংশ নেয়ার কথা, তাঁরা তা না করে ধ্বংসাত্মক কাজে জড়িয়ে পড়েন৷ যার নেতিবাচক প্রভাব পড়ে অর্থনীতিতে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন