1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে মমতার রেল বাজেট

২০১১ সালের রেল বাজেট সংসদে পেশ করেন ভারতের রেলমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়৷ যাত্রী ও মালভাড়া বাড়ানো হয়নি৷ পশ্চিমবঙ্গের জন্য রয়েছে একগুচ্ছ নতুন প্রস্তাব৷

default

রেলমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়

রেল বাজেটের প্রশংসা করে প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং বলেন, ‘‘যাত্রী ও মাল ভাড়া না বাড়ায় মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে তা সহায়ক হবে৷ এটা আমজনতার বাজেট৷ পরিকাঠামোর ক্ষেত্রে জোর দেয়ায় অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির গতি বাড়বে৷'' শিল্পমহলের প্রতিক্রিয়া মিশ্র৷ সরকারি-বেসরকারি যৌথ প্রকল্পকে স্বাগত জানিয়ে বলা হয়, রেলওয়ে নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ এবং রেল ইঞ্জিন ও কোচ নির্মাণের জন্য অর্থ সংগ্রহের দিকটা রয়ে গেছে অস্পষ্ট৷ রেল নিরাপত্তা ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার দিকে তেমন নজর দেয়া হয়নি৷ দ্বিতীয়ত, সমাজের আপামর জনসাধারণকে বেশি সুবিধা দিতে গিয়ে পারদর্শিতায় টান পড়ার সম্ভাবনা আছে৷

রাজনৈতিক দলগুলির প্রতিক্রিয়ায় বিরোধী দল বিজেপি নেতা অনন্ত কুমারের মন্তব্য, রেল বাজেট যেন নির্বাচনী ইস্তেহার৷ পুরো নজর পশ্চিমবঙ্গের দিকে৷ দেশের অন্য অংশ অবহেলিত৷ অপর বিজেপি নেতা রুডি বলেন, রেল বাজেটে মুদ্রাস্ফীতি বাড়বে৷ মমতা ব্যানার্জীর গত বছরের বাজেটে দেয়া প্রস্তাব পূরণ হয়নি৷ প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী, বাড়তি রেললাইন, ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, মেডিক্যাল কলেজ, বিশ্বমানের রেলস্টেশন নির্মাণের নামগন্ধ নেই৷ সিপিআই নেতা ডি.রাজা,বাজেটে দূরদর্শিতার অভাব৷ দীর্ঘ মেয়াদি কোন পরিকল্পনা নেই৷ যে-সব প্রকল্পের কথা বলা হয়েছিল আগে, তা সম্পূর্ণ হয়নি৷ রেল বাজেটের আর্থিক সংস্থান সম্পর্কে রেলমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় বলেন, ৩,৭০০ কোটি টাকা ব্যয় সঙ্কোচ করা হয়, লাভের পরিমাণ হলো ৫৭,৬৩০ কোটি টাকা৷ করমুক্ত বন্ড ছেড়ে তোলা হবে ১০,০০০ কোটি টাকা৷ রেলমন্ত্রী বলেন, রেল দুর্ঘটনা কমাতে বিভিন্ন রেলওয়েতে বসানো হচ্ছে অ্যান্টি-কলিশন ডিভাইস৷ রেল-ভিত্তিক শিল্পস্থাপন কর্মসূচিতে দার্জিলিঙ-এ হবে সফটওয়্যার কেন্দ্র৷

এছাড়া রেল বাজেটের অন্যান্য দিক হলো, শহর ও গ্রামাঞ্চলের সাধারণ মানুষের জন্য বেশি সুবিধা, ৮৫টি সরকরি-বেসরকারি যৌথ প্রকল্প৷ রেল ভিত্তিক যেসব শিল্প স্থাপন করা হবে তার মধ্যে আছে ওড়িশায় ওয়াগন কারখানা, কেরালায় কোচ ও যন্ত্রাংশ কারখানা, জম্মুতে টানেল ও ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সিটিউশন, মণিপুরে ডিজেল ইঞ্জিন কারখানা, পশ্চিমবঙ্গের উলুবেড়িয়ায় ট্র্যাক-মেশিন কারখানা, নন্দীগ্রামে রেলের শিল্প তালুক, সিঙ্গুরে মেট্রো কোচ ফ্যাকটরি ইত্যাদি৷ ৫৬টি নতুন ট্রেন ৯টি দুরন্ত এক্সপ্রেস চালু হবে৷ কলকাতা মেট্রোর জন্য রয়েছে ৩৪টি নতুন সার্ভিস,মেট্রো লাইন সম্প্রসারণ, পশ্চিমবঙ্গে শহরাঞ্চলের জন্য ৫০টি বাড়তি ট্রেন এবং ভারত থেকে বাংলাদেশে যাবার ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানো হবে৷

প্রতিবেদন: অনিল চট্টোপাধ্যায়, নতুনদিল্লি

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন