1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

পর্দানশিন নারীদের জন্য সুইমিংপুল

চট্টগ্রামের ঐতিহাসিক লালদীঘিকে সুইমিংপুলে রূপান্তরিত করার কার্যক্রম তিন মাস স্থগিত করেছে হাইকোর্ট৷ প্রশ্ন উঠেছে কেন? উত্তর যাই হোক, বিভিন্ন গণমাধ্যম এবং নারীবাদী কর্মীরা কিন্তু ইস্যুটির ইসলামি ব্যাখা খুঁজতে শুরু করেছেন৷

swimming, pool, Germany, পর্দানশিন, নারী, সুইমিংপুল,

ফাইল ছবি

সেই আলোচনাটা অনেকটা এরকম : পর্দার আড়ালে নারী৷ পর্দাই নারীর মর্যাদার প্রতীক৷ অথবা বেপর্দা নারী এবং নারী-পুরুষের অবাধ মেলামেশা৷ ইসলাম ধর্মে বিষয়গুলি নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ৷ অনেক ইসলামপন্থীর মতেই পারিবারিক ও সামাজিক বিশৃঙ্খলা, অশান্তি, দাম্পত্য-কলহ, পারস্পরিক অবিশ্বাস, বিবাহ-বিচ্ছেদ, নারী-নির্যাতন ইত্যাদির পেছনে অন্যতম প্রধান কারণ হলো পর্দাহীনতা এবং নর-নারীর অবাধ মেলামেশা৷

কিন্তু, প্রসঙ্গ লালদীঘিতে নয়৷ প্রসঙ্গটি হলো জার্মানির হামবুর্গ শহরের একটা সুইমিংপুলে, যেখানে একটি মাত্র দিনে হলেও তা ব্যবহার করার অধিকার পেয়ে থাকেন পর্দানশিন মুসলিম নারীরা৷ আর পুরুষরা দাঁড়িয়ে থাকেন বাইরে৷

হামবুর্গের ‘সেন্ট পাউলি' সুইমিংপুল৷ দিনটা রবিবার৷ তাই সকাল থেকেই সেখানে ভীড় করেছেন শুধুমাত্র মুখ ঢাকা বা বোরখা পরিহিতা মুসলমান নারীরা৷ ছোট-বড় সকলেই৷ কানান কার্বা একটা শর্ট-প্যান্ট আর টি-শার্ট পরে মুসলিম নারীদের সাঁতার কাটা শেখাচ্ছেন৷ পুলের পাশেই সাঁতার কাটার জন্য টাকা জমা নিচ্ছেন সাবিনা গোলিটস৷ দুটি বাচ্চাকে সঙ্গে নিয়ে আসা একটি মেয়েকে তিনি বলছেন, ‘‘দুটি বাচ্চা৷ তার মানে চার ইউরো আশি সেন্ট৷ হমমম্ আর আলমারিতে জামা-কপড় রাখার জন্য তোমার কাছে এক ইউরোর কয়েন আছে তো?''

তা আছে, জানিয়ে দেয় সেই মহিলা৷ কিন্তু, একটি বাচ্চা সঙ্গে সঙ্গেই প্রশ্ন করে, ‘‘এখানে কোন ছেলেকে দেখা যাচ্ছে না কেন?'' মা বাচ্চাটিকে বোঝায়, ‘‘ইসলাম ধর্মে পুরুষদের সঙ্গে সাঁতার কাটা বা স্নান করা নিষিদ্ধ৷ অর্থাৎ পোশাক ছাড়া পর-পুরুষের সামনে যাওয়া মানা আমাদের৷''

অবশ্য এবার এরকম একটা সুইমিংপুল খুঁজে পাওয়ায় সে সমস্যা আর নেই৷ তাই রবিবার হামবুর্গের এই সুইমিংপুলটা যেন একটা পিকনিক করার জায়গায় পরিণত হয়৷ মায়েরা, মেয়েরা নির্দ্বিধায় এখানে আসেন, গল্প করেন, সাঁতার কাটা শেখেন, আর সাঁতার তো কাটেনই৷ সপ্তাহে একবার করে সাঁতার কাটার সুযোগ ছাড়তে চান না কেউই৷ আফগান বংশোদ্ভূত এক মায়ের কথায়, ‘‘সাঁতার কাটার ইচ্ছে আমার সেই ছোটবেলা থেকেই৷ কিন্তু, আগে তা সম্ভবই ছিল না৷ আফগানিস্তানে মেয়েদের জন্য সুইমিংপুলের কোনো ব্যবস্থাও নেই৷ তাই এখন আমার দারুণ মজা৷ অবশেষে যে আমি সাঁতার কাটা শিখছি৷''

আর এখানে যে শুধু সাঁতার কাটা শেখানো হয়, তা নয়৷ সাবিনার কথায়, ‘‘প্রত্যেক রবিবার দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে এখানে একটা ‘জিমনাস্টিক'এর ক্লাস হয়৷ নানা রকম ব্যায়াম শেখানো হয় সেখানে৷ সেই ক্লাস করলে সত্যি খুব ঝরঝরে লাগে৷ নিজেকে একেবারে তরতাজা মনে হয়৷''

তবে সপ্তাহে মাত্র একবার এই সুযোগ থাকায় সন্তুষ্ট নয় অনেকেই৷ অনেক চেষ্টা করেও নারীদের জন্য আলাদা করে আর একটা দিন বের করতে রাজি নয় ‘সেন্ট পাউলি' সুইমিংপুলের কর্মকর্তারা৷ এই পুলের অন্যতম নারী সাঁতারু রুবাইয়া জানায়, ‘‘সাঁতার কাটতে আমার দারুণ লাগে৷ আসলে জল ব্যাপারটাই আমার কাছে ভীষণ আকর্ষক মনে হয়৷ এখানে অবশ্য বেশিরভাগ মেয়েই সাঁতার না কেটে শুধুমাত্র জল নিয়ে খেলতে ভালোবাসি৷ যে যার মতো লাফ দেয়, হাসা-হাসি করে৷ এটা আমি একদম সহ্য করতে পারি না৷''

প্রতিবেদন: দেবারতি গুহ

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক