1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

পরিযায়ী পাখিদের আকাশ ছোঁয়ার কৌশল

এক ধরনের পরিযায়ী রাজহাঁসকে বলা হয় ‘বার হেডেড গুজ’ বা দাগি রাজহাঁস৷ এই হাঁসগুলিকে ভারত ও বাংলাদেশ ছাড়াও মধ্য এশিয়ার নানা দেশে দেখা যায়৷ এইগুলিকে রীতিমত দক্ষ অ্যাথলিট বলা যায়৷

শীতের সময় এই পাখিগুলি মধ্য এশিয়া থেকে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় পরিযায়ী হয়ে আসে৷ বসন্তকালে আবার মধ্য এশিয়ায় চলে যায়৷ সেখানকার পার্বত্যাঞ্চলে ও জলাশয়ে বিচরণ ও প্রজনন করে৷ এ জন্য তাদের ৭০০০ মিটার উঁচু হিমালয় অতিক্রম করতে হয়৷ আট ঘণ্টায় বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্বত হিমালয় পার হতে পারে তারা অনায়াসে৷

Himalaya-Gebirge

আট ঘণ্টায় বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্বত হিমালয় পার হতে পারে তারা অনায়াসে

উঁচুতে ওঠা কোনো সমস্যাই নয়

এত উঁচুতে বাতাসও বেশ পাতলা৷ অর্ধেক অক্সিজেনে কাজ চালিয়ে নিতে হয় তাদের৷ এটা অবশ্য পাখিগুলির জন্য কোনো সমস্যাই নয়৷ এই পাখিগুলি কেমন করে এই পরিস্থিতি কাটাতে পারে, সেটা জানার চেষ্টা করছেন গবেষকরা৷ এ জন্য স্বচ্ছ একটি প্লাস্টিকের বাক্সে রানিং ব্যান্ডে দৌড়াতে দেন হাঁসগুলিকে৷ অক্সিজেনের পরিমাণ ধীরে ধীরে কমিয়ে দেন৷ অনেকটা হিমালয়ের আবহাওয়ার মতো৷ হাঁসগুলি তাদের গতি ১৫ মিনিট ধরে রাখতে পারে৷ ‘‘প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত পর্বাতারোহীদের জন্যও এটা অসম্ভব৷'' বলেন পর্বতারোহী শ্টেফান নেশ্টলার৷ ৭২০০ মিটার উঁচু মাউন্ট এভারেস্ট জয় করেছেন তিনি৷ তাই উঁচুতে ওঠার সমস্যাটা ভালভাবে জানেন৷ মানুষের শরীর ধীরে ধীরে কম অক্সিজেনে অভ্যস্ত হয়৷ অনেক দিন বা সপ্তাহও লেগে যায়৷ পর্বাতারোহীদের মাঝে মাঝে ঘুমের জন্য বিরতি দিতে হয়৷ এছাড়া এক স্থান থেকে আরেক স্থান পর্যন্ত একটানা ৩০০ মিটারের বেশি ওপরে ওঠা উচিত নয়৷ ‘‘৭,০০০ মিটার উঁচুতে পাঁচ পা যাওয়ার পরই তো আমার হাঁপ ধরে যায়৷'' বলেন নেস্টলার৷

কৌশলটা কী?

প্রশ্ন জাগতে পারে, পরিযায়ী হাঁসগুলি কোন কৌশলে কোনো রকম অসুবিধা ছাড়াই এই পথ অতিক্রম করতে পারে?

পেশির কাজের জন্য প্রয়োজন অক্সিজেন৷ এটি রক্তের লোহিতকণিকার মাধ্যমে বাহিত হয়৷ দেহের সেল বা কোষে অক্সিজেন থেকে শক্তি সৃষ্টি হয়৷ পরিযায়ী হাঁসগুলির সুবিধা হলো তাদের পেশিতে বহু রক্ত-ধমনী রয়েছে৷ এজন্য ভালভাবে রক্ত সরবরাহ হয়৷ মনে করেন গবেষকরা৷ এছাড়া তাদের রক্তের লোহিতকণিকা কিছুটা ভিন্ন ধরনের৷ এটা অক্সিজেন শক্ত করে ধরে রাখতে পারে৷ এই কারণে পর্যাপ্ত অক্সিজেন পেশিতে আসতে পারে৷

প্রকৃতির সঙ্গে খাপ খাওয়াতে পারে

আর একটা কৌশল হলো: এই পাখিদের মাইটোকন্ড্রিয়া রক্তের ধমনী সংলগ্ন থাকে৷ তাই তারা দ্রুত অক্সিজেন গ্রহণ করে শক্তি হিসাবে ব্যবহার করতে পারে৷

এইভাবে শারীরিক গঠনের দিক দিয়ে প্রকৃতির সঙ্গে খাপ খাওয়াতে পারে বলেই হাঁসগুলি অত্যন্ত দ্রুতগতিতে উঁচু পথ অতিক্রম করতে পারে৷ এই রকম হলে পর্বতারোহীদের হয়তো উঁচুতে উঠতে বাধ্যতামূলক বিশ্রাম নিতে হতো না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন