1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ন্যাটোর বৈঠকে ভবিষ্যতের হুমকি নিয়ে আলোচনা

ব্রাসেলসে ন্যাটোর বৈঠকে উঠে এসেছে ক্ষেপণাস্ত্র হানা থেকে শুরু করে সাইবার আক্রমণের নানা হুমকির কথা৷ আগামী দশকে এগুলোই বিপত্তিতে ফেলতে পারে ন্যাটোভুক্ত দেশগুলোকে৷ তাই প্রতিরোধের পরিকল্পনা নিতে হবে এখনই, মত ন্যাটোর৷

default

আন্ডার্স ফঘ রাসমুসেন

অভিন্ন ক্ষেপণাস্ত্র ধ্বংসী বর্ম

একটি অভিন্ন ক্ষেপণাস্ত্র ধ্বংসী প্রতিরোধ ব্যবস্থার গুরুত্ব আরো একবার জানিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৷ ব্রাসেলসে ন্যাটোর বৈঠকে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিন্টন ন্যাটোভুক্ত দেশগুলাকে এই ক্ষেপণাস্ত্র ধ্বংসী পরিকল্পনায় অর্থায়নের আহ্বান জানিয়েছেন৷ একইসঙ্গে বিভিন্ন দেশকে প্রতিরক্ষা খাতের বাজেট না কমানোর আহ্বান জানিয়েছেন তিনি৷ তাঁর সঙ্গে একই সুর তুলেছেন মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রবার্ট গেটস৷ আর ন্যাটো প্রধান আন্ডার্স ফঘ রাসমুসেনতো গতকালই জানিয়ে দিয়েছেন যে, আগামী দশকের সুরক্ষায় ক্ষেপণাস্ত্র ধ্বংসী বর্মের বিকল্প নেই৷

প্রকল্পের খরচ

মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী যে হিসেব দিচ্ছেন, তাতে খরচ হবে সাড়ে আট থেকে ১০ কোটি ইউরোর মতো৷ গেটস জানান, এই নিয়ে গবেষণা হয়ে গেছে, প্রয়োজনীয় তথ্য উপাত্তও হাতে আছে, তাই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা অসম্ভব নয়৷ এর আগে অবশ্য রাসমুসেন জানিয়েছেন, অভিন্ন ক্ষেপণাস্ত্র বিধ্বংসী বর্ম গড়ে তুলতে খরচ হতে পারে ২০ কোটি ইউরোর মতো৷ তিনি আরো জানিয়েছেন, আগামী নভেম্বরে লিসবনে ন্যাটো শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে বিষয়টি চূড়ান্ত রূপ পাবে৷

শুরুতে ফ্রান্সের আপত্তি, পরে সম্মতি

ব্রাসেলসে ফ্রান্সের প্রতিরক্ষামন্ত্রী অ্যার্ভে মরঁ উপস্থিত রয়েছেন৷ তিনি প্যারিসের অবস্থান তুলে ধরে বলেন, আমরা এই প্রকল্পের খরচাপাতি এবং কর্মপ্রক্রিয়া সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে চাই৷ এদিকে, সর্বশেষ যে খবর, তাতে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এই প্রকল্পের জন্য অর্থ সংস্থানে রাজি হয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে৷ সার্কোজির ঘনিষ্ঠ এক সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থাগুলো জানাচ্ছে, প্যারিসের কাছে এই ব্যবস্থার অর্থ হচ্ছে ইরানের মতো শক্তিগুলোর ক্ষেপণাস্ত্র হামলা থেকে ন্যাটো দেশগুলোকে রক্ষা করা৷ রাশিয়ার কাছ থেকে নয়৷

ন্যাটো বৈঠকে আফগানিস্তান

ন্যাটো বৈঠকের আনুষ্ঠানিক আলোচ্যসূচিতে আফগানিস্তান ছিলনা৷ তবে কথা হয়েছে৷ ২০১১ সালের জুলাই থেকে আফগানিস্তানের নিরাপত্তার দায়িত্ব আফগান বাহিনীর হাতে ছাড়তে চায় ন্যাটো৷ এসংক্রান্ত চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত লিসবন বৈঠক থেকে আশা করা হচ্ছে৷ এছাড়া তালেবানের সঙ্গে আফগান সরকারের শান্তি আলোচনাতেও সমর্থন জানাচ্ছে ন্যাটো, তবে সামরিক তৎপরতা বন্ধ করে নয়৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক