1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

নোবেল জয়ী অমর্ত্য সম্পর্কে কটূক্তি, পশ্চিমবঙ্গে নিন্দার ঝড়

বিজেপি’র পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ অসম্মানজনক মন্তব্য করলেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন সম্পর্কে৷ নিন্দায় সোচ্চার বাংলা৷

ভারতের হাতে গোনা যে ক'‌জন নোবেল সম্মান বিজয়ী আছেন, তাঁদেরই একজন অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন৷ তাঁর অর্থনৈতিক প্রজ্ঞা এবং দর্শন সারা বিশ্বেই স্বীকৃত, সম্মানিত৷ যদিও তিনি বহু বছর ধরে আমেরিকার বাসিন্দা, এবং জীবন যাপনে তিনি আন্তর্জাতিক, কিন্তু অমর্ত্য সেন বাঙালি বলে, বাকি বাঙালিদের বিশেষ গর্বের কারণ৷ এহেন মানুষটি সম্পর্কে বিজেপি'র রাজ্য সভাপতি, খড়গপুরের বিধায়ক দিলীপ ঘোষের মূল্যায়ণ, ‘‘আমাদের একজন বাঙালি নোবেল পেয়েছেন৷ তিনি কী করেছেন, বাংলার কেউ বোঝে না!‌ সম্ভবত তিনি নিজেও বোঝেননি৷ কিন্তু তিনি কী দিয়েছেন দেশকে?‌ দেশের জন্যে কী করেছেন উনি?''


প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জমানায় দেশের অন্যতম উৎকর্ষ কেন্দ্র নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছিলেন অমর্ত্য সেন৷ ২০১৫ সালে৷ কারণ, জল্পনা ছিল, মোদি সরকারের ‘হ্যাঁ'-তে ‘হ্যাঁ' না মেলানোর অপরাধে তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হতে পারে৷ কার্যত তা-ই হয়েছিল৷ অমর্ত্য সেন ইস্তফা দেওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালন সমিতি থেকেও তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হয়৷ সে প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষের কটাক্ষ, ‘‘ওঁকে নালন্দার উপাচার্য পদ থেকে হটানো হয়েছে, তাতে (‌কিছু লোকের)‌ খুব কষ্ট হচ্ছে!''‌

অটল বিহারী বাজপেয়ির প্রধানমন্ত্রিত্বে পূর্বতন এন ডি এ সরকারের আমলে যে অমর্ত্য সেনকে দেশের সর্বোচ্চ অসামরিক খেতাব ‘‌ভারতরত্ন'‌ দেওয়া হয়েছিল, তাঁর সম্পর্কে এরপর দিলীপ ঘোষের মন্তব্য, ‘‘যাদের কোনও মেরুদণ্ড নেই, চরিত্র নেই, এ রকম লোকের জন্য আজ বাঙালির গর্ব হচ্ছে! এদের কেনা যায়, বিক্রি করা যায়! চমকানো যায়! (‌এরা তখন)‌ পায়ে পড়ে যায়৷''

নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ সম্পর্কে বিজেপি রাজ্য সভাপতির এই উষ্মা এবং অসম্মানজনক মন্তব্যের কারণ অবশ্য সহজেই অনুমেয়৷ মোদী সরকারের নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের কঠোর সমালোচকদের অন্যতম অমর্ত্য সেন৷ তিনি প্রকাশ্যে এবং নির্দ্বিধায় এই সিদ্ধান্তের ত্রুটিগুলো চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছেন, যা বিজেপি'র অস্বস্তির কারণ হয়েছে৷ কিন্তু তার প্রতিক্রিয়ায় দিলীপ ঘোষের এই কুরুচিকর মন্তব্যে ক্ষোভ ছড়িয়েছে বাঙালি মানসে৷ সমালোচিত হচ্ছেন দিলীপ ঘোষ ও তাঁর দল৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যঙ্গ-বিদ্রূপ চলছে দিলীপ ঘোষের ‘‌তিনি কী করেছেন, বাংলার কেউ বোঝে না'‌ মন্তব্য নিয়ে৷

রাজনৈতিক মহলও প্রতিবাদে সরব৷ রাজ্য সরকারের পরিষদীয় মন্ত্রী, তৃণমূল কংগ্রেস নেতা পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেছেন, ‘‘‌লজ্জাজনক৷ বাঙালির মাথা হেঁট হয়ে গেল ওই একটা কথায়৷''‌ প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরি বলেছেন, ‘‘‌বিজেপি'র যা সংস্কৃতি, এদের থেকে এর চেয়ে ভালো কিছু আশাই করা যায় না৷'' সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, ‘‘‌পাড়ার কে কী বলল, তা নিয়ে মাথাব্যাথা নেই৷ আমাদের কাছে অমর্ত্য সেন মানে বাঙালির গর্ব৷''‌ সিপিএম বিধায়ক সুজন চক্রবর্তী বলেছেন, ‘‘‌হম্বিতম্বি করে রাজনীতি হয় না৷ রাজনীতিটা সমাজের জন্য, সংস্কৃতির জন্য৷ রাজনীতির সহজ পাঠটাই এখনও শেখেননি দিলীপ ঘোষ৷ কার বিরুদ্ধে কথা বলছে, যিনি বাংলাকে গর্বের আসনে বসিয়েছেন৷''‌

কিন্তু অমর্ত্য সেন নিজে দিলীপ ঘোষের মন্তব্যকে গুরুত্ব দিতে নারাজ৷ তিনি বলেছেন, ‘‘‌দিলীপ ঘোষ যা বলেছেন, তা নিয়ে আমার কোনও আপত্তি নেই৷ ওঁর বলার নিশ্চয়ই অধিকার আছে৷ উনি যা ভেবেছেন, বুঝেছেন, সেটাই বলেছেন৷''‌ কবি শঙ্খ ঘোষও বিষয়টিকে একেবারেই গুরুত্ব দিতে নারাজ৷ তিনি বলেছেন, ‘‘এ নিয়ে কোনও মন্তব্য করাই অর্থহীন৷''‌

এই প্রবল সমালোচনার মুখে পড়ে সুর বদলেছেন দিলীপ ঘোষ৷ বলেছেন, তিনি ব্যক্তিগত আক্রমণ করতে চাননি, সামগ্রিকভাবে বুদ্ধিজীবীদের কথা বলতে চেয়েছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন