1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

নেপালে ৩ বছর বয়সি ‘জীবন্ত দেবী'

ধর্মীয় অনুষ্ঠানে অংশ নিতে তৃষ্ণা শাক্য নামের তিন বছরের এক কন্যা শিশুকে তার পরিবার গিয়েছিল এক মন্দিরে৷ আপাতত আর বাড়ি ফেরা হচ্ছে না তার৷ ‘জীবন্ত দেবী' নির্বাচিত হওয়ায় বয়ঃসন্ধি না হওয়া পর্যন্ত ওই মন্দিরেই থাকতে হবে তাকে৷

বৃহস্পতিবার নেপালে তিন বছর বয়সি এই কন্যা শিশু নতুন ‘জীবন্ত দেবী' নির্বাচিত হয় হিন্দু ও বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের যৌথ সিদ্ধান্তে৷  ফাইনালে ছিল চার প্রতিযোগী৷বাকি তিনজনকে হারিয়ে ‘কুমারী'হয়েছে তৃষ্ণা শাক্য৷

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের একটি প্যানেল বেশ কয়েকদিন ধরে তার কোষ্ঠী ও শারীরিক পরীক্ষা করে৷ কারণ, তাঁদের বিশ্বাস, দেবীর কোনো খুঁত থাকতে পারে না৷

গৌতম শাক্য নামে প্যানেলের একজন বলেন, ‘‘এটি আমাদের ঐতিহ্য৷ সে আমাদের দেশের জন্য ভালো কিছু বয়ে নিয়ে আসবে, এই বিশ্বাস যেহেতু করি, তাই অনেক অনুসন্ধান করে বের করতে হয়েছে তাকে৷ এই শিশুর বয়স ১২ বছর হলে আমরা আবারও আরেকজন দেবী নির্বাচন করব৷''

‘‘আমরা আমাদের নতুন কুমারী পেলাম'' বলেন তিনি৷

লাল পোশাক আর ফুলের মালা পরিহিত কুমারীকে চারপাশ থেকে ঘিরে ধরে তার ভক্তরা৷ কাঠমান্ডুতে নিজের বাড়ি ছেড়ে যাওয়ার আগে উপহার হিসেবে চকোলেট, ডিম, মিষ্টি এবং ফল নিয়ে সবাই দেখতে এসেছিল তাকে৷

Nepal die neue lebende Göttin Trishna Shakya (picture-alliance/Photoshot/S. Sharma)

বাবা-মা ও পরিবারের অন্যদের সঙ্গে মন্দিরে যাচ্ছে তৃষ্ণা

প্রধান পুরোহিত মন্দিরে আনার আগে গাড়ীতে করে তাকে আশেপাশের আরও অনেক মন্দির ঘুরিয়ে নিয়ে আসেন৷

তৃষ্ণা দেবী নির্বাচিত হওয়ার তার পরিবার ভীষণ গর্বিত৷ ‘‘সে কেবল আমাদের মেয়ে নয়, বরং পুরো দেশের জন্য দেবী হচ্ছে'' বলেন তৃষ্ণার বাবা বিজয় রতন শাক্য৷ ‘‘আমি খুব খুশি, কিন্তু একইসাথে আমার কান্নাও আসছে,'' যোগ করেন তিনি৷

তৃষ্ণার প্রবেশের পরপরই মন্দির থেকে আগের দেবী মাতিনা শাক্য তার ভক্ত অনুরাগীদের সাথে নিয়ে বের হয়ে আসে৷ তার বয়স এখন ১২৷

দুই সপ্তাহব্যাপী এই উৎসব চললেও উৎসবের অষ্টম দিনে এই কুমারী নির্বাচিত হয়৷ এটিই নেপালের প্রধান উৎসব৷

এএম/এসিবি (এপি)

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক