1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

নেপালে গুলের ইট দিয়ে বিকল্প জ্বালানি

পুরনো বইখাতা থেকে অর্গ্যানিক গুল নেপালের এক এতিমখানায় কাজে লাগছে৷ অভিনব এই উদ্যোগের ফলে অর্থ ও জ্বালানি সাশ্রয় এবং পরিবেশ সংরক্ষণ – এক ঢিলে দুই পাখি মারা যাচ্ছে৷

কাটমান্ডুর কাছে অনাথাশ্রমের বাচ্চারা শুকনো পাতার ওপর লাফালাফি করে, যতক্ষণ না সেগুলো গুঁড়া গুঁড়া হয়ে যায়৷ পুরনো স্কুলের খাতারও একই দশা৷ ঝারুয়ারাশি অনাথাশ্রমের অধ্যক্ষা নির্মলা খাতি বললেন, ‘‘এগুলোয় লেখা, হোমওয়ার্ক সব করা হয়ে গেছে৷ খাতাগুলো এ বছরের নয়৷''

পুরনো থেকে নতুন সৃষ্টি৷ কাগজ আর পানি মিশিয়ে মণ্ড তৈরি করা হয়৷ পরে তাতে ঝরা পাতা মেশানো হয়৷ কোনো হাইটেক ব্যাপার নয়, কিন্তু সাঙ্গালি আর সীমা এখানে যা তৈরি করেন, তা খুবই কাজের৷ বলা যেতে পারে অর্গ্যানিক গুল, কিংবা গুলের ইট৷ অনাথাশ্রম চলে দানের টাকায়, ওদিকে কাঠের দাম চড়া৷ অনাথাশ্রমের প্রধান সুরেশ খাতি বলেন, ‘‘খাবার কিনতেই অনেক টাকা লাগে৷ রান্নার জন্য গোটা গাছ বা কাঠ কেনাটা অপচয়৷ আমরা কাঠের একটা বিকল্প খুঁজছিলাম৷'' উল্লেখ্য, গত ২৫ বছরে নেপালের বনজঙ্গলের প্রায় এক-চতুর্থাংশ নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে৷

Nepal

নেপালের অনাথাশ্রমের শিশুদের জীবনে কিছুটা পরিবর্তন এসেছে

অনাথাশ্রমে প্রায় ষাটজন শিশু বসবাস করে৷ তারা হয় বাপ-মা হারিয়েছে, নয়তো রাস্তাঘাটে মানুষ হচ্ছিল৷ ছাদের ওপর মজা করে স্লিপ খাওয়া যায়৷ আবার সূর্যের আলোয় পাইপের মধ্যে পানিও গরম হয়৷ সবে কিছুদিন হলো, দুটো মজার বাক্স বসানো হয়েছে৷ এগুলো আসলে সোলার প্যানেল৷ শিশুরা বলে, এগুলো থাকায় তারা সন্ধ্যায় পড়তে পারে, টেলিভিশন দেখতে পারে৷ এখনও কাঠের চুলা ছাড়া পুরোপুরি কাজ চলে না, ফলে রাতের রান্না তা দিয়েই করতে হয়৷ তবে ছেঁড়া কাগজ আর গুঁড়া পাতার গুল দিয়ে দুটো ছোট চুলা চালানো যায়৷

অর্গ্যানিক গুলের নানা সুবিধে আছে৷ রাঁধুনি তারা সিঞ্জলি বললেন, ‘‘এই গুল দিয়ে আগুন ভালো হয়, আঁচও বেশি হয়৷ অথচ ধোঁয়া হয় কম৷''

রাতের অন্ধকারে স্কুলের জন্য পড়তে হয়৷ তবে যেখানে এক ঘরে চোদ্দজন মেয়ে থাকে, সেখানে পড়াশুনো করা খুব সহজ নয়৷ অন্তত সন্ধ্যায় নিয়মিত বিদ্যুৎ থাকে, যা আগে সবসময় থাকতো না৷ আজ আলো আসে সোলার প্যানেলগুলো থেকে৷ ব্যাটারিতে দিনের আলো ধরে রেখে পরে তাই দিয়ে রাতের আলো জ্বলে৷

অনাথাশ্রমের প্রধান সুরেশের মাথায় নিত্যনতুন আইডিয়া খেলছে৷ অনাথাশ্রমের মাঠে চারটে মোষ পোষা রয়েছে৷ তারা প্রচুর গোবর তৈরি করে৷ অনাথাশ্রমের প্রধান সুরেশ খাতি বলন, ‘‘ওরা রোজ পঞ্চাশ কিলো গোবর দেয়৷ তাই দিয়ে আমরা বায়োগ্যাস তৈরি করতে পারি৷ সেই বায়োগ্যাস দিয়ে রান্না হতে পারে৷''

অনাথাশ্রমের এই খুদে বাসিন্দাদের অবশ্য প্রাণশক্তির কোনো অভাব নেই৷ একদিন তারা নিজেদের পথ নিজেরাই খুঁজে নেবে৷

এসি / এসবি

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়