1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

নেইমার বাদে ব্রাজিলের জেতার আশা কতটুকু?

১৯৬২; পেলে ‘ইনজিওরড’; ব্রাজিলকে বিশ্বকাপ জেতালেন গ্যারিঞ্চা ও আমারিল্দো৷ কিন্তু ব্রাজিল দলে এবার গ্যারিঞ্চা হবার মতো কেউ আছেন কি? অন্যদিকে, ব্রাজিল আজ আগের চেয়ে অনেক বেশি মারকুটে; জার্মানি আগের চেয়ে কম আগ্রাসী৷

সব মিলিয়ে এই সেমিফাইনাল যদি ৯০ ছেড়ে ১২০ মিনিটের দিকে এগোয়, এমনকি পোনাল্টি শুটআউটে পৌঁছায়, তাহলে যেন কেউ আশ্চর্য না হন৷ অপরদিকে নেইমারের অনুপস্থিতি মানেই যে খেলাটা ‘ওয়াকওভার' হবে, এটা জার্মান দলের কেউই মনে করেন না: কোচ ইওয়াখিম ল্যোভ তো নন-ই, তাঁর স্টার খেলোয়াড় বাস্টিয়ান শোয়াইনস্টাইগার-ও নন৷

Fußball WM 2014 - Neymar wird ins Krankenhaus geflogen

আহত নেইমার

দলের ম্যানেজার অলিভার বিয়ারহোফ বলেছেন এবং শোয়াইনস্টাইগার বলেছেন যে, তাঁরা পূর্ণশক্তির ব্রাজিল দলের বিরুদ্ধে খেলতে – এবং জিততে পারলে খুশিই হতেন৷ কিন্তু নেইমার বাদ দিয়েও এই ব্রাজিল যে আর সে ব্রাজিল নেই, সেটা জার্মান তরফে সকলেই জানেন৷ কলম্বিয়ার বিরুদ্ধে ২-১ গোলে জেতার সময় ব্রাজিল সর্বসাকুল্যে ৩১টা ফাউল করেছে৷ শোয়াইনস্টাইগার বলেছেন: ‘‘আপনারা ভাবেন ব্রাজিলিয়ানরা সবাই ‘ম্যাজিশিয়ান'৷ কিন্তু ওদের দল বদলে গেছে, ওরা আজ অন্য ধরনের ফুটবল খেলে৷ গায়ের জোর দিয়ে খেলা আজ ওদের খেলার অঙ্গ এবং আমাদের সেজন্য প্রস্তুত থাকতে হবে৷''

জার্মান কোচ ইওগি ল্যোভ-ও বলেছেন: ‘‘ব্রাজিলের প্রথাগত ফুটবল শৈলীর আর বিশেষ কিছু বাকি নেই – ওদের সেই শৈল্পিক ফুটবল, যা আমরা সবাই চিনি৷ ব্রাজিলের প্লেয়ারদের টেকনিক খুব ভালো বৈকি৷ কিন্তু ওরা এই বিশ্বকাপে অন্য যে কোনো দলের চেয়ে বেশি গায়ের জোর দিয়ে খেলছে এবং বিপক্ষদলের আক্রমণ সেইভাবে ব্যাহত করার চেষ্টা করছে৷'' তা নিয়ে ল্যোভের বিশেষ চিন্তিত না হবারই কথা, যেহেতু জার্মান ক্যাপ্টেন ফিলিপ লাম তাঁর অভ্যস্ত রাইট ব্যাক পজিশনে ফেরত গেছেন; গোলরক্ষক মানুয়েল নয়ারের ফর্ম অনবদ্য ; ওদিকে বাদবাকি ব্যাক লাইনের জন্য ল্যোভ পের মের্টেসাকার, মাটস হুমেলস ও জেরোম বোয়াটেং-এর মধ্যে যে কোনো দু'জনকে বেছে নিতে পারেন৷

ব্রাজিলও মুষড়ে নেই

ওদিকে নেইমারের বিরহে যে ব্রাজিলিয়ান টিম একেবারে নুয়ে পড়েছে, এমন নয়৷ চেলসির উইলিয়ান – উচ্চতায় এক মিটার ৬৩ সেন্টিমিটার – নাকি নেইমারের জায়গা নিতে প্রস্তুত: ‘‘আমরা ও না থাকায় দুঃখিত, কিন্তু তার ফলে আমাদের স্বপ্ন সফল করার আরো বেশি প্রেরণা পাব৷'' কোচ লুইজ ফেলিপে স্কোলারি বলেছেন: ‘‘আমরা প্লেয়ারদের বোঝানোর চেষ্টা করছি যে, এই বিপর্যয় একটা সুযোগও হতে পারে, সব কিছু অন্যভাবে করার সুযোগ৷ আর আমরা ঠিক তাই করব৷''

নেইমারের জায়গায় উইলিয়ান, আর দা সিলভার জায়গায় বায়ার্ন মিউনিখের দান্তে? মাইকন কি রাইট ব্যাক থাকছে? ফ্রেড কি আবার গোড়া থেকেই খেলবে? স্কোলারির সামনে নানা প্রশ্ন৷ বলতে কি, ফুটবলের সামনেও৷ তবে নতুন কোনো প্রশ্ন নয়৷ শিল্পের সঙ্গে রুটির বিরোধ তো চিরকাল৷ ‘জোগা বোনিতো', বিউটিফুল গেম এক কথা, আর ম্যাচ জেতা, ট্রফি জেতা আরেক কথা৷ কিন্তু এবার ফুটবলের সামনে যে প্রশ্ন, অনেক ক্ষেত্রে একটি দেশের রাজনীতিকেও পঙ্গু করে দেবার ক্ষমতা রাখে৷

ফুটবল ও গুণ্ডামি

ফুটবলে কতটা গুণ্ডামি চলে? এ প্রশ্নের জবাব দৃশ্যত ফিফার কাছে নেই৷ ফিফা কখনো রেফারিদের বলে কড়া হতে; কখনো রেফারিদের বলে, অত চট করে হলুদ কার্ড দেখিও না৷ আর এই দোনামোনার সুযোগ নিয়ে একদল পেশাদারি ফুটবলার পেশাদারি গুণ্ডাদের মতো আচরণ শুরু করে৷

অবশ্য সেই গুণ্ডামি সাধারণত নেইমারের বিরুদ্ধে ফাউলের মতো মোটা দাগের হয় না, ফাউল করা হয় চুরি-ছ্যাঁচড়ামি-পকেটমারির মতো: হাত কি জামা ধরে টানা; জড়িয়ে ধরা; পিছন থেকে ঠেলা দিয়ে বিপক্ষের খেলোয়াড়ের ভারসাম্য নষ্ট করে দেওয়া; হেড দেবার প্রচেষ্টা হিসেবে বস্তুত কারুর মাথায় চড়ে বসা৷

এবারকার বিশ্বকাপে যে ফাউলটি ফাইন আর্টে পরিণত হয়েছে, সেটি হলো পা মাড়িয়ে দেওয়া; বুটের পয়েন্টটা দিয়ে পায়ে খোঁচা মারা; সন্তর্পণে লেঙ্গি মারা – বাঙালির প্রিয় ঐ বস্তুটি যে একদিন বিশ্বের সেরা ফুটবল খেলোয়াড়দের তুণের অস্ত্র হয়ে দাঁড়াবে, তা কে ভাবতে পেরেছিল? সেই সঙ্গে: বল গোললাইন পেরিয়েছে কিনা, তা দেখার জন্য সাতটি ক্যামেরা আছে৷ কিন্তু ফাউল থেকে অফসাইড দেখছেন এখনও এক রক্তমাংসের রেফারি এবং তাঁর সাগরেদ দুই লাইন্সম্যান, যাঁরা মাঠময় কানামাছি ভোঁ-ভোঁ করে বেড়াচ্ছেন আর প্লেয়াররা অন্য প্লেয়ারদের কামড়ে দিলে – কিংবা হাঁটুর গুঁতোয় তাঁদের মেরুদণ্ডের হাড় সরিয়ে দিলে – সেই সব ছোট-খাটো অপরাধ চোখে দেখেন না৷ এ যেন এক দারোগা আর দুই পাহারোলায় মিলে পাড়ায় পাড়ায় খুনোখুনি রোখার চেষ্টা৷

ও হ্যাঁ, সুয়ারেজের মরণ কামড় যিনি দেখেও দেখেননি, সেই রেফারিই আবার জার্মান-ব্রাজিল সেমিফাইনালে বাঁশি বাজাবেন কিনা!

এসি/ডিজি (রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়