1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

নিশ্চিত হলো আকুপাংচারের কার্যকারিতা

‘অ্যাডেনোসিন’ নামের এক ধরণের প্রাকৃতিক রস বের করে দিয়ে মানবদেহের বিভিন্ন অঙ্গের ব্যথা দূর করে আকুপাংচার৷ এই চিকিৎসা পদ্ধতি যে কার্যকর এবং সুফল দেয়, সে সম্পর্কে এবার নিশ্চিত হলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীরা৷

default

ভুটানের একটি হাসপাতালে আকুপাংচার পদ্ধতির প্রয়োগ (ফাইল ছবি)

নিউইয়র্কের রচেস্টার মেডিকেল সেন্টার এর বিজ্ঞানীরা পরীক্ষাগারে একটি ইঁদুরের দেহে আকুপাংচার করে এর প্রমাণ পেয়েছেন৷ বিজ্ঞানীদের গবেষণার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে ‘নেচার নিউরোসায়েন্স' নামক সাময়িকীতে৷ ইঁদুরটির সামনের দিকের ডান পা'য়ে ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে প্রদাহ বাড়িয়ে দেয় এমন একটি রাসায়নিক পদার্থ প্রবেশ করানো হয়৷ এরপর তার হাঁটুর মধ্যভাগের অল্প নিচে সূক্ষ্ম সুঁচ ঢুঁকানো হয়৷ আকুপাংচার পদ্ধতির ভাষায় এই পয়েন্টটি ‘সুসানলি পয়েন্ট' নামে পরিচিত৷

বিজ্ঞানীরা এই সুঁচটিকে প্রতি পাঁচ মিনিট পরপর আলতোভাবে ঘোরাতে থাকেন৷ ঠিক আকুপাংচারের পদ্ধতি অনুসারে এটি ৩০ মিনিট ধরে ঘোরানো হয়৷ এই অপারেশন চলাকালীন এবং এর পরের মুহূর্তে দেখা যায় যে, ঐ কলাসমূহের আশপাশে অ্যাডেনোসিনের মাত্রা ২৪ গুণ বেশি ছড়িয়ে পড়তে থাকে৷ পরীক্ষা চলাকালে ইঁদুরটির দেহে ব্যথার মাত্রা যন্ত্রের সাহায্যে পরিমাপ করা হয়৷ দেখা গেছে, অপারেশনের পর ইঁদুরটির নির্দিষ্ট অঙ্গের প্রদাহ দুই-তৃতীয়াংশ কমে গেছে৷

Traditionelle Chinesische Medizin Gesundheit, Medizin, China, Heilbehandlung, Patienten, Akupunktur, schröpfen, schröpfglas, akupunktieren, Kräuter

চীনে আকুপাংচার পদ্ধতিতে চিকিৎসা (ফাইল ছবি)

জিনগতভাবে অ্যাডেনোসিন বিহীন ইঁদুরের দেহেও একই পরীক্ষা চালানো হয়৷ এক্ষেত্রে ব্যবহৃত ইঁদুরটির দেহে অ্যাডেনোসিন উপাদানটি না থাকায় আকুপাংচারের ফলে কোন লাভ হয়নি৷ ফলে তার দেহের নির্দিষ্ট অঙ্গের ব্যথাও কিছুমাত্র কমেনি৷ এরপর বিজ্ঞানীরা একটি ইঁদুরের দেহে প্রবেশ করান অ্যাডেনোসিন বর্ধক উপাদান ডিঅক্সিকোফর্মিসিন৷ এবার এই ইঁদুরটির দেহে একই পরীক্ষা চালান তাঁরা৷ যেহেতু এই উপাদানটি কলা থেকে অ্যাডেনোসিন সহজে বের হতে দেয় না, তাই প্রথম পরীক্ষার মতো ফল পেতে তিনগুণ বেশি সময় ধরে চালাতে হয়েছে আকুপাংচার প্রক্রিয়া৷

এই গবেষক দলের প্রধান মাইকেন নেডেরগার্ড বলেন, ‘‘পৃথিবীর বেশ কিছু অঞ্চলে প্রায় চার হাজার বছর ধরে আকুপাংচারই প্রধান চিকিৎসা পদ্ধতি হিসেবে প্রচলিত রয়েছে৷ কিন্তু এটা পুরোপুরি বোঝা যায়নি বলেই অনেকেই এই পদ্ধতির ব্যাপারে সন্দেহ পোষণ করেন৷''

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সংশ্লিষ্ট বিষয়