1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

নির্যাতনের হাত থেকে রক্ষা করতে নারী ভবন

৭০’এর দশকে জার্মানিতে পারিবারিক নির্যাতন নিয়ে কথা বলা ছিল ‘ট্যাবু’৷ ১৯৭৬ সালে বার্লিনে প্রথম যখন নিগৃহীত নারীদের জন্য নিরাপদ বাসের স্থান ফ্রাউয়েন হাইজ বা নারী ভবন তৈরি হয়, তখন থেকে প্রকাশ্যেই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা শুরু হয়৷

default

জার্মানিতে নারী ভবনের দাবিতে বিক্ষোভ

এইসব ফ্রাউয়েন হাউজে নিগ্রহের শিকার অনেক মহিলাই আশ্রয় নিত৷ এর মধ্যে জার্মানিতে এ ধরণের আরো কয়েক'শ বাড়ি তৈরি করা হয় যেখানে প্রায় ৭ হাজার মহিলা আশ্রয় গ্রহণ করতে পারেন৷ জার্মানিতে মহিলারা শিক্ষা, পেশাগত জীবন, রাজনৈতিক প্রায় সবগুলো ক্ষেত্রেই নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করেছেন৷ গত ৩০ বছরে সমানাধিকারের ক্ষেত্রে যথেষ্ঠ অগ্রগতিও লক্ষ্য করা গেছে৷ তাই মাঝে মাঝে এই সমানাধিকারের দাবিতে যে নারী ঘরের চার দেয়ালের ভিতরে সোচ্চার হয়েছে তার ওপর নেমে এসেছে চরম দুর্যোগ৷ বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই তা স্বামী বা জীবনসঙ্গীর কাছ থেকে৷

জার্মানিতে প্রতি বছর স্বামী বা বন্ধুর নিগ্রহের হাত থেকে নিজেদের রক্ষা করতে প্রায় ৪০ হাজার মহিলা আশ্রয় নেন মহিলাদের জন্য নির্মিত এসব নিরাপদ আশ্রয়ভবনগুলোতে৷ বন শহরেও রয়েছে এমন একটি নারী ভবন৷ সেখানে কাজ করছেন ইসাবেল৷ তিনি জানালেন, ‘‘যে সব মহিলা এখানে আসেন তারা বেশির ভাগ সময়ই কাঁদতে কাঁদতে আসেন৷ এখানে তারা ততদিন থাকেন যতদিন তারা অন্য কোথাও যাওয়ার জায়গা খুঁজে না পান৷ তাদের বাড়ি খুঁজে দিতেও আমরা সাহায্য করি৷ অনেকের কাছে একা একা কিছু করা বেশ কষ্টকর, তাদের অভ্যাসও নেই৷ অনেকেই সারাক্ষণ ভীত থাকেন, কোন সময় স্বামী এসে হাজির হয় - সে ভয়ে৷ এসব পরিবারের ক্ষেত্রে দেখা গেছে, যখন স্বামী স্ত্রীর ওপর নির্যাতন চালিয়েছে তখন বাচ্চারা তা দেখেছে, বাচ্চাদের চোখের সামনেই এসব হয়েছে৷''

বনের এই বাড়িতে শুধুই আশ্রয় দেয়া হয় না, নিগৃহীত এসব মহিলাকে বিভিন্ন বিষয়ে পরামর্শও দেয়া হয়ে থাকে৷ মানসিক ভাবে তাদের শক্ত করার চেষ্টাও করা হয়, জানান ইসাবেল৷ তিনি আরো বলেন, যে সব মহিলা এখানে আসেন তাদের বয়স ১৮ থেকে ৩৫ এর মধ্যে৷ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী থেকে তারা আসেন৷ অনেকেই বাচ্চা নিয়ে আসেন৷ বাচ্চাদের বিভিন্ন কিন্ডারগার্টেনে ভর্তি করার দায়িত্ব থাকে আমাদের হাতে৷

যেসব মহিলা এসব নরী ভবনেআশ্রয় নেন নতুন একটি ঠিকানা না হওয়া পর্যন্ত তারা সেখানে থাকেন৷ নতুন বাড়ি পওয়া গেলে তারা সেখানে চলে যান তবে কোন অবস্থাতেই স্বামী বা বন্ধুকে ঠিকানা দেয়া হয় না৷ পুলিশকে জানানো হয় যেন তারা নতুন ঠিকানায় হাজির হয়ে স্ত্রী বা সন্তানদের ওপর চড়াও হতে না পারে৷ এসব ঠিকানায় নিয়মিতভাবে পুলিশ আসা-যাওয়া করে, তারা খোঁজ খবর রাখে৷

প্রশ্ন উঠতে পারে কেন নির্যাতন ? এর মূল কারণ কী ? উত্তরে বলা যেতে পারে - এর পেছনে রয়েছে বেশ কিছু কারণ৷ সে বিষয়ে ইসাবেলের মত হল: ‘‘প্রথম কারণ বেকারত্ব, মাদকাসক্তি আরেকটি কারণ৷ নিশ্চিতভাবে আর একটি কারণ উল্লেখ করা যায় তা হল এসব মহিলার অনেক অল্প বয়সে বিয়ে হয়৷ অনেকেই এমন পরিবার থেকে আসে যেখানে তারা নির্যাতনের সম্মুখীন হত প্রতিনিয়ত৷ বাড়িতে তারা এসব দেখতে দেখতে বড় হয়েছে৷ বেকারত্ব এবং বেকার ভাতা কে পাবে, সে টাকা কিভাবে খরচ হবে সে আরেকটি কারণ৷ জার্মানি সমাজ কল্যাণমুখী দেশ৷ এখানে সরকার থেকেই বেকার ভাতা দেয়া হয়৷ এই বেকার ভাতা পাওয়ার লোভেও অনেকে কাজ করতে চান না৷ বিশেষ করে স্বামীরা চান, কোন কিছু না করেই প্রতি মাসে এই টাকা হাতে পেতে৷''

জার্মানির পরিবার মন্ত্রণালয় একটি জরিপে জানিয়েছে, ১৬ থেকে ৮৫ বছরের মহিলাদের মধ্যে অন্তত ২৫ শতাংশ সারা জীবনে কয়েকবার শারীরিক এবং যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে৷ চড় থেকে শুরু করে কোন কোন সময় তা পিস্তল দিয়ে হুমকি পর্যন্ত গড়ায়৷ এসব পরিবারে ছোট বাচ্চাদের ওপর এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে সবচেয়ে বেশি৷ বাচ্চারা ধরেই নেয় এটাই স্বাভাবিক৷ একটু বড় হলে তারাও তা দেখাতে চায়৷ অনেক ছোটবেলা থেকেই তারা শেখে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ৷

প্রতিবেদক : মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদক : আবদুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়