1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

নির্বাচন সংবিধান মোতাবেকই হবে: হাসিনা

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আবারো মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে প্রধান দু’টি রাজনৈতিক দল৷ নির্বাচন কোন প্রক্রিয়ায় হবে তা নিয়েই এখন চলছে বাকযুদ্ধ৷ ফলে শেষ পরিণতি সংঘাতের আশঙ্কাই করছেন দেশের সাধারণ মানুষ৷

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রবিবার বিকেলে হঠাত্‍ করে এক সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে বলেন, ‘‘জনপ্রতিনিধিরা সংবিধান সংশোধন করেছেন৷ আমি সংবিধানে বিশ্বাস করি৷ আগামী নির্বাচন নিয়ে যা কিছু হওয়ার তা সংবিধান মোতাবেকই হবে৷ এর থেকে একচুলও নড়বো না৷''

জবাবে রবিবার মধ্যরাতে ১৮ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের এক বৈঠকে খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘‘জনগণের আন্দোলনের মুখে তিনি নড়তে বাধ্য হবেন৷ প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য জাতির সঙ্গে রসিকতা, আপত্তিকর ও উসকানিমূলক৷''

প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের শীর্ষ দুই নেতার এমন বক্তব্যে সামনের সময়ে রাজনৈতিক পরিবেশ যে সংঘাতময় হয়ে উঠছে তা এক প্রকার নিশ্চিত করেই বলা যায়৷ তাছাড়া ১৮ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে আন্দোলনের বিষয়েও আলোচনা হয়েছে৷ বৈঠকে অংশ নেতা ১৮ দলের একাধিক শীর্ষ নেতা জানিয়েছেন, অক্টোবরের থেকে বড় ধরনের আন্দোলন কর্মসূচি শুরু করবে বিরোধী দল৷ এর আগে চলতি মাসে গণসংযোগ, সভা-সমাবেশ, সেপ্টেম্বরে ৭টি বিভাগীয় শহরে ৭টি মহাসমাবেশ করা হবে৷ অক্টোবরে চট্টগ্রামে একটা সমাবেশ করা হবে৷ এরপর ঢাকায় সর্বশেষ মহাসমাবেশে খালেদা জিয়া নির্দলীয় সরকারের দাবি আদায়ে টানা আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করবেন৷ এর আগে চূড়ান্ত আন্দোলনের জন্য প্রস্তুতি হিসেবে এসব কর্মসূচি পালন করা হবে৷

সাংবাদিক সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী সংবিধান বহির্ভূত নির্বাচনকালীন সরকারের সম্ভাবনা সরাসরি নাকচ করে দিয়ে বলেন, জাতীয় নির্বাচনের সময় দেশে অসাংবিধানিক বা অগণতান্ত্রিক কোনো কিছু আসবে না৷ তিনি দেশবাসীকে আশ্বস্ত করে বলেন, ‘‘নির্দিষ্ট সময়ে সংবিধান অনুযায়ী আগামী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ইনশাল্লাহ৷ এই নির্বাচনে জনগণ নির্বিঘ্নে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন৷ নতুন সরকার প্রতিষ্ঠায় দেশবাসীর ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটবে৷'' তিনি আরো বলেন, ‘‘দেশের সকল রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরে আমরা বিশ্বাসী৷ আশা করি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলসমূহ অরাজকতা পরিহার করে নির্বাচনমুখী হবে৷'' দেশ ও নিজেদের ভাগ্য উন্নয়নের স্বার্থেই জনগণ আবারও আওয়ামী লীগকে নির্বাচিত করবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন৷

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের পর দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বিএনপির অবস্থান ব্যাখ্যা করে সাংবাদিকদের বলেন, বর্তমান সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হলে বিএনপি তাতে অংশ নেবে না৷ প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন নিয়ে যে বক্তব্য দিয়েছেন, তাতে সংকট আরও ঘনীভূত হবে বলে মনে করে বিএনপি৷ দলের পক্ষ থেকে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘‘দেশ অনিশ্চয়তার দিকে যাচ্ছে৷ সরকার নিজেই এর অপচেষ্টা চালাচ্ছে৷'' তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিয়ে আদালতের রায় বিএনপি মানে না, প্রধানমন্ত্রীর এমন অভিযোগের উত্তরে মির্জা ফখরুল বলেন, আদালতের দু'টি রায় ছিল৷ সরকার একটি মেনেছে৷ আরেকটি চেপে গেছে৷ সরকার দেশকে অন্ধকার সুড়ঙ্গে নিক্ষেপ করছে বলেও অভিযোগ করেন ফখরুল৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়