1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

নির্বাচনে মুক্ত গণতন্ত্রীদের ভরাডুবি

দলের ইতিহাসে এই প্রথম এফডিপি বুন্ডেসটাগ থেকে বহিষ্কৃত হল: পাঁচ শতাংশ ন্যূনতম ভোটের বেড়া পার হতে না পারায়, তারা নতুন সংসদে উপস্থিত থাকবে না৷ অর্থাৎ জার্মানির একমাত্র উদারপন্থি দলের আজ অস্তিত্বের সংকট৷

গত নির্বাচনের তুলনায় প্রায় দশ শতাংশ কম ভোট পেয়ে মুক্ত গণতন্ত্রীরা যে এভাবে বিদায় নেবে, তা আন্দাজ করা গেছিল এক সপ্তাহ আগে বাভারিয়ার নির্বাচনে তাদের অনুরূপ দশা হওয়ায়৷ আর এই নির্বাচনি রবিবারে হেসে রাজ্যেও তাদের দৃশ্যত একই ভাবে বিদায় নিতে হচ্ছে৷

রাইনার ব্রুডারলে-কে মুখ্য প্রার্থী করে এফডিপি যে নির্বাচনি প্রচারণা চালায়, তাতে তাদের বিজ্ঞপিত অবস্থানগুলির কোনো হেরফের ঘটেনি৷ মুক্ত গণতন্ত্রীরা পূর্বাপর কর বাড়ানোর বিরুদ্ধে, সরকারি ঋণ কমানোর সপক্ষে এবং মাঝারি শিল্পকে উৎসাহ প্রদান করতে আগ্রহী৷

তাহলে এফডিপি-র ভরাডুবি ঘটল কেন? ২০১০ সাল যাবতই বিভিন্ন জরিপে পরিলক্ষণ করা যাচ্ছিল যে, জনসাধারণের মধ্যে দলের সমর্থন অবক্ষয়ের মুখে৷ তার সঙ্গে যুক্ত হয় দু-দুটি নেতৃত্বের সংকট৷ প্রথমত গিডো ভেস্টারভেলে-কে দলীয় প্রধানের আসন ছেড়ে দিতে হয় ফিলিপ ব়্যোসলার-এর হাতে৷ দ্বিতীয় সংকটে ব়্যোসলার-কে তাঁর কর্তৃত্ব ভাগ করে নিতে হয় বয়োবৃদ্ধ রাইনার ব্রুডারলে-র সঙ্গে৷ কিন্তু এবারকার সংকটের তুলনায় সে সব সংকট কিছুই নয়৷

তাই নর্থরাইন ওয়েস্টফালিয়া রাজ্যের এফডিপি প্রধান ক্রিস্টিয়ান লিন্ডনার ইতিমধ্যেই মন্তব্য করেছেন: ‘‘এটা হল ১৯৪৯ সাল যাবৎ এফডিপি দলের সবচেয়ে হতাশাজনক মুহূর্ত৷ স্পষ্টতই আমাদের সরকারে থাকা থেকে আমাদের ভোটারদের যে প্রত্যাশা ছিল, তা আমরা পূরণ করতে পারিনি৷ কারণটা আরো গভীরে, বলে আমার বিশ্বাস৷ আমার দৃঢ় বিশ্বাস, জার্মানিতে বহু মানুষ আছেন, যারা এমন একটি দল চান, যে দল অর্থনৈতিক বাস্তববোধের সঙ্গে সামাজিক উদারপন্থি চেতনা যুক্ত করতে পারে – অর্থাৎ মুক্ত গণতন্ত্রীরা৷ কিন্তু এই সংসদীয় নির্বাচনে আমরা তাদের কাছে পৌঁছতে পারিনি, তারা আমাদের মধ্যে নিজেদের বাসা খুঁজে পাননি৷ কাল থেকে এফডিপি দলকে সম্পূর্ণ নতুন করে ভাবতে হবে৷''

এসি / এসবি (ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়