1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

আলাপ

নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে আওয়ামী লীগ, বিএনপি কী ভাবছে?

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্প্রতি দলীয় নেতা কর্মীদের নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলেছেন৷ নিজ নিজ এলাকায় গিয়ে নির্বাচনি গণসংযোগ শুরু করার পরামর্শও দিয়েছেন তিনি৷ বিষয়টিকে বিএনপি কীভাবে দেখছে?

প্রধানমন্ত্রী প্রকাশ্য কোনো জনসভায় নেতা-কর্মীদের নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলেননি৷ বলেছেন আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের বৈঠকে৷ বৈঠকটি ছিল রুদ্ধদ্বার৷ সেখান থেকে বের হয়ে নেতাদের কেউ কেউ প্রধানমন্ত্রীর ওই পরামর্শের কথা সংবাদমাধ্যমকে জনিয়েছেন৷

জানা গেছে, সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখন থেকেই আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নেয়ার জন্য এমপিদের নির্দেশ দিয়ে বলেছেন, ‘‘নির্বাচনের আর মাত্র দু’বছর তিন মাস বাকি আছে৷ তাই এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে হবে৷'' এ জন্য এলাকায় গিয়ে সরকারের উন্নয়ন তুলে ধরার পাশাপাশি জনগণের সঙ্গে সম্পৃক্ততা বাড়ানোরও নির্দেশ দেন তিনি৷

একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী সজাগ ও সতর্ক থেকে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ বিরোধী জনসচেতনতা সৃষ্টির আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘‘দেশের সব অঞ্চলে শুধু জঙ্গিবাদবিরোধী কমিটি গঠন করলেই চলবে না, এ সব কমিটিকে কার্যকর করে নিজ নিজ এলাকায় জঙ্গি-সন্ত্রাসী ও তাদের মদদদাতাদের খুঁজে বের করতে হবে৷ সর্বত্র এই অপশক্তির বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে৷''

প্রধানমন্ত্রীর এই কথায় এটা স্পষ্ট যে মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে মধ্যবর্তী নির্বাচনের কোনো ইঙ্গিত তিনি দেননি৷ তিনি পাঁচ বছরের মেয়াদ শেষের নির্বাচনের কথাই বলেছেন৷ তবে আওয়ামী লীগসংশ্লিষ্টদের ভাষ্য অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন নির্বাচন হবে পাঁচ বছরের মেয়াদের শেষ তিনমাসের মধ্যে৷

বাংলাদেশের প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি সর্বশেষ জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিয়েছে ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর ৷ তখন নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হয়৷ ওই নির্বাচনে ৩০০ আসনের মধ্যে তারা ৩০টি আসন পেয়ে ক্ষমতা হারায়৷ আর ২৩০টি আসন পেয়ে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে৷

এরপর তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল হলে দলীয় সরকারের অধীনে ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেয়নি৷ ওই নির্বাচনে ২৩৪ আসন পেয়ে আওয়ামী লীগ দ্বিতীয় দফা সরকার গঠন করে৷ আর জাতীয় পার্টি ৩৪টি আসন পেয়ে বিরোধী দলে পরিণত হয়৷ বিএনপি নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন জোরদার করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়৷ নির্বাচন বর্জন করায় সংসদের বিরোধী দলের অবস্থানও হারায় তারা৷

তবে তারপর বিএনপি স্থানীয় সরকারের সব নির্বাচনে অংশ নিয়েছে৷ সেসব নির্বাচনেও তারা প্রাধান্য অর্জন করতে পারেনি৷ আওয়ামী লীগই প্রাধান্য বজায় রেখেছে৷

২০১৪ সালের একতরফা নির্বাচনের পর সরকারের ওপর মধ্যতর্বী নির্বাচনের চাপ সৃষ্টির চেষ্টা করে বিএনপি৷ যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন সব দলের অংশগ্রহণে নতুন একটি নির্বাচনের কথা বলতে থাকে৷ কিন্তু এরইমধ্যে এই সরকারের প্রায় আড়াই বছর, অর্থাৎ অর্ধেক মেয়াদ পার হয়ে গেছে৷ মেয়াদ শেষে যদি নির্বাচন হয়, তা হবে ২০১৯ সালে৷

তবে বিএনপির নির্দলীয়, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন এখন তাদের দাবির মধ্যেই সীমাবদ্ধ আছে৷ তারা আন্দোলনে নেই৷ যুদ্ধাপরাধের বিচার এবং সর্বশেষ গুলশান হামলার পর বিএনপির রাজনীতিতে পরিবর্তনের আভাসও পাওয়া যাচ্ছে৷

বিএনপির একটি অংশ চাইছে জামায়াতকে জোটের বাইরে রেখে সুবিধা নিতে৷ আর দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়ার বড় ছেলে ও বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান দণ্ডিত হওয়ায় বেশ বেকায়দায় পড়েছে দলটি৷ তারেক রহমান দেশে ফিরে আপিল না করলে আগামী নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না৷ বিএনপির সর্বশেষ কার্যকরী পরিষদ গঠন করার পর তা নিয়ে দলে আছে নানা অসন্তোষ৷

বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আহমেদ আযম খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘৫ জানুয়ারির নির্বাচনের কয়েক মাসের মধ্যে আরেকটি নির্বাচন দেয়ার কথা বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী৷ কিন্তু আড়াই বছর হয়ে গেলেও সেই নির্বাচন হয়নি৷ আমরা মনে করি, দ্রুত নির্বাচন দেয়া উচিত, কারণ, ৫ জানুয়ারির নির্বাচন জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে৷ প্রধানমন্ত্রী তাঁর দলীয় নেতা-কর্মীদের নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলেছেন৷ কিন্তু সেটা মেয়াদ শেষের নির্বাচন৷ আমরা চাই এখনই নির্বাচন হোক এবং তার জন্য বিএনপি প্রস্তুত আছে৷''

অডিও শুনুন 02:39

‘দ্রুত নির্বাচন দেয়া উচিত’

তিনি আরো বলেন, ‘‘নির্বাচন যখনই হোক তা হতে হবে নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনে৷ কোনো দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন বিএনপির কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না৷''

অন্যদিকে আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা এখন ফুরফুরে মেজাজে রয়েছেন৷ তারা মনে করেন, জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদ ইস্যুতে ইতিমধ্যে সরকারের নেয়া পদক্ষেপগুলো জনগণের ভেতরে আস্থা-বিশ্বাস সৃষ্টি করেছে৷ জঙ্গিবাদ মোকাবেলায় ব্যাপক সমর্থন পেয়েছে আওয়ামী লীগ৷ এর ভেতর দিয়ে একটি ম্যাসেজ পেয়েছে আওয়ামী লীগ, তা হলো, সরকারের জনপ্রিয়তা বেড়েছে অনেকগুন৷ এই মুহূর্তে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে আওয়ামী লীগ ৬০-৭০ ভাগ আসনে জয়ী হবে বলে মনে করে ক্ষমতাসীনরা৷ তাই নির্বাচনের জন্যে জোরালো কোনো দাবি উত্থাপন করা হলে এই হিসাবে নির্বাচনের পথে পা বাড়াতেও পারে দলটি৷

আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা মনে করেন, জঙ্গি ইস্যু যেভাবে সরকার মোকাবেলা করেছে তাতে আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা এখন ঊর্ধমুখী৷ জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদ ইস্যুতে ভোটের রাজনীতিতে আওয়ামী লীগ এগিয়েছে৷ এই ধারাবহিকতা অব্যাহত থাকলে আগামী নির্বাচনের ফল আওয়ামী লীগের পক্ষে যাবে৷ আর এ কারণেই প্রধানমন্ত্রী সকল নেতা-কর্মীকে নিজ নিজ এলাকায় জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকতে বলেছেন৷

অডিও শুনুন 02:09

‘বিএনপি আশা করি এবার আর নির্বাচনি ট্রেন মিস করবে না’

গত ২৬ জুলাই আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের বৈঠকে নেতা-কর্মীদের নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিতে বলেছিলেন শেখা হাসিনা৷ সেই সভায় উপস্থিত জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রী মেয়াদ শেষের নির্বাচনের জন্য দলের নেতা-কর্মীদের প্রস্তুতি নিতে বলেছেন৷ আগাম বা মধ্যবর্তী কোনো নির্বাচনের কথা তিনি বলেননি৷ দেশে এমন কোনো সংকট হয়নি যে মধ্যবর্তী নির্বাচনের প্রয়োজন হবে৷ আর মেয়াদ শেষে সেই নির্বাচন হবে সংবিধান অনুযায়ী৷ সংবিধানের বাইরে কোনো ব্যবস্থার অধীনে নির্বাচন হবে না৷ আমরা চাই এবং আশা করি সব দল সেই নির্বাচনে অংশ নেবে৷''

আওয়ামী লীগের সিনিয়র এই নেতা আরো বলেন, ‘‘দলীয় সরকারের অধীনে নয়, নির্বাচন হবে রাজনৈতিক সরকারের অধীনে৷ আমরা আগে বলেছি, এখনো বলছি৷ বিএনপি আগের নির্বাচনি ট্রেন মিস করেছে৷ এবার আশা করি মিস করবে না৷ আমরা চাইলে সবাই মিলে নির্বাচন কমিশনকে আরো শক্তিশালী করতে পারি৷ সবাই মিলে আরো স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে পারি৷ কিন্তু পুরনো চিন্তা থেকে বের হয়ে আসতে হবে৷''

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়