1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ফ্রান্স

নির্বাচনের ঠিক আগেই প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলা

ফ্রান্সে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রথম পর্বের ঠিক আগেই প্যারিসে আবার সন্ত্রাসী হামলা ঘটলো৷ তথাকথিত ইসলামিক স্টেট তার দায় স্বীকার করেছে৷ আততায়ী এর আগেও পুলিশের উপর হামলা চালিয়েছিল৷

শহরের কেন্দ্রস্থলে বিখ্যাত সড়ক শঁজেলিসে৷ বেশিরভাগ সময়েই সেখানে পর্যটকদের ভিড়৷ সেখানেই ‘আর্ক অফ ট্রায়াম্ফ' শৌধের কাছে বৃহস্পতিবার রাত ৯টা নাগাদ আততায়ী অটোম্যাটিক বন্দুক নিয়ে পুলিশের উদ্দেশ্যে গুলি চালাতে শুরু করে৷ এক পুলিশকর্মী নিহত ও ৩ জন আহত হয়েছে৷

এক বিদেশি পর্যটক সামান্য আহত হয়েছেন৷ তারপর আততায়ী পায়ে হেঁটেই পালানোর চেষ্টা করলে পুলিশের গুলিতে সে নিহত হয়৷ পুলিশ এলাকাটি ঘিরে ফেলে৷ পর্যটক, পথচারী ও দোকানের ক্রেতাদের নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়৷ কাছের মেট্রো স্টেশনগুলিও বন্ধ করে দেওয়া হয়৷

৩৯ বছর বয়সি এই হামলাকারী সন্ত্রাস দমন বাহিনীর কাছে পরিচিত ছিল৷ তবে কর্তৃপক্ষ তার নাম প্রকাশ করেনি৷ সংবাদ সংস্থা এপি'র সূত্র অনুযায়ী তার নাম করিম শ্যোরফি৷ হামলার পর প্যারিসের পূর্ব প্রান্তে শেল এলাকায় তার বাড়িতে তল্লাশি চালানো হয়৷

পুলিশ অফিসারদের হত্যাকাণ্ডের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকার অভিযোগে গত ফেব্রুয়ারি মাসে তাকে আটক করা হয়েছিল৷ তবে প্রমাণের অভাবে সে যাত্রা তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়৷ ২০০৫ সালে দুই পুলিশকর্মীসহ ৩ ব্যক্তিকে হত্যার প্রচেষ্টার অভিযোগে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল৷ ২০০১ সালে সে চুরি করা একটি গাড়ি নিয়ে অন্য একটি গাড়িতে ধাক্কা মারে৷ সে সময় তার কাছে অস্ত্রও পাওয়া যায়৷ পালানোর সময় সেই গাড়ির চালক ও যাত্রী তাকে থামানোর চেষ্টা করলে সে গুলি চালিয়ে তাদের আহত করে৷ দুই দিন পরে জেলের কামরা থেকে তাকে বের করার সময় সে পুলিশকর্মীর অস্ত্র ছিনিয়ে নিয়ে বেশ কয়েকবার গুলি চালায়৷

রবিবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রথম পর্বের উপর এই সন্ত্রাসী হামলা কোনো প্রভাব ফেলবে কিনা, তা স্পষ্ট নয়৷ ১১ জন প্রার্থীর শেষ টেলিভিশন বিতর্কের সময় হামলা ঘটায় অনুষ্ঠান থামিয়ে সেই খবর প্রচার করা হয়৷ হামলার পর প্রধান প্রার্থীরা নিরাপত্তার বিষয়টিকে বাড়তি গুরুত্ব দেবার অঙ্গীকার করেছেন৷ জনমত সমীক্ষা অনুযায়ী ভোটাররা আপাতত বেকারত্ব ও অর্থাভাব নিয়ে বেশি চিন্তিত৷ সন্ত্রাসবাদ ও নিরাপত্তার বিষয়টি এখনো অগ্রাধিকার পাচ্ছে না৷ পর্যবেক্ষকদের মতে, বৃহস্পতিবারের হামলা সেই মনোভাব কিছুটা হলেও বদলে দিতে পারে৷ বিশেষ করে যেসব ভোটার এখনো মনস্থির করে উঠতে পারেননি, তাঁরা নতুন করে ভাবনাচিন্তা করতে পারেন৷

জার্মান চ্যান্সেলরআঙ্গেলা ম্যার্কেল হামলার নিন্দা করে দুঃখ প্রকাশ করেছেন৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রাথমিক প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, আবার সন্ত্রাসী হামলা ঘটলো বলে মনে হচ্ছে৷ তাঁর মতে, এর যেন কোনো শেষ নেই৷

এসবি/এসিবি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়