1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

আলাপ

নির্বাচনের আগে দরকার আস্থার পরিবেশ

যদিও সরকারের মেয়াদ শেষ হতে প্রায় আড়াই বছর বাকি, তারপরও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আলোচনা চলছে৷ নির্দিষ্ট সময়ে, নাকি মধ্যবর্তী নির্বাচন – মূলত তা নিয়েই চলছে আলোচনা৷ তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, নির্বাচনের পরিবেশটা আগে দরকার৷

নির্বাচন নিয়ে দেশি-বিদেশি পর্যবেক্ষকদের আলোচনার মধ্যেই গত ২৬ জুলাই আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের এক সভায় নেতা-কর্মীদের আগামী সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়ার নির্দেশ দেন শেখ হাসিনা৷ প্রধানমন্ত্রী সেখানে বলেন, ‘‘বর্তমান সরকারের মেয়াদের আড়াই বছর ইতোমধ্যে চলে গেছে৷ দু’বছর তিন মাস পর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে৷ তাই এখন থেকেই আপনাদেরকে পরবর্তী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে৷''

প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশনার পর জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে নানা মহলে আলোচনা হচ্ছে৷ কেমন নির্বাচন হবে, কিভাবে হবে তা নিয়েই মূলত আলোচনা৷ পাশাপাশি নতুন নির্বাচন কমিশন কেমন হবে সে ব্যাপারেও আলোচনা আছে৷

বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি৷ ফলে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে নির্বাচন কমিশন নিয়েই মূলত আলোচনা শুরু করা দরকার, এমন কথা বলছেন বিশ্লেষকরা৷ তাঁদের মতে, নির্বাচন কমিশনকে সব বড় রাজনৈতিক দল আস্থায় নিতে না পারলে সুষ্ঠু নির্বাচন বা সব দলের অংশগ্রহনে কোনো নির্বাচন করা সম্ভব হবে না৷

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, নির্বাচনের আগে সব রাজনৈতিক দলের কাছেই আস্থার পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে৷ বিশেষ করে নির্বাচন কমিশনকে নিরপেক্ষ হতে হবে৷ তা না হলে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতোই আরেকটা নির্বাচন হবে, যা জাতির জন্য কোনো ভালো ফল বয়ে আনবে না৷

গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের এক বছর পর ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশ ঘুরে গিয়ে ডয়চে ভেলেকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)-এর সাংসদ ইওসেফ ভাইডেনহলৎসার বলেছিলেন, ‘‘নতুন একটি নির্বাচন বাংলাদেশে পরিবর্তন আনতে পারে৷'' ওই বছরের ১৬ থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি ঢাকা সফর করে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের মানবাধিকার বিষয়ক সাবকমিটি৷ ওই কমিটি শুধু সরকার নয়, বিরোধী দলের সঙ্গেও আলোচনা করেছে৷ বাংলাদেশ সফরের সময় ওই সাবকমিটিতে ছিলেন অস্ট্রিয়ার এমপি ইওসেফ ভাইডেনহলৎসার৷ তিনি জানান, বাংলাদেশের প্রধান দুই রাজনৈতিক দল নিজেদের মধ্যে সমঝোতা থেকে বহু দূরে রয়েছে৷ তবে সঠিক পথে যাওয়ার মতো অবস্থায় এখনো রয়েছে দেশটি৷ তিনি বলেন, সাধারণ মানুষের মৃত্যুও টলাতে পারছে না প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আর বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার অবস্থানকে৷ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘দেশটির প্রগতির জন্য আসলে একটি ‘কমপ্রিহেনসিভ কনসেপ্ট' বা ‘সমন্বিত পরিকল্পনা' প্রয়োজন৷ এ জন্য একটি সমন্বিত, অংশগ্রহণমূলক এবং গণতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গি প্রয়োজন, যা জনগণকে নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ করে দেবে৷ আর একমাত্র সেটা করা হলেই বাংলাদেশ খুব তাড়াতাড়ি এই চলমান সংকট কাটিয়ে উঠতে পারবে বলে আমার বিশ্বাস৷''

বাংলাদেশের পর্যবেক্ষকদের বিশ্লেষণও একই রকম৷ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. শাহাদুজ্জামানও ডয়চে ভেলের সঙ্গে আলাপকালে একই বিষয়ে দৃষ্টিপাত করেছেন৷ তাঁর মতে, ‘‘সবাইকে আস্থায় নিয়ে একটা নির্বাচনের দিকে এগোতে হবে৷ তার জন্য সবার সঙ্গে আলোচনা করে একটা নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হবে, যাদের প্রতি সবার আস্থা থাকবে৷ তা না হলে ২০১৪ সালের মতোই আরেকটি নির্বাচন হবে, যা দেশের জন্য ভালো হবে না৷ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো ভালো একটি নির্বাচন কমিশন গঠন করা৷ আর এই কমিশন গঠনের জন্য আমাদের হাতে কিন্তু বেশি সময় নেই৷ মাত্র পাঁচমাসের মধ্যেই এটা করতে হবে৷''

দেশে যখন আগামী জাতীয় সংসদ নিয়ে আলোচনা হচ্ছে, তখন প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের আস্থায় আসতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন জাতীয় পার্টির নেতারা৷ বর্তমানে এই দলটি বিরোধী দলের ভুমিকায় আছে৷ তবে তারা সরকারেও আছে৷ সর্বশেষ পহেলা আগস্ট জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর নেতৃত্বে সাতজন সংসদ সদস্যের নেতৃত্বে একটি দল ভারত সফর করে৷ এর আগে ১৮ জুন ভারতে যান দলটির প্রধান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ৷ তারা সবাই ভারতের রাষ্ট্রপতি, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, বিজেপি সাধারণ সম্পাদক, কংগ্রেস সহ-সভাপতিসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সঙ্গে বৈঠক করেন৷ দেশে আলোচনা হচ্ছে, জাতীয় পার্টির পক্ষে ভারতের ‘সায়' আনার চেষ্টা করছেন নেতারা৷

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি জাতীয় নির্বাচনের ১০ মাস পর নভেম্বরেই ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) রাষ্ট্রদূত হিসেবে বাংলাদেশে যোগ দেন পিয়ের মায়াউদঁ৷ এর এক মাস পর বাংলাদেশ সফর করেন ইইউ-র দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান জিন ল্যামবার্ট৷ ১০ ডিসেম্বর গুলশানে ইউরোপীয় ইউনিয়ন প্রতিনিধি কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ল্যামবার্ট বলেন, বাংলাদেশে এখন নতুন কোনো নির্বাচন নয়, আমরা বেশিরভাগ রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে পরবর্তী নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়ে সমঝোতা চাই৷ তিনি বলেন, ‘‘নির্বাচন যখনই হোক না কেন, সেটা যাতে প্রধান প্রধান রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে হয় এবং সাধারণ মানুষ যাতে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেন – সে বিষয়গুলো নিশ্চিত করতে হবে৷'' রাজনৈতিক দলগুলোকেই এ বিষয়ে ঐকমত্যে আসতে হবে৷ সর্বশেষ নির্বাচনে অধিকাংশ রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ না করায় পর্যবেক্ষক পাঠায়নি ইইউ, বলেন তিনি৷ ওই সাংবাদিক সম্মেলনে পিয়ের মায়াউদঁ-ও উপস্থিত ছিলেন৷

জিম ল্যামবার্টের ওই সাংবাদিক সম্মেলনের পর পৌনে দুই বছর পার হয়েছে৷ কিন্তু পরিস্থিতি একটুও বদালায়নি৷ এমনকি ইইউ'র সাংসদ ইওসেফ ভাইডেনহলৎসার দেড় বছর আগে ডয়চে ভেলেকে যে কথা বলেছিলেন বর্তমান পরিস্থিতি তার সঙ্গেও মিলে যায়৷ দুই প্রধান রাজনৈতিক দলের মধ্যে দুরত্ব আরো বরং বেড়েছে৷ ফলে এই পরিস্থিতিতে কিভাবে সবার অংশগ্রহনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব সেটাই এখন বাংলাদেশের মানুষের কাছে সবচেয়ে বড় প্রশ্ন৷

এ বিষয়ে আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়