1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

নির্বাচনী ঈদে নেতারা উদারহস্ত, ব্যস্ত মন জয়ে

এ রকম ঈদ পাঁচ বছরে একবারই আসে৷ নির্বাচনের আগের ঈদ৷ তাই এই ঈদকে উপলক্ষ্য করে জনপ্রিয়তায় শান দিতে বিশেষ কারণ ছাড়া প্রায় সব এমপি-মন্ত্রী যাঁর যাঁর এলাকায়৷ আর যাঁরা সামনের নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী, তাঁরাও পিছিয়ে নেই৷

ঢাকার আওয়ামী লীগ দলীয় একজন এমপি পুরো রমজান জুড়েই ইফতার পার্টি, গণসংযোগে ব্যস্ত ছিলেন৷ ঈদের ১০ দিন আগেই তাঁর এলাকায় ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতা কর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করেন দফায় দফায়৷ তালিকা তৈরি করেন৷ এরপর সবার হাতে তুলে দেন চাহিদামত নগদ টাকা, শাড়ি-লুঙ্গি বিতরণের জন্য৷ আকর্ণ হেসে একজন কর্মী ওমর ফারুক ডয়চে ভেলেকে জানালেন, নেতার ডাক পেয়ে গিয়েছেন৷ সবাইকে বিলি-বণ্টন করার পরও তাঁর ১০ হাজার টাকা থেকেছে৷ বললেন, এই ঈদের মধ্য দিয়েই নির্বাচনী কাজ শুরু হয়ে গেল৷ ঈদের ভোজও তাই সবার জন্য উন্মুক্ত৷

ফজলে হুদা বাবুল৷ ঢাকার তরুণ ব্যবসায়ী৷ এবার তিনি নওগাঁ-৩ আসন থেকে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী৷ আগেও এলাকায় কাজ করেছেন৷ কিন্তু এবার ঈদকে বেছে নিয়েছেন তাঁর জনপ্রিয়তা অর্জনের মোক্ষম সময় হিসেবে৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে জানান, ঈদের আগেই এলাকায় গিয়েছেন৷ তাঁর কর্মী-সমর্থকদের মাধ্যমে সাধ্যমত গরিব মানুষকে সহায়তা করছেন৷ তিনি ঈদে সবার আনন্দ দেখতে চান৷ এলাকার তরুণ সমাজ , দলের কর্মী, ক্লাব এবং ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের দিকে নজর দিচ্ছেন তিনি৷ তিনি বলেন, ঈদে তাঁর বাজেট ১৫ লাখ টাকা৷ ২০ হাজার ঈদকার্ড বিতরণ করেছেন, ব্যানার, পোস্টার লাগিয়েছেন ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে৷ শাড়ি, লুঙ্গি এবং নগদ সহায়তা তো আছেই৷ তাঁর এসব কাজ তিনি ফেসবুকেও আপলোড করছেন৷

কুড়িগ্রামে নির্বাচনী আসন চারটি৷ এর দুটি আওয়ামী লীগের এবং দুটি জাতীয় পার্টির৷ কিন্তু এবার বিএনপি এই এলাকায় ভাগ বসাতে চায়৷ কুড়িগামের সাংবাদিক আতাউর রহমান বিপ্লব ডয়চে ভেলেকে জানান, তাই এবার ঈদে বিএনপি সাংগঠনিকভাবেই তত্‍পর৷ ওয়ার্ড, ইউনিয়ন ও থানা পর্যায়ের সব নেতাদের নিয়ে ঈদের আগেই জেলার নেতারা কয়েক দফা বৈঠক করেছেন৷ তাঁরা কোনোভাবেই ঈদের এই সুযোগ হারাতে চান না৷ তাই তাঁরা ঈদে জনসংযোগের পাশাপাশি নেতা-কর্মীদের সংগঠিত করে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন৷ তাঁদের নানা ভাবে সহায়তা করেছেন৷ যারা প্রার্থী হতে চান, তাঁদের বাজেট আলাদা৷ পাশাপাশি আওয়ামী লীগ এবং জাতীয় পার্টির এমপিরাও তত্‍পর আছেন৷ তাঁরা ঈদের আগেই এলাকায় গেছেন৷ সবাইকে নিয়ে ঈদ করছেন৷

এই চিত্র এখন দেশের ৩০০টি নির্বাচনী এলাকার৷ আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাসান মাহমুদ জানান, ঈদের এই রেশ ধরেই নির্বাচন এসে যাবে৷ ঈদের পর তারা প্রচার প্রচারণায় রীতিমতো ঝাঁপিয়ে পড়বেন৷

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মাহবুব উদ্দিন খোকন এমপি ডয়চে ভেলেকে জানান, তাঁদের নেতা-কর্মী এবং এমপিরা যাঁর যাঁর এলাকায় সাধারণ মানুষকে নিয়ে ঈদ করছেন৷ তাঁরা আন্দোলনের বার্তা যেমন পৌঁছে দিচ্ছেন৷ নির্বাচনের প্রস্তুতিও নিচ্ছেন৷ তিনি নিজেও তাঁর নির্বাচনী এলাকা নোয়াখালীতে অবস্থান করছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়