1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

নির্বাচনকালীন সরকারের ক্ষমতা কম: চিফ হুইপ

জাতীয় সংসদে সরকারি দলের চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ সম্প্রতি বার্লিন সফর করেন৷ সেখানে তিনি তিনদিনের এক সম্মেলনে বাংলাদেশ সম্পর্কে সারা বিশ্বের রাজনীতিবিদদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন৷

জার্মানির সাবেক সাংসদ সাবেক সাংসদ রুডল্ফ ডেকার-এর উদ্যোগে ৬-৮ জুন ‘ইন্টারন্যাশনাল বার্লিন গ্যাদারিং' নামের এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়৷ বার্ষিক এই সম্মেলনের এবার ছিল ১৮তম আয়োজন৷ বিভিন্ন দেশের বর্তমান ও সাবেক সাংসদ, রাজনীতিবিদ, স্পিকার এতে অংশ নেন৷

এবারের সম্মেলনে বাংলাদেশ ও ইরানের ওপর বিশেষ নজর দেয়া হয়৷ অংশগ্রহণকারীরা এ দুটি দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি, অর্থনীতি সহ নানা বিষয়ে জানতে চান৷ বাংলাদেশের পক্ষে চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ অংশগ্রহণকারীদের প্রশ্নের উত্তর দেন৷

Bangladesch Abdus Shahid

বার্লিনে চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ (ডানে)

ডয়চে ভেলেকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে চিফ হুইপ বলেন, ‘‘বাংলাদেশ সম্পর্কে তাঁদের বেশ আগ্রহ৷ আমি সাধ্যমতো চেষ্টা করেছি তাদের সবকিছু জানাতে৷''

বার্লিন সম্মেলন ছাড়াও বাংলাদেশের আসন্ন নির্বাচন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রসঙ্গ ও সংসদে বিরোধী দলের অনুপস্থিত থাকার সংস্কৃতি সম্পর্কে খোলামেলা কথা বলেন উপাধ্যাক্ষ আব্দুস শহীদ৷ 

তিনি বলেন, নির্বাচনকালীন সময়ে নির্বাচন কমিশনের যে এখতিয়ার তাতে হস্তক্ষেপ করার অধিকার কারও নেই৷ ‘‘সংবিধানে বলা আছে, নির্বাচনকালীন সময়ে নির্বাচন কমিশন সরকারের কাছে যে ধরণের সহায়তা চাইবে, সরকার তা দিতে বাধ্য থাকবে বা করবে৷''

বিরোধী দলগুলোর সংসদে অনুপস্থিত থাকার সংস্কৃতি সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে চিফ হুইপ বলেন, গত সরকারের আমলে আওয়ামী লীগ যখন বিরোধী দলে ছিল তখন সংসদে না যাওয়ার শক্ত কারণ ছিল, যেটা এখনকার বিরোধী দলের নেই৷ তিনি বলেন, ২১ শে আগস্টের গ্রেনেড হামলা, সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া ও সাবেক সাংসদ আহসানউল্লাহ মাষ্টার হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে সংসদে কথা বলতে না দেয়ার প্রতিবাদে আওয়ামী লীগ সংসদে যায়নি৷

অডিও শুনুন 13:48

সাক্ষাৎকারটি শুনতে ক্লিক করুন এখানে

চিফ হুইপ আব্দুস শহীদের মতে, সংসদে বিরোধী দলের সদস্যরা না থাকলে সংসদ হয়তো প্রাণবন্ত নাও হতে পারে, কিন্তু তাই বলে সংসদ কখনো অকার্যকর হয় না৷ গত সাড়ে চার বছরে ৩৭০ দিনের বেশি সংসদ অধিবেশন বসেছে৷ বিল পাস হয়েছে ২২৫টির বেশি৷ সুতরাং সংসদ অকার্যকর ছিল না৷

তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সরকার এ বিষয়ে উচ্চ আদালতের রায় বাস্তবায়ন করেছে৷ তার আগে সংবিধান সংশোধনে সংসদীয় কমিটি গঠন করা হয়েছিল৷ ঐ কমিটিতে কাজ করতে বিএনপিকে তাদের দল থেকে কয়েকজন সাংসদের নাম প্রস্তাব করার অনুরোধ করা হয়েছিল, কিন্তু তারা সেটা দেয়নি৷ এছাড়া ঐ কমিটি সমাজের সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গেও বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছে৷ এভাবে প্রায় ১৩ মাস পর সংবিধান সংশোধন করে তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা বাতিল করে সরকার, বলেন আব্দুস শহীদ৷

তিনি বলেন, ‘‘বারাক ওবামা প্রেসিডেন্ট থাকা অবস্থায় যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হতে পারলে, মনমোহন সিং প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় ভারতে নির্বাচন হতে পারলে আমরা বাঙালিরা কেন বিশ্বে একটি দুর্বল জাতি হিসেবে মাথা নত করবো?''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও