1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

রোহিঙ্গা সংকট

নিরাপদ ক্যাম্পে অপুষ্টিতে ভোগা রোহিঙ্গা শিশু

বাংলাদেশের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে আশ্রয়প্রার্থীদের মধ্যে শিশুরা রয়েছে সবচেয়ে নাজুক অবস্থায়৷ ক্যাম্প তাদের মাথার উপর ছাদ দিলেও, এখানকার অনেক শিশু ভুগছে মারাত্মক পু্ষ্টিহীনতায়৷

এ বছরের আগস্টে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নৃশংসতা থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আসতে থাকে লাখ লাখ রোহিঙ্গা, যা আজও পুরোপুরি থামেনি৷ প্রাণ নিয়ে পালিয়ে আসতে থাকা রোহিঙ্গাদের অনেকেই দিনের পর দিন না খেয়ে কাটাতে বাধ্য হন৷ যার মারাত্নক প্রভাব পড়ে গর্ভবতী নারী ও শিশুদের মধ্যে৷ হাসনা বেগম তাদেরই একজন৷ মিয়ানমারে স্বামী নিহত হবার পর দুই ছেলেকে নিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসেন তিনি৷ যাত্রা পথে প্রায় সাতদিন তারা কিছুই খাননি৷ অস্থিচর্মসার দেড় বছরের শিশু সোহেলকে দেখিয়ে তিনি বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, গরম, ঠান্ডা আর বৃষ্টির মধ্যে ছেলেদের জ্বর আর ডায়রিয়া হয়ে গেছে৷

বালুখালি ক্যাম্পের শিশু বিশেষজ্ঞ সুমি আখতার বলেন, ‘‘এ সব শিশুদের বেশিরভাগের অবস্থা খুব মারাত্নক৷ এমনকি তাদের বাবা-মায়েরাও সমস্যাটার গুরুত্ব বুঝতে পারছে না৷’’ যদিও রোহিঙ্গা শিশুদের মধ্যে ‘বিশেষ পুষ্টিযুক্ত শিশুখাদ্য’ খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে, তবুও পরিস্থিতির ব্যাপকতায় তা খুব সামান্যই ভূমিকা রাখতে পারছে৷ 

ইউনিসেফ-এর তথ্য মতে, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বসবাসরত অন্তত ২৫ হাজার শিশু মারাত্মক অপুষ্টিতে ভুগছে, যা এ সমস্ত শিশুদের জন্য প্রাণঘাতী হতে পারে৷ ইউনিসেফ-এর কান্ট্রি হেড এডওয়ার্ড বাইগবেডার বলেন, ‘‘পুরোপুরি প্রতিরোধ ও চিকিৎসাযোগ্য রোগেও অপুষ্টির শিকার এ সব শিশু মারা যেতে পারে৷ তাই এদের এখনই সাহায্যের প্রয়োজন৷’’

ক্যাম্পগুলোতে রোহিঙ্গারা বেঁচে আছে ত্রাণ সহায়তার উপর নির্ভর করে, ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে সংগ্রহ করতে হয় খাবার৷ এমনিতেই এ সব ত্রাণ পর্যাপ্ত নয়, তার ওপর পরিস্থিতি আরো খারাপ হয় যখন এই ত্রাণ তারা স্থানীয়দের কাছে বিক্রি করে দেয়৷ উখিয়ার কাছে এক দোকানি এএফপিকে জানায়, ‘‘আমরা প্রতিদিনই উদ্বাস্তুদের কাছ থেকে জিনিসপত্র কিনি৷ চাল, ডাল, চিনি, লবন, তেল, গুড়া দুধ, শিশুখাদ্য – এ সমস্ত দিয়ে তারা আমাদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে যায়৷’’

রোহিঙ্গারাও এ কথা স্বীকার করেন৷ ক্যাম্পের বাসিন্দা করিম মাঝি বলেন, ‘‘খাবার বিক্রি করে দেয়া ছাড়া আমাদের কিছু করার নেই৷’’ বাংলাদেশে তাদের কাজের অনুমতি না থাকায় প্রয়োজনীয় সামগ্রী কিনতে অনেক রোহিঙ্গায় বিক্রি করে দেয় খাদ্য সহায়তা৷

এদিকে, ম্যানিলায় আসিয়ান ও ভিয়েতনামে অ্যাপেক সম্মেলনের প্রাক্কালে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ-এর পক্ষ থেকে রোহিঙ্গাদের ঘিরে তৈরি হওয়া মানবিক সংকট নিয়ে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোকে আলোচনার তাগিদ দেয়া হয়৷ প্রতিষ্ঠানটির এশিয়া অঞ্চলের প্রধান ব্র্যাড অ্যাডামস বলেন, ‘‘রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন বন্ধ করতে বিশ্বনেতাদের মিয়ানমারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়ে একমত হওয়া এবং স্বাধীন পর্যবেক্ষক ও ত্রাণ সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠানগুলি যাতে দেশটিতে প্রবেশ করতে পারে, তা নিশ্চিত করা প্রয়োজন৷ একমাত্র তবেই তাঁদের এ ধরনের সম্মেলন থেকে নিজ দেশে ফেরা উচিত, তার আগে নয়৷’’

এ প্রস্তাবে আসিয়ান ও অ্যাপেক-এর সদস্য দেশগুলো, বিশেষ করে মিয়ানমার নাখোশ হতে পারে৷ তবে পশ্চিমা নেতারা চাইলে সম্মেলনের বাইরেও এ বিষয় নিয়ে অনানুষ্ঠানিক আলোচনা চালাতে পারেন, বলেন ব্র্যাড অ্যাডামস৷

আরএন/ডিজি (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়