1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

নিজের ঘরে মেয়েদের সম্মান আর নিরাপত্তা দিন

কেউ যদি নিজের ঘরের মানুষের কাছেই নিরাপদ না থাকে, ঘরের বাইরে নিজেকে নিরাপদ ভাববেন কী করে? এই কথাটাই অনেকে ভুলে যান৷ দেখুন নারীদের নিরাপত্তা নিয়ে এ বিষয়ে সবার চোখ খুলে দেয়ার মতো একটি ভিডিও৷

বাড়িতে অতিথি এসেছে৷ ড্রয়িং রুমে বসে গৃহকর্ত্রীর দেখা পাওয়ার অপেক্ষায় তাঁরা৷ কর্তা শোবার ঘরে দিয়ে স্ত্রী-কে জিজ্ঞেস করলেন, ‘কী হলো তোমার? ওরা যে বসে আছে! আর কত দেরি?'' স্ত্রী তখন রূপচর্চায় ব্যস্ত৷ শুধু রূপচর্চা নয়, আসলে গালে আঘাতের চিহ্ন মেকআপে আড়াল করার চেষ্টায় ব্যস্ত৷ দাগ লুকাতে লুকাতেই হেসে বললেন, ‘‘এই তো এক্ষুণি আসছি৷''

একটু পরে সত্যিই তিনি ড্রয়িংরুমে হাজির৷ শুরু হলো আড্ডা৷ সবাই তখন খুব হাসিখুশি, প্রাণ খোলা৷ হঠাৎ দুই শিশুর কাণ্ডে দুঃখ আর লজ্জায় ছেয়ে যায় মুখগুলো৷

দুই পরিবারের দুই শিশু তখন নিজেদের মধ্যে মজার এক খেলা শুরু করেছে৷ সেই খেলায় ছেলেটি হয়েছে স্বামী আর মেয়েটি স্ত্রী৷ বাবা-মা আনন্দ নিয়েই দেখছিলেন মিছেমিছি বৌ-জামাই সাজার খেলা৷ শিশুদের প্রশ্ন করে মজার মজার উত্তর শুনে হেসে প্রায় গড়িয়ে পড়ছিলেন৷ এক পর্যায়ে ছেলেটি বলতে লাগল,‘‘আমি চাকরি করে অনেক টাকা রোজগার করব৷ অফিসে অনেক কাগজ-পত্র নিয়ে কাজ করবো৷ সন্ধ্যায় বাসায় ফিরে বৌ-কে বাবার মতো পেটাবো৷ তারপর দড়াম করে দরজা বন্ধ করে শুয়ে পড়বো৷''

ছোট্ট মেয়েটি সঙ্গে সঙ্গে প্রতিবাদ করে ওঠে, ‘‘না না, তুমি শুয়ে পড়ার আগে আমি ভাত দেবো৷ কিন্তু তুমি ভাত না খেয়ে প্লেট ছুড়ে মারবে৷''

শিশুদের মুখে এমন কথা শুনে ফিটফাট, হাসিখুশি বাবা-মায়েদের মুখগুলো দুঃখে, লজ্জায় নুয়ে গেল৷ নিজের স্ত্রী-কে নিরাপত্তা আর সম্মান না দিয়ে সন্তানকেও যে তাঁরা আগামীর অত্যাচারী স্বামী অথবা অত্যাচারিত ঘরনী হিসেবে গড়ে তুলছেন তা তাঁরা বুঝলেন৷

হিন্দিতে তৈরি এই ভিডিও চিত্রটির নাম দেয়া হয়েছে ‘উইমেনস সেফটি বিগিনস অ্যাট হোম৷' সত্যিই তাই, নারী যদি নিজের ঘরেই সম্মান আর নিরাপত্তা না পান, তাহলে ঘরের বাইরে পৃথিবীটাকে তিনি সুন্দর, নিরাপদ ভাববেন কী করে?

এসিবি/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়