1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

নিজেদের নিয়ে আত্মবিশ্বাসী স্পেন

এবারের বিশ্বকাপে স্পেনের সম্ভাবনা কেমন ? জবাবে বেশিরভাগ লোকই স্পেনের পক্ষে বাজি ধরবেন৷ কিন্তু প্রতিবার ফেভারিট হলেও ভাগ্যের কাছেই যেন হেরে যায় স্প্যানিশরা৷

default

স্প্যানিশ ফ্যান

তবে দুই বছর আগে ইউরো কাপ জেতার পর তাদের সেই দুর্ভাগ্যের দিন বোধহয় শেষ হতে চলেছে৷ প্রতিবারের মত এবারও একঝাক তারকা নিয়ে বেশ শক্তিশালী দল নিয়ে বিশ্বকাপ মিশনে নামছে ডেল বস্কের দল৷ নিজেদের তাই ফেভারিটদের মধ্যেই রাখতে চান স্পেনের কোচ৷ তাঁর কথায়, ‘‘আমরা ফেভারিটদের মধ্যে আছি বলেই আমার ধারণা, কারণ গত বেশ কিছুদিন ধরে আমরা অনেক ম্যাচ জিতেছি যার মধ্যে ইউরো কাপও রয়েছে৷ তবে আমরা ছাড়াও আরও অনেক শক্তিশালী দল রয়েছে৷''

স্পেনের জাতীয় দলে এবার মূল তারকা তাদের গোলরক্ষক ইকার ক্যাসিয়াস৷

Fußball Euro 2008 Finale Deutschland Spanien Pokal

দলের মূল তারকা গোলরক্ষক ইকার ক্যাসিয়াস

আরও রয়েছেন মিডফিল্ডার জাভি এবং জাবি৷ রয়েছেন ইউরো কাপের সর্বোচ্চ স্কোরার ডেভিড ভিলা৷

এদিকে, বিশ্বকাপ ফুটবল যতই এগিয়ে আসছে ততই এর ফুটবল নিয়ে সমালোচনা বাড়ছে৷ বিশেষ করে গোলরক্ষকদের কাছে যেন চক্ষুশূল হয়ে উঠেছে যে দক্ষিণ আফ্রিকার জাবুলানি৷ মাত্র দুইদিন আগে ব্রাজিলের গোলরক্ষক হুলিও সিজার বিশ্বকাপের ফুটবল দেখে বলেছেন, এটি যে সুপার মার্কেটের কোন সস্তা ফুটবল৷

আর আজ স্পেনের গোলরক্ষক ইকার ক্যাসিয়াস বলেই বসলেন, এটা যতটা না ফুটবল, তার চেয়ে বেশি বিচবল৷ তার সঙ্গে সুর মিলিয়েছেন চিলির গোলরক্ষক ক্লদিও ব্র্যাভো৷ তিনিও বলেছেন, জাবুলানি ফুটবলটিকে দেখলে আসলে বিচ ভলিবলের কথাই মনে হয়৷ তিনি বলেছেন, এটা খুবই দ্রুত এবং ধরতে সমস্যা হয়৷ অন্যদিকে, ক্যাসিয়াসের মন্তব্য, বিশ্বকাপের মত এমনটি একটি আসরে এই ধরণের অতি খারাপ ফুটবল সত্যিই দুঃখজনক৷ তবে তার দলের খেলোয়াড় জাভি হার্নান্দেজ বলে দিয়েছেন কিছু করার নেই, এই বলেই অভ্যস্ত হতে হবে গোলরক্ষকদের৷ উল্লেখ্য, ম্যাচগুলোতে যাতে

Deutschland Fußball WM 2010 Joachim Löw und Andreas Köpke Pressekonferenz in in Eppan

বিশ্বকাপের বল নিয়ে দুশ্চিন্তা গোলরক্ষকদের

গোলের সংখ্যা বাড়ে সেজন্য ফুটবলে নানা ধরণের পরিবর্তন আনতে আগ্রহী ফিফা৷ আর প্রতি বিশ্বকাপের আগেই তাই দেখা যায় গোলরক্ষকদের অভিযোগের ফিরিস্তি৷

এদিকে, বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতিমূলক ম্যাচগুলোতে নতুন ফরম্যাটের পরীক্ষা নিরিক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে বড় দলগুলো৷ আর তাতে খুব একটা সুবিধা করে উঠতে পারছে না কেউ৷ যেমন ইংল্যান্ড, রোববার জাপানের বিরুদ্ধে নতুন ৪-২-৪ ফরম্যাটে ম্যাচটি প্রায় হারতেই বসেছিল তারা৷ কিন্তু জাপানের দুই দুইটি আত্মঘাতী গোলের কল্যানে ২-১ এ ম্যাচটি জিতে গেছে ফাবিও কাপেলো৷ প্রথমে তুলিও তানাকার গোলে এগিয়ে গিয়েছিল জাপান, কিন্তু পরে তিনি নিজে ও ইউজি নাকাজাওয়া আত্মঘাতী গোল করে বসেন৷ অন্যদিকে, নতুন ৪-৩-৩ ফরম্যাটে খেলতে নেমে তিউনিসিয়ার মত দলের বিরুদ্ধে ১-১ গোলে ড্র করেছে ফ্রান্স৷ খেলা শুরু হওয়ার ৫ মিনিটের মাথায় তিউনিসিয়ার ইসাম জেমা গোল করে বসেন৷ তবে ৬৩ মিনিটে উইলিয়াস গালাসের গোলে পরাজয় এড়াতে সক্ষম হয় ফ্রান্স৷

প্রতিবেদন: রিয়াজুল ইসলাম

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়