1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

নিখোঁজ বিমানকে ঘিরে রহস্য আরো ঘনীভূত

মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের এমএইচ৩৭০ উড়ালের বিমানটি রাডারের পর্দা থেকে হারিয়ে যাওয়ার পর অন্তত চার ঘণ্টা ধরে আকাশে ছিল, বলে মার্কিন তদন্তকারীদের বিশ্বাস৷ অপর একটি ধাঁধা: চীনা স্যাটেলাইটের ছবিতে সাগরে ভাসমান ধ্বংসাবশেষ৷

ইতিমধ্যেই বিমানযাত্রার ইতিহাসে জটিলতম রহস্যগুলির মধ্যে গণ্য হচ্ছে মালয়েশীয় বিমানটির অন্তর্ধান৷ শনিবার যাবৎ খোঁজ চলেছে – আপাতত ১২টি দেশের ৪২টি জাহাজ ও ৩৯টি বিমান সেই খোঁজ চালাচ্ছে হাঙ্গেরির আয়তনের একটি এলাকা জুড়ে৷ চীনের মতো দেশ যে তার স্যাটেলাইট থেকে তোলা ছবির অন্তত অস্পষ্ট সংস্করণটি প্রকাশ করেছে, সেটাই মার্কিন বিশেষজ্ঞদের কাছে পরমাশ্চর্য৷ তবে নিখোঁজ বিমানটির যাত্রীদের অধিকাংশই চীনা নাগরিক; সেটা একটা কারণ হতে পারে৷

এমএইচ৩৭০ নাকি মোট পাঁচ ঘণ্টা ধরে ওড়ে, এমন প্রমাণ আছে৷ বোয়িং ৭৭৭-টির ইঞ্জিন একটি স্ট্যান্ডার্ড মনিটরিং প্রোগ্রামের অঙ্গ হিসেবে স্বয়ংক্রিয়ভাবে যে ডাটা ডাউনলোড করে ভূপৃষ্ঠে পাঠায়, তা থেকেই নাকি এটা জানা গেছে, বলে জানিয়েছেন মার্কিন তদন্তকারীরা৷

ঐ বাড়তি চার ঘণ্টায় বিমানটি আরো সাড়ে তিন হাজার কিলোমিটার উড়তে পারতো – অর্থাৎ পাকিস্তান কিংবা মঙ্গোলিয়া পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছতে পারতো! বোয়িং বিমানটির রোল্স রয়েস ট্রেন্ট ইঞ্জিনগুলি নাকি উধাও হবার সময় থেকেই মনিটরিং সিগনাল পাঠানো বন্ধ করে, ইতিপূর্বে বলেছে মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্স৷ রোল্স রয়েস-এর তরফ থেকে এ নিয়ে এ যাবৎ কোনো মন্তব্য করা হয়নি৷

ট্রান্সপন্ডার বনাম স্যাটেলাইট?

ওদিকে চীন সরকারের তরফ থেকে খবর দেওয়া হয়েছে যে, তাদের একটি স্যাটেলাইট রবিবার দক্ষিণ চীন সাগরে তিনটি ‘‘সন্দেহজনক ভাসমান বস্তুর'' ছবি তুলেছে৷ স্থানটি মালয়েশীয় বিমানটি যেখান থেকে উধাও হয়, তার কাছেই৷ কিন্তু ভিয়েতনামী ও মালয়েশীয় বিমান অঞ্চলটি বারংবার ঘুরে দেখেও নিখোঁজ বিমানের কোনো হদিশ পায়নি৷

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধ দপ্তরের কর্মকর্তারা এ সম্ভাবনাও বিচার করে দেখছেন যে, বিমানটির পাইলট অথবা অন্য কোনো আরোহী প্লেনটিকে পরিকল্পিতভাবে অন্য কোনো গন্তব্য অভিমুখে নিয়ে গেছে – এবং দিক পরিবর্তনের আগে বিমানের ট্রান্সপন্ডারগুলি জেনেশুনে বন্ধ করে দিয়েছে, যা-তে রাডারে এ সব গতিবিধি ধরা না পড়ে৷ মার্কিন ‘ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল' পত্রিকা সংশ্লিষ্ট এক তদন্তকারীর সূত্রে এ কথা জানিয়েছে৷

flugzeugabsturz malaysia vietnam china MH370 airlines

তল্লাশির এক পর্যায়ে বিমান থেকে সাগরের দিকে নজর রাখছেন ভিয়েতনামের এক সামরিক কর্মকর্তা

মালয়েশীয় সামরিক কর্তৃপক্ষ ইতিপূর্বে বিমানটি মালয়েশিয়ার পূর্ব উপকূলে রাডারে ধরা পড়ার যে খবর দিয়েছিল – এবং পরে অস্বীকার করেছিল – তা অনুযায়ী বিমানটি প্রায় ৪৫ মিনিট ধরে উড়ে থাই উপসাগরের ঐ অঞ্চলে পৌঁছায়: শুধুমাত্র ৫,০০০ ফিট উচ্চতা হারিয়ে৷ এর অর্থ, বিমানটি তার আদত যাত্রাপথ থেকে হঠাৎ পশ্চিমমুখে মোড় নিয়ে থাই উপসাগর থেকে আন্দামান সাগর অবধি উড়ে যায়৷

মোট কথা, কোনো তত্ত্বই পুরোপুরি বাদ দেওয়া যাচ্ছে না: বিমানটি রাডার থেকে উধাও হওয়ার সময়েই দুর্ঘটনায় পতিত হয়; অথবা অন্তত আন্দামান সাগর অবধি যাত্রা করে; অথবা তার গন্তব্য আরো দূরে, আরো রহস্যময় কোথাও৷

এসি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন