1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

নিখোঁজ বিমান সম্পর্কিত স্যাটেলাইট তথ্য প্রকাশ

এমএইচ৩৭০ উড়ালের ‘নিখোঁজ’ বিমান সম্পর্কিত স্যাটেলাইট তথ্য মঙ্গলবার প্রকাশ করেছে মালয়েশিয়া৷ সেই তথ্যের ভিত্তিতে ধারণা করা হচ্ছে যে, বিমানটি ভারত মহাসাগরের দক্ষিণাংশে বিধ্বস্ত হয়েছে৷ যদিও এখনও কোনো ধ্বংসাবশেষ পাওয়া যায়নি৷

default

এমনই একটি বিমান নিখোঁজ হয়ে গেছে

মালয়েশিয়ার বেসামরিক বিমান পরিবহন দপ্তর ডিসিএ এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, স্যাটেলাইট তথ্য প্রকাশের জন্য ব্রিটিশ স্যাটেলাইট অপারেটর ‘ইনমারস্যাট’-এর সঙ্গে কাজ করেছে তারা৷ প্রকাশিত তথ্যের সঙ্গে কিছু ব্যাখ্যা যোগ করা হয়েছে, যাতে সাধারণ মানুষ সেগুলো বুঝতে পারে৷

তবে বিশ্লেষকরা বলেছেন, ‘অত্যন্ত জটিল’ এ সব প্রাথমিক তথ্য পর্যবেক্ষণ করে সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে সময় লাগবে৷

মূলত বিমানটিতে থাকা ২৩৯ আরোহী এবং কেবিন ক্রুদের পরিবারের দাবির ভিত্তিতে এ সব তথ্য প্রকাশ করলো মালয়েশিয়া৷ ১১ সপ্তাহ আগে বিমানটি কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিং-এর পথে যাত্রা করেছিল৷

কিন্তু যাত্রার মাঝপথেই রহস্যজনকভাবে হারিয়ে যায় সেটি৷ আর এখন অবধি বিমানটির কোনো ধ্বংসাবশেষ কোথাও খুঁজে পাওয়া যায়নি৷

বিমানটির সম্ভাব্য গতিপথ খুঁজে পেতে ‘ডপ্লার এফেক্ট’ পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়েছে৷ ইনমারস্যাটের রেকর্ড করা তথ্য ডিসিএ, মার্কিন জাতীয় পরিবহন সুরক্ষা বোর্ড, ব্রিটিশ বিমান দুর্ঘটনা তদন্ত শাখা এবং চীনের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যাচাই করে দেখেছে৷

তবে ৮ই মার্চ বিমানটি নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত বিমানটির কিছুই খুঁজে না পাওয়া যাওয়ায় অনেকের সন্দেহ দূর হচ্ছে না৷ বিশেষ করে, বিমানটির আরোহীদের পরিবারের সদস্যরা মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের বক্তব্যের উপর বিশ্বাস রাখতে পারছেন না৷ পরিবারের সদস্যদের কথা হচ্ছে, ‘‘ঠিক কিসের ভিত্তিতে ইনমারস্যাটের দেয়া তথ্যকে নির্ভুল এবং বিশ্বাসযোগ্য মনে করে ভারত মহাসাগরের দক্ষিণাংশে ব্যাপক উদ্ধার তৎপরতা চালানো হচ্ছে, তা আমাদের কাছে পরিষ্কার নয়৷’’

সিঙ্গাপুর নির্ভর বিমান চলাচল বিষয়ক প্রকাশনা ‘ফ্লাইগ্লোবাল’-এর ব্যবস্থাপনা সম্পাদক গ্রেগ ভালড্রন এ বিষয়ে বলেন, ‘‘ইনমারস্যাটের দেয়া তথ্যে মূলত ভারত মহাসাগরের উপরে অবস্থানকালে বিমানটির সঙ্গে স্যাটেলাইটের যোগাযোগের সময়গুলো উল্লেখ রয়েছে৷ এই তথ্যের উপর ভিত্তি করে এখন যেখানে উদ্ধার তৎপরতা চালানো হচ্ছে সেটি সঠিক জায়গা কিনা – সে বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশের সুযোগ রয়েছে৷’’

উল্লেখ্য, ভারত মহাসাগরে বর্তমানে বিমানটি খোঁজায় নেতৃত্ব দিচ্ছে অস্ট্রেলিয়া৷ এই উদ্ধার কর্মকাণ্ডের পেছনে দু’বছর মেয়াদে ৮৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে দেশটি৷

এআই/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়