নিকারাগুয়ায় কফিচাষের উন্নতিতে অভিনব পদক্ষেপ | অন্বেষণ | DW | 14.06.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

নিকারাগুয়ায় কফিচাষের উন্নতিতে অভিনব পদক্ষেপ

দুনিয়া জুড়ে যখন কফির দাম পড়ছে, ঠিক তখনই নিকারাগুয়ায় কিছু ছোট চাষি তাদের খামারে কফিচাষের সামাজিক ও পরিবেশগত মান উন্নয়ন করার চেষ্টা করছেন৷ তাদের সার্টিফিকেটপ্রাপ্ত কফির জন্য আজ তারা ভালো দাম পাচ্ছেন৷

কফি হল মারিয়ার প্রেম৷ প্রায় দু'বছর হল, ২৮ বছর বয়সি মারিয়া হোসে মিদেন্সে নিকারাগুয়ার উত্তরে ওকোটালে তাঁর নিজের ক্যাফেটেরিয়া চালাচ্ছেন৷ এস্প্রেসো হোক আর কাপুচিনো, মারিয়ার কফি এই মফস্বল শহরে একটা বিশেষত্ব বৈকি – কেননা এ ছাড়া এখানে আর কোনো ক্যাফেটেরিয়া নেই৷ মারিয়া শোনালেন: ‘‘আমি কিছুদিন মানাগুয়ায় ছিলাম৷ ওখানকার ক্যাফেটেরিয়াগুলোকে দেখেছি – দেখে আমার খুব ভালো লেগেছে৷ আমাদের গ্রামে তখন নানা ধরনের কফি চেখে দেখার কোনো সুযোগ ছিল না৷''

মারিয়া রাজধানীতে তাঁর কাজ ছেড়ে দিয়ে গ্রামে ফিরে নিজের ক্যাফেটেরিয়াটি খোলেন৷ কফি সম্পর্কে তাঁর আগ্রহ তখন থেকেই৷ আজ তিনি এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রশিক্ষণার্থী – কিন্তু কেন?

মারিয়া বললেন, ‘‘কৌতূহলের বসেই আমি এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে আসি৷ আমার নতুন কিছু শেখার ইচ্ছে ছিল৷ পাঠ্যক্রম চলাকালীন আমি কফির প্রেমে পড়ে যাই, ভাবতে শুরু করি, আমার নিজের ক্যাফেটেরিয়া খুললে কেমন হয়৷''

প্রশিক্ষণ কেন্দ্র

গনসালো কাস্তিও মোরেনো ৩০ বছরের বেশি সময় ধরে কফির চাষ করছেন৷ তাঁর এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের উদ্দেশ্য হল, বিশ্ববাজারে কফির দাম পড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে কফিচাষিদের আধুনিক ও টেকসই খামার পরিচালনার শিক্ষা দেওয়া, যাতে তারা নিজেদের রোজগার বাড়াতে পারেন৷ কাস্তিওর ছাত্রছাত্রীদের অনেকেই কফিচাষি পরিবারের সন্তান৷

ভিডিও দেখুন 05:30
এখন লাইভ
05:30 মিনিট

কফির টেকসই চাষ

কাস্তিও জানালেন, ‘‘আমাদের ‘ইস্কুলের' লক্ষ্য হল, কফিচাষিদের শেখানো, তারা কীভাবে নিজেদের কফিখেতগুলোকে আরো সুন্দর করতে পারেন আর খেতের ফসল বাড়াতে পারেন৷ যাতে তারা নিজের জমিটুকুকে ভালোবাসতে শেখেন ও তাদের চাকরির সন্ধানে শহরে যেতে না হয়৷''

দেড় বছরের প্রশিক্ষণে পড়ুয়ারা কফি চাষ থেকে শুরু করে ফসল তোলা ও কফি বিন উৎপাদন পর্যন্ত সব কিছু শেখেন৷ কফি বিনগুলোকে মেশিনে গুঁড়া করার কাজটাও শেখেন তারা – উৎপাদনের আর কোনো পর্যায়ে এই পরিমাণ পানির দরকার হয় না৷

হুয়ান ফ্রান্সিস্কো মার্তিনেস প্রশিক্ষণার্থীদের এই সব প্রসঙ্গ সম্পর্কে সচেতন করে তোলার চেষ্টা করেন৷ তিনি নিকারাগুয়ায় ইউটিজেড কর্মসূচির প্রতিনিধি৷ সংস্থাটি এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রকে আর্থিক সাহায্য দিয়ে থাকে এবং সামাজিক ও পরিবেশগত শর্তাবলী অনুযায়ী কফি ও অন্যান্য কৃষিপণ্যকে সার্টিফিকেট দিয়ে থাকে৷ এর ফলে কফিচাষিরা তাদের কফি কিছুটা বেশি দামে বিক্রি করতে পারেন৷

জলবায়ু পরিবর্তন

কফিচাষিদের সামনে অন্যান্য নানা চ্যালেঞ্জ রয়েছে৷ হুয়ানের ভাষ্যে: ‘‘জলবায়ু পরিবর্তন একটি বাস্তব৷ প্রতিদিন আমরা তাপমাত্রা বাড়ার কথা উপলব্ধি করতে পারি৷ যখন শুকনো থাকার কথা, তখন বৃষ্টি হয়৷ বৃষ্টি পড়বে কি না, তার কোনো নিশ্চয়তা নেই – কফিচাষের উপর যার প্রভাব পড়ে৷ এ বছর নিকারাগুয়ায় ২০ থেকে ৩০ শতাংশ কম কফি উৎপাদন হবে বলে অনুমান করা হচ্ছে৷''

কফিচাষি গনসালো কাস্তিওর খামারেও তা অনুভব করা যায়৷ এবারের শীতে যে কফি তোলার মজুররা মৌসুম শেষ হবার দু'সপ্তাহ আগেই শেষ কফি ফলগুলোকে ভাঁড়ারে তুলে ফেলেছেন, তার কারণ হল ৷ ব্যাপক বৃষ্টি আর উচ্চ তাপমাত্রার কারণে কফি গাছগুলোতে ঠিক সময়ের অনেক আগেই ফুল ধরে৷ এর পরেও ফসল তোলার অর্থ আগামী মৌসুমে ফসল কম হবার আশঙ্কা৷

কাজেই এ বছর ফসল কম হবে বলে কাস্তিও ধরে নিয়েছেন৷ কেন? তিনি তো বলেছেন যে, তাঁর এযাবৎ কোনো লোকসান হয়নি? শুধু ফসল কম হয়েছে বলেই যে আর্থিক লোকসান হবে, এমন কোনো কথা নেই৷ তবে একটি বিষয় মনে রাখতে হয়৷ কাস্তিওর ভাষায়, ‘‘প্রায় সব চাষিরই লোকসান হয়েছে, শুধু আমার নয়, অন্তত এ পর্যন্ত নয় – ঈশ্বরের কৃপায় আর আমার কফির উৎকর্ষের দরুণ৷''

পরিবেশ ও কফি শ্রমিক

পাকা কফি ফলের রং লাল৷ তা থেকেই কফির স্বাদ ভালো হয় ও পরে ভালো দাম পাওয়া যায়৷ সেজন্য কাস্তিও তাঁর মজদুরদের ভালো মজুরি দিয়ে থাকেন, এক বালতি কফি কুলের জন্য আনুমানিক এক ইউরো ত্রিশ সেন্ট – যা কিনা আশপাশের খামারগুলোর চেয়ে ৪০ শতাংশ বেশি, জানালেন একজন শ্রমিক৷ সহায় সম্বলহীন মহিলারাও কাস্তিওর কাছে কাজ পেয়ে থাকেন৷

সার্টিফিকেট পাবার জন্য কফিচাষিদের পরিবেশ সুরক্ষার ব্যবস্থা করতে হয়৷ যে পানি দিয়ে কাঁচা কফি পরিষ্কার করা হয়, তা গিয়ে পড়ে একটি চৌবাচ্চায় – আগে এই ময়লা পানি নদীতে গিয়ে পড়ত৷ কাস্তিও ফেলে দেওয়া কফি ফল জমিয়ে তা থেকে অরগ্যানিক সার করেন৷

তাঁর কফি খামারে চিরকাল এরকম সুব্যবস্থা ছিল না৷ কাস্তিও দু'বছর আগে টেকসই উৎপাদনের স্বীকৃতি পেয়েছেন৷ তার জন্য তাঁকে অনেক কিছু বদলাতে হয়েছে৷ কাস্তিও বললেন,

‘‘আজ লোকে জানে, এই কফি আসে কোথা থেকে: এমন একটি খামার থেকে, যেখানে ভালো মজুরি দেওয়া হয়, যেখানে কোনো শিশুশ্রম নেই, যেখানে আমরা পরিবেশকে রক্ষা করি৷ তার ফলে আমি আমার কফির জন্য কিছুটা বেশি দাম পাই৷''

সার্টিফিকেট

ইউটিজেড-এর ছাপ থাকলে বাজারে সাধারণ কফির জন্য পাঁচ থেকে দশ শতাংশ বেশি দাম পাওয়া যায়৷ তবে কফির মান খুব ভালো হলে খদ্দেররা কয়েক গুণ বেশি দাম দিয়ে কফি কিনতেও দ্বিধা করেন না৷ তার জন্য সার্টিফিকেটের প্রয়োজন; ইউটিজেডের ছাপ ছাড়া কফিচাষিরা তাদের কফির জন্য এতো ভলো দাম পেতেন না৷ 

সেটা যে পরিবেশের পক্ষেও ভালো, তা কাস্তিওর খামারের প্রান্তে এসে বোঝা যায়৷ এখানে যে ছোট নদীটি বয়ে যাচ্ছে, তার জল আগে চারপাশের কফির খামারের ময়লা পড়ে কালো হয়ে থাকত, শোনালেন কাস্তিও৷ সে জলে নাকি কোনো মাছ বাঁচতে পারত না৷

আজ পরিস্থিতি সম্পূর্ণ আলাদা, কেননা নিকারাগুয়ায় কাস্তিওর মতো কফিচাষিরা টেকসই কফি উৎপাদনের উপর জোর দিচ্ছেন৷

অলিভার রিস্টাউ/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও