1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

নিউ ইয়র্কে ব্যর্থ বোমা হামলার ঘটনায় একজন গ্রেপ্তার

নিউ ইয়র্কে ব্যর্থ গাড়ী বোমা হামলার তিনদিন পর একজন সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ স্থানীয় সময় সোমবার রাতে জন এফ কেনেডি বিমানবন্দর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷

default

পুলিশী তদন্ত এগিয়ে চলছে

দুবাই যাবার বিমানে ওঠার ঠিক আগে ঐ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ নাম তার ফয়সাল শাহজাদ৷ ৩০ বছর বয়সি এই ব্যক্তি অ্যামেরিকার নাগরিক৷ তবে জন্ম পাকিস্তানে৷

আজ দিন শেষে ম্যানহাটানের একটি আদালতে শাহজাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তৈরি করা হবে বলে জানা গেছে৷ যে গাড়িতে বোমাটি পাওয়া গেছে, শাহজাদ সেটি মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগে কিনেছিলেন বলে ধারণা করা হচ্ছে৷ এর আগে মার্কিন কেন্দ্রীয় তদন্ত ব্যুরো বা এফবিআই কানেটিকাট রাজ্যে শাহজাদের বাড়িতে তল্লাশি চালায়৷ তবে সেখানে তাঁরা কী পেয়েছেন তা জানা যায়নি৷

এদিকে মার্কিন নিরাপত্তা সংস্থাগুলো বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছে যে, এই ঘটনার সঙ্গে একাধিক ব্যক্তি জড়িত থাকতে পারে৷ এছাড়া ঘটনার সঙ্গে আন্তর্জাতিক সূত্রের যোগাযোগের কথাও তাঁরা বলছেন৷ উল্লেখ্য, ঘটনার পরদিন অর্থাৎ রবিবার পাকিস্তানি তালেবান ঐ হামলার দায়িত্ব দাবি করেছিল৷ ইরাকে তাঁদের দুই শীর্ষনেতার

Times Square Autobombe Anschlag

পর্যবেক্ষণ ক্যামেরায় তোলা গাড়ীটির ছবি

মৃত্যুর প্রতিশোধ নিতে তাঁরা গাড়িতে বোমা রেখেছিল বলে জানিয়েছিল৷ এদিকে কয়েকটি পত্রিকার খবরে বলা হচ্ছে যে, শাহজাদ মাত্র কিছুদিন আগেই পাকিস্তান থেকে ফিরেছেন৷ সেখানে তিনি পাঁচ মাস ছিলেন৷ এসময় শাহজাদ পেশাওয়ার সফর করেন, যেটি তালেবান ও আল কায়েদার শক্তিশালী ঘাঁটি বলে পরিচিত৷

পাকিস্তান এই গ্রেপ্তারের ঘটনায় মার্কিন সরকারকে সব ধরণের সহায়তা দেবে বলে জানিয়েছেন দেশটির এক শীর্ষ কর্মকর্তা৷ ইসলামাবাদে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত গ্রেপ্তারের ঘটনার পর পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশির সঙ্গে দেখা করতে গেলে পাকিস্তানের পক্ষ থেকে এই আশ্বাস দেয়া হয়৷

উল্লেখ্য, গত শনিবার সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্কের ব্যস্ত এলাকা টাইমস স্কোয়ারে একটি গাড়িতে বোমা পাওয়া যায়৷ বোমাটি বিস্ফোরিত হলে অনেক মানুষ মারা যেতেন বলে মার্কিন কর্মকর্তারা বলছেন৷ কারণ সেসময় টাইমস স্কোয়ারে বহু মানুষ ছিলেন৷

যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেল এরিক হোল্ডার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন যে, এই সন্ত্রাসী ঘটনার উদ্দেশ্য ছিল মার্কিন নাগরিকদের হত্যা করা৷ তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রমাণ সংগ্রহ করা হয়েছে৷ এছাড়া বিদেশি সন্ত্রাসী গোষ্ঠির ব্যাপারেও খোঁঝখবর নিচ্ছেন তদন্তকারীরা৷

তবে এ ঘটনা এটাই প্রমাণ করছে যে, নিউ ইয়র্কের জনগণের নিরাপত্তা সবসময়ই হুমকির মুখে৷ কারণ মাত্র ৯ মাস আগেই ম্যানহাটানের সাবওয়েতে ঠিক এ ধরণেরই আরেকটি বোমা হামলার পরিকল্পনা ব্যর্থ করে দেয়া হয়েছিল৷ এক আফগান অভিবাসী ঐ ব্যর্থ হামলার পিছনে ছিল৷ আর ২০০১ সালের টুইন টাওয়ারে হামলার কথাতো সবারই জানা৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদানা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়