1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

নারী সৌন্দর্য যখন ক্যামেরার লেন্সে বন্দি

রুমেনিয়ার মেয়ে মিহায়েলা নোরোক ছবি তুলে বেড়ান সারা পৃথিবীর মহিলাদের৷ যেন তিনি খুঁজছেন কোনো চিরন্তন নারীমুখ৷ মিহায়েলা তাঁর ‘সৌন্দর্যের মানচিত্রে' সারা বিশ্বের মহিলাদের অন্তর্নিহিত সৌন্দর্য ফুটিয়ে তুলতে চান৷

ভিডিও দেখুন 04:22

নারীর সৌন্দর্য যখন ক্যামেরায়

মিহায়েলা নোরোক প্রতিদিন বেরোন তাঁর কাজে, বড় রাস্তায়, খোলামেলা পাবলিক চত্বরে৷ তাঁর কাজ হলো মহিলাদের ছবি তোলা৷  ২০১৩ সাল যাবৎ তিনি ৫০টির বেশি দেশ সফর করেছেন এই কাজে৷ তাঁর লক্ষ্য হলো, তিনি সত্যিকারের সৌন্দর্যকে ক্যামেরার লেন্সে ধরে রাখবেন৷ এমন সব মহিলা যাদের তিনি মিয়ানমারে দেখেছেন, অথবা রুমেনিয়ার বুখারেস্টে, ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তায়, ফিনল্যান্ডে, ইকুয়েডরে....মিহায়েলা বলেন, ‘‘মেয়েদের মুখ একটা রহস্য৷ আমি আজও জানি না, রাস্তাঘাটে আমি তাদের মুখে কী দেখি, যা আমাকে মুগ্ধ করে৷ যদি কেউ আমার চোখে পড়ে, আমি তার ভেতরে কিছু একটা অনুভব করি, কোনো ধরনের রসায়ন কিংবা শক্তি, যা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়৷ তখন আমি সেই মেয়েটির ছবি তোলার চেষ্টা করি৷''

২৭ বছর বয়সে রুমেনিয়ার মেয়ে মিহায়েলা বুখারেস্টের একটি টিভি প্রোডাকশন কোম্পানিতে চাকরিতে ইস্তফা দিয়ে, যা কিছু সঞ্চয় ছিল, তা সঙ্গে নিয়ে বেরোন তাঁর একটি আইডিয়াকে বাস্তবে পরিণত করতে৷ ‘দ্য অ্যাটলাস অফ বিউটি' বা সৌন্দর্যের মানচিত্র, এই হলো তাঁর প্রকল্প৷ এ-কাজে শত শত মহিলাদের ছবি তুলেছেন তিনি৷ কেপটাউনের বস্তিতে এক মাংস-বিক্রেতা মহিলার ছবি; এক ভারতীয় মহিলার ছবি, যার বয়স একশ' ছুঁই ছুঁই করছে; এক জার্মান মহিলার ছবি, যিনি দু-দু'বার ক্যানসারের সঙ্গে যুদ্ধ করে জিতেছেন...৷

মিহায়েলা নোরোক তাঁর ফটোগ্রাফিতে মহিলাদের প্রশান্তি, আনন্দ আর শক্তিকে ধরে রাখতে চেয়েছেন৷ মিহায়েলা বলেন, ‘‘মিডিয়া ঘাঁটলে দেখবেন যুদ্ধের মানচিত্র, সমস্যার মানচিত্র৷ আমি যেটা দেখানোর চেষ্টা করছি, সেটা হলো এই যে, তা দিয়ে পরিস্থিতি বদলানো যাবে না৷ আমাদের মেনে নিতে হবে যে, সব সত্ত্বেও জীবন সুন্দর৷''

‘অ্যাটলাস অফ বিউটি'

মিহায়েলা নোরোক তাঁর ছবি আর কাহিনিগুলি অনলাইনে দেন৷ ফেসবুকে তাঁর প্রকল্পের ফ্যান আজ ন'লাখের কাছাকাছি৷ টামব্লর-এ তাঁর ব্লগ আজ এই প্ল্যাটফর্মে যে সব ব্লগ সবচেয়ে বেশি শেয়ার করা হয়, তাদের মধ্যে পড়ে৷ ৩০ বছর বয়সি মিহায়েলা তাঁর প্রকল্পের কাজ চালান প্রধানত ক্রাউডফান্ডিং-এর মাধ্যমে৷ মিহায়েলা জানালেন, ‘‘আমি এমন সব মানুষের খোঁজ করছি, যারা আমাদের আশা দেবার ক্ষমতা রাখে, অন্যদের প্রেরণা দেবার ক্ষমতা রাখে৷ যারা তাদের অন্তর্নিহিত সৌন্দর্যকে দেখাতে পারে, যা আমার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ মহিলাদের মধ্যে যে শক্তি আছে, সেটাই আমি তুলে ধরার চেষ্টা করছি৷''

মিহায়েলা নোরোক উত্তর কোরিয়া সফর করেন ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে৷ অসাধারণ সফর! তিনি উত্তর কোরিয়ার মহিলাদের দৈনন্দিন জীবন দেখাতে চেয়েছিলেন৷ এমন একটি বিচ্ছিন্ন দেশ, যা শুধু তার রাজনীতির মাধ্যমে সারা বিশ্বে আগ্রহের সঞ্চার করে৷ মিহায়েলা এখানে বিশজনের বেশি মহিলার ছবি তোলেন, যা তাঁর প্রত্যাশার চেয়ে অনেক বেশি৷ মিহায়েলার ভাষ্যে, ‘‘উত্তর কোরিয়া সফর করার সময় সবসময় আমার সঙ্গে একজন গাইড থাকত, কাজেই অভিজ্ঞতা কিছুটা ফিলটার্ড ছিল বলতে হয়৷ তবুও আমি আশ্চর্য হই যে, আমি মহিলাদের সঙ্গে কথা বলতে পেরেছি, তাদের রাস্তায় থামিয়ে আমার প্রকল্পের জন্য তাদের ছবি তুলতে পেরেছি, যা আমার খুবই ইন্টারেস্টিং লেগেছে৷''

মিহায়েলা নোরোক তাঁর প্রকল্পে নানা ধরনের মহিলাদের ছবি তুলেছেন৷ কিন্তু তাঁর কাছে সৌন্দর্য বলতে কী বোঝায়? মিহায়েলা বললেন, ‘‘সৌন্দর্য খুবই বিচিত্র৷ একবার তাকানো, হাত মেলানো, একটি হাসির মধ্যে সৌন্দর্য থাকে৷ আমি জানি না, হয়ত একটা শক্তি, আমাদের চারপাশে৷ শুধু মনোযোগী হতে হবে, দেখার জন্য মন খোলা রাখতে হবে, কেননা সৌন্দর্য তো সর্বত্র, হয়ত পাশ দিয়ে চলে যাবে অথচ আপনি খেয়ালই করবেন না৷''

মিহায়েলাকে তাঁর প্রকল্প আরো অনেক জায়গায় নিয়ে যাবে, সামনে পরিকল্পনা আছে সুইজারল্যান্ড, জাপান ও মেক্সিকো যাত্রার৷ তাঁর ‘অ্যাটলাস অফ বিউটি', সৌন্দর্যের মানচিত্র বই হিসেবেও ছাপা হয়ে বেরোতে চলেছে৷৷

কিয়র্স্টিন শুমান/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও