1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘নারীর প্রতীক চুড়ি না হয়ে বিমান হবে না কেন?'

আসন্ন পৌর নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে সংরক্ষিত নারী আসনের প্রতীক নিয়ে তোপের মুখে পড়েছে নির্বাচন কমিশন৷ তারা এমন সব প্রতীক রেখেছে, যা নারীর জন্য সমতানীতির শুধু পরিপন্থিই নয়, এতে তাদের সনাতনী চিন্তারও বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে৷

নির্বাচন কমিশন বা ইসি বাংলাদেশের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরদের জন্য মোট ১০টি নির্বাচনি প্রতীক বরাদ্দ করেছে৷ এই প্রতীকগুলো হলো: গ্যাসের চুলা, চকলেট, চুড়ি, পুতুল, ফ্রক, ভ্যানিটি ব্যাগ, আঙুর, কাঁচি, মৌমাছি এবং হারমোনিয়াম৷ এর আগে গত সিটি কর্পোরেশ নির্বাচনেও সংরক্ষিত নারী আসনের জন্য একই ধরণের প্রতীক রেখে সমালোচনায় পড়েছিল নির্বাচন কমিশন৷ তারপরও তারা সচেতন না হয়ে একই ধরণের প্রতীক রেখেছে পৌর নির্বাচনের জন্য৷

অডিও শুনুন 02:02

নারীর প্রতীক চুলা, চুড়ি, পুতুল কেন? - এলিনা খান

এর প্রতিক্রিয়ায় মঙ্গলবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি বলেন, ‘‘নারী আজ কেবল চুড়ি পরে ঘরের মধ্যে বন্দি নয়৷ নারীরা আজ বিমান চালাচ্ছে, ট্রেন চালাচ্ছে, রাইফেল, স্টেনগানও চালাচ্ছে৷ তাই আজকের যুগে নারীর প্রতীক শুধুমাত্র চুড়ি, পাটাপুতা ও হাড়ি-পাতিল নয়৷ নারী এখন সব কিছুরই প্রতীক৷'' তাই তাঁর প্রশ্ন, ‘‘নারীর প্রতীক চুড়ি না হয়ে কেন বিমান হবে না?''

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের এই রকমের দায়িত্বহীনতা দুঃখজনক৷ তিনি একজন নারীকে নির্বাচন কমিশনার হিসাবে নিয়োগ দেয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘‘কমিশনার নারী হলে এই সব স্পর্শকাতর বিষয়ে খেয়াল রাখতে পারবেন৷''

এদিকে মানবাধিকার ও নারী নেত্রী অ্যাডভোকেট এলিনা খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘নির্বাচন কমিশন এইসব প্রতীক বরাদ্দের মাধ্যমে প্রমাণ করলো যে, তাদের মানসিকতায় কোনে পরিবর্তন হয়নি৷ তারা এখনো ‘জেন্ডার বায়াসড' সমাজের প্রচলিক ধারণা থেকেই নারীদের প্রতীক বরাদ্দ করেছেন৷'' তাই এই প্রতীক বরাদ্দের সঙ্গে যাঁরা জড়িত, তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা এবং প্রতীক বাতিলের দাবি জানান তিনি৷

অডিও শুনুন 03:20

কাউকে হেয় করার জন্য প্রতীক নির্ধারণ করিনি - মোহাম্মদ শাহনেওয়াজ

এ নিয়ে নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ শাহনেওয়াজ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা কাউকে হেয় করার জন্য এই প্রতীকগুলো নির্ধারণ করিনি৷ শুধমাত্র একজন প্রার্থীকে চিহ্নিত করার জন্য প্রতীকগুলো নির্ধারণ করা হয়েছে৷ তাছাড়া এই ১০টি প্রতীকের বাইরেও কিছু প্রতীক আছে৷ কেউ চাইলে সেগুলো পছন্দ করতে পারেন৷''

সিটি নির্বাচনেও প্রতীক নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল৷ অথচ তারপরও কেন নির্বাচন কমিশন প্রতীক সংশোধন করেনি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘সিটি নির্বাচনের পর নানা কাজের চাপে কমিশন এদিকে খেয়াল রাখতে পারেনি৷ তবে ভবিষ্যতে কাউকে যাতে প্রতীক নিয়ে বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখবে নির্বাচন কমিশন৷ এবার অবশ্য প্রতীক পরিবর্তন সম্ভব নয়৷ কারণ প্রতীন পরিবর্তন করতে হলে আরো অনেক কিছু পরিবর্তন করতে হবে, যা এত অল্প সময়ে সম্ভব নয়৷''

প্রসঙ্গত, আগামী ৩০শে ডিসেম্বর দেশের ২৩৪টি পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা৷

বন্ধুরা, আপনার মতে নারীর প্রতীক কী হওয়া উচিত? জানান নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও