1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

নাক দিয়ে যায় চেনা

জার্মানির বোখুম ইউনিভার্সিটির গন্ধ বিশেষজ্ঞদের কাছে শেখা যায়, নাক ছাড়া আর কোন অঙ্গ দিয়ে গন্ধ শোঁকা যায়৷ শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ নাকি বিশেষ বিশেষ গন্ধ শোঁকালে রাসায়নিক প্রতিক্রিয়া দেখায়৷

ফুলের মতো সুগন্ধ হোক, বা অন্য কোনো দুর্গন্ধ – সেল বায়োলজিস্ট, অর্থাৎ কোষ জীববিজ্ঞানী প্রফেসর হান্স হাট-এর কাছে তারা সবাই প্রিয়৷ প্রফেসর হাট-এর নাক যে অন্যদের চেয়ে বেশি ভালো, এমন নয়৷ তবে তাঁর নাক গন্ধ শুঁকে শুঁকে স্পেশালিস্ট হয়ে উঠেছে৷

বোখুমের রুর বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর পরীক্ষাগারে হান্স তাঁর ছাত্র-ছাত্রীদের গন্ধ চেনান, চিনতে শেখান৷ যে সব পথিকৃৎরা প্রথম উপলব্ধি করেন, আমাদের জীবনে বিভিন্ন গন্ধ ও সুগন্ধের গুরুত্ব ঠিক কতখানি, হান্স হাট তাদের মধ্যে পড়েন৷ ঘ্রাণেন্দ্রিয় সম্পর্কে আমাদের জ্ঞানে যারা বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছেন, হাট সেই সব বিজ্ঞানীদের মধ্যে পড়েন৷ তাঁর সংগ্রহে বেশ কয়েক হাজার গন্ধের নমুনা আছে৷

‘‘নাকের চেয়ে বেশি আশ্চর্যকর, চমকপ্রদ ইন্দ্রিয় আমাদের আর কিছু নেই'', জানালেন হাট৷ ‘‘প্রতি চার সপ্তাহে আমাদের নাক পুরোপুরি বদলে যায়৷ আমরা জীবনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত নিঃশ্বাস নিই আর গন্ধ শুঁকি৷ প্রত্যেকবার শ্বাস নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নাক আমাদের মস্তিষ্কে নানা তথ্য পাঠায়৷ এমনকি আমরা যখন ঘুমোই, তখন পর্যন্ত৷ আমাদের নাক দশ হাজার কোটি গন্ধের মধ্যে তফাৎ করতে পারে৷ নাক অন্য যে কোনো ইন্দ্রিয়ের চেয়ে বেশি সংবেদনশীল৷''

কিন্তু সেল বায়োলজিস্ট হান্স হাট আজ নাক ছেড়ে অনেকদূর এগিয়ে গেছেন৷ তাঁর পরীক্ষাগারে তিনি বিভিন্ন ধরনের টিস্যু – যেমন ত্বক কিংবা অন্ত্রের টিস্যু কালচার করেন ও বিভিন্ন ধরনের গন্ধের প্রতি তাদের প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করেন৷ আমাদের ঘ্রাণেন্দ্রিয়ের সঙ্গে তার কী সম্পর্ক? হাট জানালেন, ‘‘প্রথাগত ধারণা অনুযায়ী শুধু নাকই গন্ধ নিতে পারে৷ কিন্তু আমরা গন্ধের প্রতি শরীরের অন্যান্য অংশের প্রতিক্রিয়াকেও গন্ধ শোঁকাই বলি৷ নাকের মতো যকৃত, ফুসফুস, অন্ত্র বা ত্বকের কোষগুলোতেও গন্ধের সেন্সর আছে৷ গন্ধের উদ্দীপনা থেকে কোষে বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিক প্রতিক্রিয়া হয়৷''

বোখুমের গন্ধ গোয়েন্দারা দেখাতে পেরেছেন যে, আমাদের শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ ও টিস্যু গন্ধ শুঁকতে সক্ষম, অর্থাৎ তারা গন্ধের প্রতি প্রতিক্রিয়া প্রদর্শন করে৷ যেমন মানব ডিম্বাণুর লিলিফুলের মতো গন্ধ শুক্রকে জাদুমন্ত্রের মতো আকর্ষণ করে৷ ভায়োলেট ফুলের গন্ধ শুঁকলে প্রস্টেট ক্যানসারের সেলগুলো আর ছড়ায় না৷ মাইক্রোস্কোপের তলায় এ ধরনের প্রতিক্রিয়া দেখার জন্য হাজার হাজার এক্সপেরিমেন্টের প্রয়োজন৷ রুর বিশ্ববিদ্যালয়ের আরেক জীববিজ্ঞানী ড. লায়ান গেলিস বললেন, ‘‘কোষগুলো সক্রিয় হলে সেগুলোর রং বদলে যায়, তারা লাল হয়ে যায়৷ আর সেটাই হলো সেই নাটকীয় মুহূর্ত – এটাই তাহলে সঠিক গন্ধ! হ্যাঁ, ল্যাবরেটিরেতে সেটাই আমাদের ইউরেকা মুহূর্ত৷''

বহু বছর ধরে গন্ধ বিশেষজ্ঞদের ঠাট্টা শুনতে হয়েছে৷ আজ তাঁদের কদর সারা বিশ্বে – ভেষজ আর প্রসাধন শিল্প তাঁদের চায় উপদেষ্টা হিসেবে৷ তাঁদের কাজ যে যুগান্তকারী, দুনিয়া এতদিনে সেটা বুঝতে পেরেছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়