1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

নাইন ইলেভেন

নাইন ইলেভেনের ১৪তম বর্ষপূর্তিতেও বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক

আবার ফিরলো সেই ‘কালো দিন’৷ নিরাপত্তা ব্যবস্থা সম্পর্কে খোঁজ নিতে বৈঠক করেছেন ওবামা৷ একদিকে ইরাকে আইএস নির্মূল অভিযানের প্রস্তুতি, অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রকে নিরাপদ রাখার চ্যালেঞ্জ৷ লাদেন নেই, কিন্তু আছে তাঁর ভাবশিষ্যরা!

২০০১ সালের ১১ই সেপ্টেম্বর, অর্থাৎ ১৪ বছর আগের ঠিক এই দিনেই যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে এক যোগে চালানো হয়েছিল চার-চারটি আত্মঘাতি বিমান হামলা৷ হামলায় নিহত হয় প্রায় ৩ হাজার মানুষ৷ চারটি মার্কিন যাত্রিবাহী বিমান ছিনতাই করে নিউ ইয়র্কের স্থানীয় সময় ৯টার দিকে চালানো হয় এই হামলা৷ দুটি বিমান ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের উত্তর ও দক্ষিণ টাওয়ারে আঘাত হানে৷ নিমেষে ধসে পড়ে ভবন দুটি৷ আরেকটি বিমান নিয়ে মার্কিন প্রতিরক্ষা সদর দপ্তর পেন্টাগনে হামলা চালায় জঙ্গিরা৷ তবে চতুর্থ বিমানটি নিয়ে জঙ্গিরা পূর্ব নির্ধারিত স্থানে হামলা চালাতে চাইলেও যাত্রীদের প্রতিরোধের মুখে সে প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়৷ পেনসিলভেনিয়ার আকাশে বিধ্বস্ত হয় সেই বিমান৷

Museum zum Gedenken an den 11. September 2001 eröffnet

নিউ ইয়র্কের ‘দ্য ন্যাশনাল সেপ্টেম্বর ইলেভেন মেমোরিয়াল মিউজিয়াম'

পরিকল্পিতভাবে চালানো নারকীয় এ ধ্বংস ও হত্যাযজ্ঞের জন্য ইসলামি জঙ্গি সংগঠন আল-কায়েদাকে দায়ী করে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা বিভাগ৷ গোয়েন্দা প্রতিবেদন অনুযায়ী, আল-কায়েদার তখনকার নেতা ওসামা বিন লাদেনই ছিলেন হামলার রূপকার৷ ২০১১ সালে পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে আত্মগোপন করে থাকা লাদেনকে হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ বাহিনী ‘নেভি সিল'৷

লাদেনের মৃত্যু সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার পর জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রকে একরম বিজয়ীই ঘোষণা করেছিলেন বারাক ওবামা৷ তিন বছর পরও কিন্তু বাস্তব পরিস্থিতি ভিন্ন৷ এখনো বিশ্বের এখানে-ওখানে চলছে জঙ্গি হামলা৷

জঙ্গি গোষ্ঠী আল-কায়েদা দৃশ্যত কিছুটা দুর্বল হয়ে পড়লেও আফ্রিকায় স্কুল থেকে দুই শতাধিক ছাত্রীকে তুলে নিয়ে যাচ্ছে বোকো হারাম৷ বাণিজ্যিক বিপনীতে অতর্কিত হামলায় প্রাণ যাচ্ছে মানুষের৷ ইরাকের বেশ বড় একটা অংশ দখল করে নিয়ে বিশ্বজুড়ে ইসলামি খেলাফত কায়েমের ঘোষণা দিচ্ছে ইসলামিক স্টেট (আইএস বা আইসিস)৷ আইএস-এর বিরুদ্ধেও ‘যুদ্ধ পরিকল্পনা' প্রণয়ন করতে হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রকে৷

সব মিলিয়ে নতুন এক বাতাবরণেই নাইন ইলেভেনের ১৩তম বার্ষীকিতে ৩ হাজার নিহত, অসংখ্য আহত এবং তাদের পরিবার-পরিজনের প্রতি শ্রদ্ধা, সমবেদনা জানাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র৷ নিউ ইয়র্কের ‘দ্য ন্যাশনাল সেপ্টেম্বর ইলেভেন মেমোরিয়াল মিউজিয়াম'-এ জমবে হাজারো দর্শনার্থীর ভিড়৷ এবারই প্রথম ৯/১১-র বর্ষপূর্তির দিনেও খোলা থাকবে এই জাদুঘর৷ গত মে মাস থেকে উন্মুক্ত করে দেয়া ‘সেপ্টেম্বর ইলেভেন মেমোরিয়াল মিউজিয়াম'-এ গিয়ে এ পর্যন্ত নয় লাখেরও বেশি দর্শনার্থী ১৪ বছর আগে নিহত হওয়া মানুষের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন৷ আজ দর্শনার্থীর সংখ্যা দশ লক্ষ হয়ে যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷

এসিবি/ডিজি (এপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন