1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

নাইজার মরুভূমিতে উদ্বাস্তুদের লাশ

৩৪ জন মানুষ, তাদের মধ্যে ২০ জন শিশু৷ এদের লাশ খুঁজে পাওয়া গিয়েছে আলজেরিয়া সীমান্তের কাছে৷ মানুষ পাচারকারীরা তাদের ফেলে গিয়েছিল৷ দৃশ্যত জুন মাসের ৬ থেকে ১২ তারিখের মধ্যে তাদের মৃত্যু ঘটে৷

বুধবার নাইজারের জাতীয় টেলিভিশনে এ খবর দেওয়া হয়৷ ১৪ জন প্রাপ্তবয়স্কের মধ্যে পাঁচজন ছিল পুরুষ, ন’জন নারী৷ নাইজার ও আলজেরিয়ার মধ্যে অবস্থিত আসামাক্কা সীমান্ত পারাপার কেন্দ্রের কাছে এই হবু অভিবাসীদের লাশ খুঁজে পাওয়া গিয়েছে, বলে জানিয়েছেন নাইজারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বাজুম মোহাম্মেদ৷ সম্ভবত মানুষ পাচারকারীরা তাদের ফেলে রেখে গিয়েছিল, বলে মন্তব্য করেন তিনি; ‘‘সম্ভবত তারা তৃষ্ণায় প্রাণ হারিয়েছে’’৷ দৃশ্যত মাত্র দু’জন উদ্বাস্তু বা শরণার্থীকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে, একজন পুরুষ ও এক ২৬ বছর বয়সি মহিলা, দু’জনেই নাইজারের অধিবাসী৷



বিপজ্জনক পথ

আসামাক্কা নাইজারের উত্তরে; নাইজার আর আলজেরিয়ার মধ্যে একমাত্র সরকারি সীমান্ত পারাপার কেন্দ্র৷ আগাদেজ থেকে ৪৫০ কিলোমিটার উত্তরে আসামাক্কা মধ্য নাইজারের বৃহত্তম শহর৷ সব বাস রুটের শেষ টার্মিনাস৷ এখান থেকে অভিবাসীরা পুরোপুরি মানুষ পাচারকারীদের মর্জির উপর নির্ভর, কেননা এবার তাদের মরুভূমি পার হয়ে ভূমধ্যসাগরের উপকূলে পৌঁছাতে হবে৷

সাম্প্রতিককালে লিবিয়ার মধ্যে দিয়ে যাওয়া ক্রমেই আরো বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে৷ কিন্তু মরক্কো থেকে স্পেনে ঢোকা প্রায় অসম্ভব হয়ে দাঁড়ানোর ফলে ইউরোপমুখী অভিবাসীরা সব বিপদ সত্ত্বেও তথাকথিত লিবিয়া রুট বেছে নিচ্ছেন৷ ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন (আইওএম)-এর বিবৃতি অনুযায়ী ২০১৫ সালে ১ লক্ষ বিশ হাজার উদ্বাস্তু আগাদেজ হয়ে উত্তরমুখে যান; ২০১৬ সালে ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল মাসের মধ্যে ৬০ হাজার উদ্বাস্তু আগাদেজ হয়ে লিবিয়ার দিকে যান৷



দক্ষিণে আগাদির থেকে খোলা পিক-আপ ট্রাকে সাহারা মরুভূমি পার করে উদ্বাস্তুদের আলজেরিয়া বা লিবিয়ার ভূমধ্যসাগর উপকূল পর্যন্ত পৌঁছে দিতে মানুষ পাচারকারীরা নাকি মাথাপিছু ৫০০ ইউরো নিয়ে থাকে৷ পথে বালির ঝড়ে পথ হারানোর বিপদ আছে; আছে অপরাপর মানুষপাচারকারীদের তরফ থেকে আক্রমণের আশঙ্কা, এভাবে গাড়িও চুরি হয়ে যেতে পারে, যার পর উদ্বাস্তুদের মরুভূমির মধ্যে ফেলে রেখে উধাও হয় মানুষ পাচারকারীরা৷ পড়ে থাকে কিছু তৃষ্ণার্ত, হতভাগ্য নারী, পুরুষ ও শিশুদের লাশ৷



এসি/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

এই লাশiগুলো খুঁজে পাওয়া গেছে আলজেরিয়া সীমান্তের কাছে৷ মানুষ পাচারকারীরাই তাদের ফেলে গিয়েছিল বলে কি আপনি বিশ্বাস করেন? লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়