1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

নর্থ সাউথের ভাঙচুরকারীরা কি ‘জঙ্গি’?

নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির ছাত্রকে মারধর এবং তার প্রতিক্রিয়ার খবরে কয়েকটি সংবাদমাধ্যম ছাত্রদের ‘জঙ্গি’ আখ্যা দেয়ায় তা বিতর্কের জন্ম দিয়েছে৷ কেউ কেউ বলছেন, কয়েকটি সংবাদ মাধ্যম তাদের স্বার্থেই এভাবে খবর পরিবেশন করেছে৷

বুধবার রাত ১০টার দিকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার মধ্যে অ্যাপোলো হাসপাতালের সামনে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির বিবিএ-র ছাত্র শাহরিয়ার হাসনাতসহ কয়েকজন একটি মোটর বাইক রাখতে গেলে বসুন্ধরার নিরাপত্তারক্ষীরা বাধা দেন৷ এ নিয়ে বাদানুবাদের এক পর্যায়ে নিরাপত্তারক্ষীরা শাহরিয়ারকে মারপিট করে৷  পরে তাঁকে উদ্ধারে নর্থ সাউথের আরো কয়েকজন শিক্ষার্থী সেখানে গেলে তাঁরা মারপিটের শিকার হন বলে অভিযোগ৷ তাঁদের মধ্যে আহত শাহরিয়ারকে প্রথমে অ্যাপোলো এবং সেখান থেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়৷

মারধরের ঘটনায় রাতেই নর্থ সাউথের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করে৷ পরদিন বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে শিক্ষার্থীরা আবারো বসুন্ধরা আবাসিক এলকায় জড়ো হয়ে বিক্ষোভ এবং ভাঙচুর করে৷ বেলা আড়াইটা পর্যন্ত তারা বিক্ষোভ এবং ভাঙচুর অব্যাহত রাখে৷ পরে দায়ীদের শাস্তির আশ্বাস পেলে তারা শান্ত হয়ে চলে যায়৷ বিক্ষোভের সময় তারা প্রগতি সরণি অবরোধ করে৷

অডিও শুনুন 00:55

‘‘এটা হচ্ছে সাংবাদিকতার রাজনৈতিক অর্থনীতি’’

বিক্ষোভকারীরা কয়েকটি ব্যাংক, বাণিজ্যিক  প্রতিষ্ঠানসহ বসুন্ধরা গ্রুপের কর্পোরেট অজিসে হামলা ও ভাংচুর করে৷ তারা কিছু যানবাহন ভাংচুর করে এবং আগুন দেয়৷ তারা নিরাপত্তাচৌকিতেও ভাঙচুর চালায়৷

এ নিয়ে বাংলাদেশের সব সংবাদ মাধ্যমই খবর পরিবেশন করেছে৷ তবে একই শিল্প গ্রুপের কয়েকটি সংবাদ মাধ্যম খবর পরিবেশনে পেশাদারিত্ব বজায় রাখেনি বলে অভিযোগ করা হচ্ছে৷ আর ওই কয়েকটি সংবাদ মাধ্যম বসুন্ধরা এলাকায় হামলা ও ভাংচুরের সঙ্গে জড়িতদের ‘জঙ্গি' বলে অভিহিত করেছে৷

আবুল কাসেম নামে একজন ফেসবুকে লিখেছেন, ‘‘আপনাদের বাজে সাংবাদিকতার নিন্দা জানাই৷ যেখানে 'বসুন্ধরা গ্রুপ' ঘটনার প্রেক্ষিতে 'দুঃখ প্রকাশ' করেছে, সেখানে বিষয়টাকে এত রঙ না দিলে পারতেন৷ আপনাদের মতো সাংবাদিকেরা দিনে দিনে এই মহান পেশাটাকে হাস্যকর করে তুলছেন৷''

মোহাম্মদ হোসেন মারুফ নামের একজন লিখেছেন,‘‘হাজার জঙ্গির হামলা তা-ও আবার খোলা রাস্তায়৷ কোনো জঙ্গিই আটক হইলো না৷ বিদেশি মিডিয়ায় খবর ছাপা হইল না৷ বসুন্ধরা আবার দু:ক্ষও প্রকাশ করল৷ মিলতাছে না তো!''

অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী বাংলাদেশি সাংবাদিক ফজলুল বারি লিখেছেন, ‘‘এসব পরিস্থিতিতে এমন রি-অ্যাকশন না দেখিয়ে চুপ থাকা কি ভালো না? কারণ, পাঠক, দর্শক এখন সাংবাদিকদের চেয়ে সচেতন৷ অস্ট্রেলিয়ায় সাংবাদিকতা পড়তে এসে ঢের বুঝলাম, দেশে যা করতাম এর বেশিরভাগ সাংবাদিকতা ছিলনা৷''

তবে ফেসবুকে আরো কিছু ঢালাও মন্তব্য আছে, যা প্রকাশযোগ্য নয়৷ আর সেসব মন্তব্যে বাংলাদেশের পুরো সাংবাদিক সমাজকেই গালি দেয়া হচ্ছে৷

এ নিয়ে বাংলাদেশের সাংবাদিকরাও নানা মন্তব্য করছেন৷

যুক্তি ও পাল্টা যুক্তি দিচ্ছেন৷ একাত্তর টেলিভিশনের সাংবাদিক নাদিয়া শারমিন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘একই গ্রুপের কয়েকটি সংবাদমাধ্যম ছাড়া বাংলাদেশের আর কোনো সংবাদমাধ্যমে এই ঘটনায় খবর পরিবেশন নিয়ে পেশাদারিত্বের অভাব আমার চোখে পড়েনি৷ তারা কোনো পক্ষ না নিয়ে খবর পরিবেশন করেছেন৷ তবে একই গ্রুপের কয়েকটি সংবাদ মাধ্যম খবর পরিবেশনে তাদের নিজেদের স্বার্থে কাজ করেছে বলে আমার কাছে মনে হয়েছে৷ তারা বিক্ষোভ এবং হামলাকারীদের জঙ্গি বলেছে তাদের প্রতিবেদনে৷ এটা তাদের প্রতিবেদনে তারা প্রমাণ করতে পারেনি৷ আমার মনে হয়েছে, উদ্দেশ্যমূলকভাবে জঙ্গি শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে৷''

অডিও শুনুন 02:40

‘‘এটা তাদের প্রতিবেদনে তারা প্রমাণ করতে পারেনি’’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এটা হচ্ছে সাংবাদিকতার রাজনৈতিক অর্থনীতি৷ যারা মালিক বা বিনিয়োগকারী, তারা এখানে তাদের স্বার্থই দেখবে৷ এবং তাই হয়েছে৷ তারা তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থকে বজায় রেখেই খবর পরিবেশন করবে এবং এটাই হয়েছে৷''

তিনি বলেন, ‘‘আর নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিকে জড়িয়ে জঙ্গি তৎপরতার অভিযোগ যেহেতু আগেই আছে, তাই এখানে বিষয়টি ঢুকিয়ে দেয়া হয়েছে, যা মোটেই পেশাদার বা বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা নয়৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়