1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

নবায়নযোগ্য জ্বালানির দিকেই দৃষ্টি হানোফার শিল্প মেলার

প্রতি বছরের মতো এবারো শুরু হলো জার্মানি তথা বিশ্বের সবচেয়ে বড় বাণিজ্য ও শিল্প মেলা - হানোফার মেসে৷ এবারের মেলায় সাম্প্রতিক বিশ্ব পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে এ বছরের প্রতিপাদ্য করা হয়েছে, নির্ভযোগ্য জ্বালানি৷

default

শুরু হলো বিশ্বের সবচেয়ে বড় বাণিজ্য ও শিল্প মেলা - হানোফার মেসে

রবিবার সন্ধ্যায় উদ্বোধন করা হলো মেলাটি৷ জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল এবং ফরাসি প্রধানমন্ত্রী ফ্রান্সোইস ফিল্লোন যৌথভাবে করেন উন্মোচন করেন এর পর্দা৷ আজ থেকে এই মেলা খুলে দেয়া হলো সর্বসাধারণের জন্য৷ এবারের এই মেলায় সহযোগী দেশ ফ্রান্স৷

জাপানের পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রে বিস্ফোরণ এবং এর পরবর্তী তেজস্ক্রিয়তা বিকিরণের কারণে বিশ্ব যে চিন্তিত তাই প্রকাশ পাচ্ছে এই মেলায়৷ বিভিন্ন কোম্পানি নিরাপদ এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানি উৎপাদনের আধুনিক সব যন্ত্রপাতির প্রদর্শন করছেন এখানে৷ মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এমনটাই মতামত ব্যক্ত করলেন অংশগ্রহণকারীরা৷

NO FLASH Eröffnung Messe Hannover 2011

জাপানের পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রে বিস্ফোরণ ও তার পরবর্তী তেজস্ক্রিয়তা বিকিরণের ফলে বিশ্ব যে চিন্তিত তাই প্রকাশ পাচ্ছে এ মেলায়

জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যর্কেল অভয় দিয়ে বলেন, জার্মানির পরমাণু শক্তি স্থাপনাগুলো শতভাগ নিরাপদ৷ অবশ্য তিনি আগামীর চাহিদা মেটানের ক্ষেত্রে নবায়নযোগ্য জ্বালানির দিকেই গুরুত্ব দিয়েছেন৷ তাঁর ভাষ্য হচ্ছে, ‘‘আমরা যদি নবায়নযোগ্য জ্বালানির যুগে চলে যেতে চাই, তার জন্য আমাদের প্রয়োজন একাগ্রতা৷ দরকার নতুন পথের নতুন চিন্তাধারা৷ আমি সকলকে, বিশেষ করে জার্মান কোম্পানিগুলোকে এই কাজে আরও এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি৷''

মেলায় অংশগ্রহণকারীরা জানালেন, জাপান ট্যাজিডির পর বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে বায়ু এবং সৌর বিদ্যুতের যথাক্রমে টারবাইন ও প্যানেলের চাহিদা যে কোন সময়ের চেয়ে বেড়ে গেছে বহুগুণে৷

Hannover Messe 2011 Flash-Galerie

এবারের এই মেলায় দেশি-বিদেশি ৪০০ কোম্পানি অংশ নিচ্ছে

সেই সঙ্গে নতুন নতুন প্রযুক্তির ওপর নির্ভর করে কী করে নবায়নযোগ্য পরিবেশ বান্ধব জ্বালানির উৎপাদন বৃদ্ধি করা যায়, সে সবই এবার মেলার প্রাধান্য পাচ্ছে৷ আগামী ৮ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে এই মেলা৷

গত বছর এই মেলায় অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা ছিল কম৷ তখন জানানো হয়েছিল বিশ্বব্যাপী আর্থিক মন্দার কারণে বেশিরভাগ কোম্পানি তাতে অংশ নেয়নি৷ কিন্তু এবারের এই মেলায় দেশি-বিদেশি ৪০০ কোম্পানি অংশ নিচ্ছে৷ আয়োজকরা বলছেন, এতোগুলো কোম্পানির অংশগ্রহণ এই ইঙ্গিতই দিচ্ছে যে, বিশ্বের টাকা কড়ির বাজার আবারো ভালো অবস্থার দিকেই যাচ্ছে৷

প্রতিবেদন: সাগর সরওয়ার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ