1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

নদী নিয়ে প্রথম ওয়েবসাইট বাংলাদেশে

প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদী বাংলাদেশের এক উল্লেখযোগ্য প্রাকৃতিক সম্পদ৷ রুই জাতীয় মাছের অন্যতম প্রাকৃতিক প্রজনন ক্ষেত্র৷ এই নদীকে নিয়েই গড়ে তোলা হলো একটি ওয়েবসাইট৷ নদী নিয়ে এটিই প্রথম এ ধরণের কাজ বাংলাদেশে৷

default

নদীমাতৃক দেশ বাংলাদেশ

রুই জাতীয় মাছের নিষিক্ত ডিম

চট্টগ্রামের হালদা নদী বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ রুই জাতীয় – যেমন রুই, কাতলা, মৃগেল এবং কালিগনি মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন ক্ষেত্র৷ এটিই দেশের একমাত্র প্রাকৃতিক প্রজনন ক্ষেত্র, যেখান থেকে সরাসরি রুই জাতীয় মাছের নিষিক্ত ডিম সংগ্রহ করা হয়৷ বাংলাদেশের রুই জাতীয় মাছের একমাত্র বিশুদ্ধ প্রাকৃতিক জিন ব্যাংক৷ এটি জাতীয় ঐতিহ্যের দাবিদার হালদা নদী৷ অন্যদিকে, পরিবেশ দূষণ, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব এবং মনুষ্যসৃষ্ট বিভিন্ন কারণে এ নদী আজ হুমকির সম্মুখীন৷

নদীর দৈর্ঘ্য ৯৮ কিলোমিটার

হালদা নদী পার্বত্য চট্টগ্রামের বাটনাতলি পাহাড় থেকে উৎপন্ন হয়ে ফটিকছড়ির মধ্য দিয়ে চট্টগ্রাম জেলায় প্রবেশ করেছে৷ এটি এরপর বয়ে চলছে দক্ষিণ-পশ্চিম ও দক্ষিণে ফটিকছড়ির বিবিরহাট, নাজিরহাট, সাত্তারঘাট, ও অন্যান্য অংশ, হাটহাজারি, রাউজান, এবং চট্টগ্রাম শহরের কোতোয়ালি থানার মধ্য দিয়ে৷ এরপর কালুরঘাটের কাছে কর্ণফুলী নদীর সাথে মিলিত হয়েছে এই নদী৷ দৈর্ঘ্য ৯৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এই নদীর ২৯ কিলোমিটার অংশ সারা বছর বড় নৌকা চলাচলের উপযোগী থাকে৷

প্রাচীন পদ্ধতি এখনো

হালদা একমাত্র নদী যেখান থেকে আহরিত ডিম স্মরণাতীত কাল থেকে স্থানীয় জ্ঞানের মাধ্যমে প্রাচীন পদ্ধতিতে নদীর পাড়ে খননকৃত মাটির গর্তে (কুয়ায়) ফোটানো হয় এবং চারদিন লালন করে রেণু পোনা তৈরি করা হয়৷ এ নদীর রুই জাতীয় মাছের বৃদ্ধির হার অন্যান্য উৎসের মাছের তুলনায় অনেক বেশি৷ এতে মৎস্যচাষী ও হ্যাচারি মালিকরা হালদা নদীর রুই জাতীয় মাছের চাষ কিংবা প্রজনন ঘটিয়ে বেশি লাভবান হতে পারে৷

আর্থিক অবদান

হালদা নদী থেকে প্রাপ্ত ডিম, উৎপাদিত রেণুর পরিমাণ ও মাছের হিসাব করলে দেখা যায়, এক বছরের চার ধাপে জাতীয় অর্থনীতিতে হালদার অবদান প্রায় ৮০০ কোটি টাকা৷ একক নদী হিসাবে বাংলাদেশের জাতীয় অর্থনীতিতে সবচেয়ে বেশি অবদান রাখছে এই নদী৷

জাতীয় ঐতিহ্য

নদী বিশেষজ্ঞরা বলছেন, হালদা নদী আমাদের প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ঐতিহ্য৷ বিশ্ব প্রাকৃতিক ঐতিহ্য ঘোষণার জন্য ইউনেস্কোর শর্ত অনুযায়ী হালদা নদী জাতীয় ঐতিহ্যের পাশাপাশি বিশ্ব প্রাকৃতিক ঐতিহ্যেরও যোগ্যতা রাখে৷ হালদা নদীকে জাতীয় প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ঐতিহ্য ঘোষণার দাবি অনেকদিন ধরেই জানিয়ে আসছেন তারা৷ হালদা নদী রক্ষা কমিটির মতে, প্রচারের অভাবে আমাদের দেশের অনেক প্রাকৃতিক সম্পদ সম্পর্কে আমরা জানি না৷ কক্সবাজার ও সুন্দরবন ছাড়া এ দেশে আরও অনেক প্রাকৃতিক সম্পদ আছে, যা নিয়ে আমরা বিশ্ব দরবারে ঐতিহ্যের দাবি জানাতে পারি৷ চট্টগ্রামের হালদা নদী তেমনি এক সম্পদ৷

পানি সম্পদ

হালদা নদী বাংলাদেশের বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রাম শহরের সুপেয় পানির প্রধান উৎস৷ পানির বিশেষ গুণগত মান ও পরিমাণের কথা বিবেচনা করে ১৯৮৭ সাল থেকে চট্টগ্রাম ওয়াসা মোহরা পানি শোধনাগারের মাধ্যমে প্রতিদিন প্রায় ২ কোটি গ্যালন পানি উত্তোলন করে শহরের সুপেয় পানির চাহিদা পূরণ করে আসছে৷ এ নদীর পানিতে হেভি মেটালের পরিমাণ বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার নির্ধারিত মান থেকে কম হওয়ায় বিশুদ্ধ ও সুপেয় পানির উৎস হিসাবে হালদা নদীর পানি বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ৷

হালদা নদীকে নিয়ে ওয়েবসাইট

নদী নিয়ে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে যে ওয়েবসাইটটি তৈরি হলো, সেটির নাম ‘হালদারিভার ডট ওআরজি'৷ এক কথায় নদীকে বাঁচিয়ে রাখার একটি মহৎ চেষ্টা৷ এই প্রক্রিয়ার প্রধান সমন্বয়ক এবং বলা যায় যার চেষ্টাতেই এই ওয়েবসাইটটি তৈরি হয়েছে তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. মনজুরুল কিবরিয়া৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বললেন, বাংলাদেশের একটি প্রাকৃতিক ঐতিহ্য হিসাবে এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে দেশবাসীকে হালদা নদী সম্পর্কে বিস্তারিত অবহিত করাই প্রথম উদ্দেশ্য৷ অন্যান্য উদ্দেশ্যে সম্পর্কে তিনি জানালেন, হালদা নদীর পরিবেশ এবং জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে জনগণের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করা৷ এ নদীর প্রথম পূর্ণাঙ্গ মৌলিক তথ্য ভাণ্ডার তৈরি করা যেখান থেকে ভবিষ্যতে হালদা নদী সংরক্ষণ, ব্যবস্থাপনা ও গবেষণায় সহায়ক হবে৷ দেশের জাতীয় ঐতিহ্য ঘোষণা করার মাধ্যমে বিশ্ব প্রাকৃতিক ঐতিহ্যের স্বীকৃতির পথ সুগম করাও একটি উদ্দেশ্য৷

লক্ষ্য- আরও এগিয়ে যাওয়া

তিনি বলেন, আমরা আশা করি সময়ের পরিক্রমায় এই ওয়েবসাইটটি উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি লাভ করবে৷ সে সঙ্গে হালদা নদীর ওয়েবসাইটের মাধ্যমে সমগ্র দেশবাসী যেমন এ নদী সম্পর্কে আরো ব্যাপকভাবে জানতে পারবে, তেমনি যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণের মাধ্যমে হালদা নদী জাতীয় প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ঐতিহ্য ঘোষিত হলে এর রক্ষণাবেক্ষণ এবং এখানে ডিম দিতে আসা ব্রুড মাছের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যাবে এবং এ নদী বিশ্ব প্রাকৃতিক ঐতিহ্যের স্বীকৃতি পাওয়ার পথেও এক ধাপ এগিয়ে যাবে বলেও উল্লেখ করলেন তিনি৷

প্রতিবেদন: সাগর সরওয়ার

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়