1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

‘নতুন বাবা-মায়েরা নিজেদের স্বাস্থ্যের প্রতি নজর দেন না’

নতুন বাবা-মা’র পক্ষে ছোট্ট সন্তান সামলানো বেশ কঠিন৷ নিয়মিত স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া এবং শরীর চর্চার মত বিষয় তখন গৌণ হয়ে পড়ে৷ নতুন একটি সমীক্ষায় বিষয়টি উঠে এসেছে৷

default

নতুন বাবা-মায়েদের একটিই চিন্তা, যমজ হলে দু’টি

যুক্তরাষ্ট্রের দেড় হাজারেরও বেশি প্রাপ্তবয়স্কদের উপর এই সমীক্ষা চালানো হয়েছে৷ আর এর ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে শিশুস্বাস্থ্য বিষয়ক পত্রিকা ‘পিডিয়্যাট্রিক্স' এ৷ সেখানে দেখা গেছে, যেসব পিতামাতার সন্তানের বয়স পাঁচ বছর কিংবা আরও কম, তাঁরা অন্যান্য দম্পতিদের চেয়ে সাধারণত কম শরীর চর্চা করে থাকেন৷ বিশেষ করে মায়েদের ক্ষেত্রে দেখা গেছে, তাঁদের সমবয়সী অন্যান্যদের চেয়ে অপেক্ষাকৃত কম স্বাস্থ্যকর খাবার খান৷

সমীক্ষামূলক গবেষণাটিতে নেতৃত্ব দিয়েছেন মিনিয়াপোলিসের ‘ইউনিভার্সিটি অফ মিনেসোটা মেডিকেল স্কুল'এর গবেষক জেরিকা বার্গ৷ বলেছেন, বাবা এবং মা উভয়ের ক্ষেত্রেই দেখা গেছে, তারা বাকি দম্পতিদের তুলনায় অপেক্ষাকৃত কম শারীরিক পরিশ্রম করেন৷

সমীক্ষায় যারা অংশ নিয়েছিলেন তাঁদের বয়স গড়ে ২৫ বছর৷ তাঁদের মধ্যে ১৪৯ জনের একটি করে শিশু সন্তান রয়েছে৷ সেখানে বলা হয়েছে, যাদের সন্তান রয়েছে তাঁরা শরীর চর্চা করার জন্য অন্যান্যদের চেয়ে কম সময় পান৷ একজন মা সপ্তাহে আড়াই ঘন্টার চেয়েও কম সময় পান শরীর চর্চা করার জন্য৷ যাদের সন্তান নাই এমন নারীরা সপ্তাহে ৩ ঘন্টার চেয়েও বেশি সময় ব্যয় করেন শরীর চর্চার জন্য৷ বাবাদের ক্ষেত্রে দেখা গেছে, সপ্তাহে সাড়ে পাঁচ ঘন্টার চেয়েও কম সময় ব্যয় করছেন শরীর চর্চায়৷ অথচ বাবা নয় – এমন সমবয়সী পুরুষরা শরীরচর্চার জন্য প্রায় সাত ঘণ্টা সময় ব্যয় করেন৷

খাবার গ্রহণের ক্ষেত্রে বাবাদের সঙ্গে অন্যান্য পুরুষের পার্থক্য দেখা না গেলেও ফারাকটা চোখে পড়ে মায়েদের বেলায়৷ মায়েরা অন্যান্য নারীদের তুলনায় প্রতিদিন অতিরিক্ত ৪০০ ক্যালরি খাবার গ্রহণ করেন৷ এবং তাঁদের মধ্যে মুটিয়ে যাওয়ার প্রবণতাটাও বেশি৷

জেরিকা বলেছেন, সামাজিক সমর্থন যেমন প্রতিবেশীদের সাহায্যও নতুন বাবা-মা'র স্বাস্থ্যসম্মত জীবনযাপনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে৷ তিনি বলেন, ‘শরীরচর্চা কী করতে পারে?' এই ধারণার পরিবর্তনও সাহায্য করতে পারে তাঁদের৷ সবশেষে জেরিকা বলেন, ‘‘ তার মানে এই নয় যে, তাঁদেরকে জিম বা শরীরচর্চা কেন্দ্রে যেতে হবে৷ সংসারের কাজের মধ্যে একটু সময় বের করে নেওয়া যেতে পারে৷ এমনকি বাইরে হাঁটতে বেরোনো যেতে পারে পরিবারের সঙ্গেই৷''

প্রতিবেদন: জান্নাতুল ফেরদৌস

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়