1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ধ্বংসস্তূপ থেকে ১৭ দিন পর রেশমাকে জীবিত উদ্ধার

১৭তম দিনে সাভারের রানা প্লাজার ধ্বংসস্তূপ থেকে জীবন্ত এবং পুরোপুরি সুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে রেশমা (২২) নামের এক পোশাক শ্রমিককে৷ এই ঘটনায় উদ্ধারকর্মীসহ পুরো দেশের মানুষ বিস্মিত হয়েছেন, হয়েছেন আনন্দিত৷

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই ঘটনাকে অভূতপূর্ব বলে উল্লেখ করেছেন৷

শুক্রবার বিকেল সোয়া ৩টার দিকে সেনাবাহিনীর উদ্ধারকর্মী রাজ্জাক ধসে পড়া ভবনের বেসমেন্টে বেঁচে থাকা মানুষের উপস্থিতি টের পান৷ রেশমা একটি ভাঙা পাইপ দিয়ে নিজের দিকে দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করেন এবং তাঁকে বাঁচানোর অনুরোধ জানান৷ আর তখন রাজ্জাক সুরঙ্গ দিয়ে তাঁকে দেখতে পান৷ মেয়েটি নিজের নাম জানান রেশমা৷

এরপরই রাজ্জাক উদ্ধারকারী দলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের তা জানালে, ভারী যন্ত্রপাতি দিয়ে উদ্ধার অভিযান বন্ধ করে রেশমাকে উদ্ধারের কাজ শুরু হয়৷ এই উদ্ধার কাজে সেনা, ফায়া সার্ভিস যৌথভাবে অংশ নেয়৷ স্বাভাবিকভাবেই, রেশমাকে বের করে না আনা পর্যন্ত সেখানে ছিল এক শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থা৷

Bangladesch Überlebende nach 17 Tagen gerettet

রেশমাকে উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে

রড কেটে ভিতরে ঢুকে বিকেল ৪টা ২৫ মিনিটে রেশমাকে বাইরে নিয়ে আসা হয়৷ তখন রেশমা স্মিত হাসি দেন৷ তাঁকে দ্রুত অ্যাম্বুলেন্সে করে সাভার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নিয়ে নিবিড় পরিচর্যায় রাখা হয়েছে৷ উদ্ধারকারী দলের নেতা কর্নেল মইন জানান যে, রেশমা এখন পুরোপুরি সুস্থ আছেন৷ এমনকি তাঁর শরীরের কাপড়ও অক্ষত আছে৷

রেশমাকে উদ্ধারের আগে উদ্ধারকারী রাজ্জাক কাছাকাছি গিয়ে তাঁর সঙ্গে বেশ কয়েকবার কথা বলেন এবং তাঁকে পানি ও জুস খেতে দেন৷

রাজ্জাক জানান, রেশমা বেসমেন্টে আটকা পড়লেও সেটা উপরের তলার মতো মিশে যায়নি৷ সেখানে হাঁটা চলা এবং নড়া চড়া করার কিছুটা সুযোগ ছিল৷ রেশমা তাঁকে জানান যে, ঐ জায়গায় বিভিন্ন ধরণের শুকনা ও জুস জাতীয় খাবার ছিল, যা তিনি খেয়েছেন৷ মঙ্গলবার শুকনা খাবার শেষ হয়ে যায় আর রসালো খাবার যায় পচে৷ ফলে গত দু'দিন ধরে তিনি অভুক্ত ছিলেন৷ এরপরেও অবশ্য সেখানে তাঁর শ্বাসপ্রশ্বাসের সমস্যা হয়নি৷

রেশমা তৃতীয় তলায় নিউ ওয়েভ গার্মেন্টস-এর অপারেটর৷ তবে সেখান থেকে সে কিভাবে বেসমেন্টে গেল, তা এখনও জানা যায়নি৷ উদ্ধারকারীরা জানান, তাঁকে চিকিত্‍সকরা পুরোপুরি সুস্থ ঘোষণার পর গণমাধ্যমকে তাঁর সঙ্গে কথা বলার সুযোগ দেয়া হবে৷

ধ্বংসস্তূপের নীচে রেশমার এই ১৭দিন বেঁচে থাকার ঘটনাকে ডয়চে ভেলের কাছে ব্যাখা করেছেন মিটফোর্ড হাসপাতালের চিকিত্‍সক অধ্যাপক ডা. মনি লাল আইচ৷ তিনি জানান, একজন মানুষ কোনো রকম খাবার বা পানীয় ছাড়া সর্বোচ্চ ৯০ ঘণ্টা বেঁচে থাকতে পারেন৷ যেহেতু সেখানে খাবার ও পানীয় ছিল তাই রেশমা বেঁচে গেছেন৷ আর যে কোনোভাবে সেখানে অক্সিজেনও ছিল৷ তবে এই ১৭ দিনে তিনি হৃদরোগ বা নিউরোলোজিক্যাল সমস্যায় পড়তে পারতেন৷ হয়ত মানসিক জোর এবং বেঁচে থাকার প্রবল ইচ্ছার কারণেই তাঁকে সেই সমস্যায় পড়তে হয়নি৷ তিনি জানান, গবেষণায় প্রমাণিত যে নারীদের মানসিক চাপ সহ্য করার ক্ষমতা পুরুষের তুলনায় অনেক বেশি৷

রেশমার বাবার নাম আনসার আলি৷ তাঁদের গ্রামের বাড়ি দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের কুশিগাড়ি গ্রামে৷ সাভারের বাজার রোডে ভাড়া বাসায় তিনি ও তাঁর স্বামী আব্দুর রাজ্জাক থাকেন৷ রেশমার কোনো সন্তান নেই৷

এদিকে, খবর পেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাভার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ছুটে যান রেশমাকে দেখতে৷ তিনি সেখানে রেশমাকে দেখে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন৷ রেশমার মা এবং ভাই-বোনকেও হাসপাতালে রেশমার কাছে নেয়া হয়েছে৷ সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের চিকিত্‍সক ডা. কর্নেল আজিজুর রহমান জানান, রেশমা স্বাভাবিকভাবেই কথাবার্তা বলছেন৷ এমনকি তিনি হাঁটাচলা করতেও পারছেন৷ বাইরে থেকে দেখে তাঁর শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি৷ তবে তাঁকে পুরোপুরি পরীক্ষা করে বলা যাবে যে, তিনি আদতে কতটা সুস্থ আছে৷

উদ্ধারকারী দলের কর্মকর্তা মেজর মোয়াজ্জেম জানান, পুরো বেসমেন্ট সার্চ করার পর তারা আবার ভারী যন্ত্রপাতি দিয়ে উদ্ধার অভিযান শুরু করবেন৷ তবে সেখানে আর কেউ জীবিত আছে কিনা তারা এখনও তা জানতে পারেননি৷

ওদিকে, রেশমাকে উদ্ধারের অভিযান বাংলাদেশের কয়েকটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল সরাসরি সমপ্রচার করে৷ দেশের মানুষ টিভি সেটের সামনে পিনপতন নিরবতায় তা প্রত্যক্ষ করেন৷ রেশমাকে বাইরে নিয়ে এলে শুধু সাভার নয়, সারা দেশের মানুষ আনন্দ প্রকাশ করে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন