1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ধূমকেতুর পুলক

সুদূর ১৯৬৯ সালে মানুষ চাঁদে যাবার পর থেকে কোনো মহাকাশ অভিযান এই পরিমাণ চাঞ্চল্য সৃষ্টি করতে পেরেছে কিনা সন্দেহ৷ ভিন্ন গ্রহে যাওয়ার স্বপ্ন যেন সফল হয়েছে – বলছেন ডয়চে ভেলে-র কর্নেলিয়া বরমান৷

অথচ রোজেটা মহাকাশ অভিযান গোড়া থেকেই নানা অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছিল৷ পরিবহণ রকেটের সমস্যার দরুন উৎক্ষেপণ এক বছর পিছিয়ে দিতে হয় – অর্থাৎ গোড়ায় যে ধূমকেতুর উপর নামার কথা ছিল, সে পরিকল্পনা ত্যাগ করতে হয়৷ তা সত্ত্বেও গবেষক এবং প্রযুক্তিবিদরা অতি কম সময়ের মধ্যে একটি বিকল্প ধূমকেতু খুঁজে বার করেছেন, যার ফলে রোজেটা অভিযান সংঘটিত হতে পেরেছে৷

একেই বলা হয় গবেষণার বাস্তবিক উৎসাহ ও প্রেরণা, জার্মানি তথা ইউরোপের মানুষদের দৈনন্দিন কর্মজীবনে যার ছোঁয়াচ কখনো-সখনো মেলে – তাই মানুষজনের এতো উন্মাদনা৷ এ বছরের জানুয়ারি মাসে রোজেটা-কে যখন তার আড়াই বছরের ‘শীতনিদ্রা' থেকে জাগিয়ে তোলা হয়, তখন ডার্মস্টাট-এর ইউরোপীয় স্যাটেলাইট নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রের বিজ্ঞানীরা সানন্দে পরস্পরকে আলিঙ্গন করেন৷ ফুটবল মাঠেও এ রকম উচ্ছ্বাস চোখে পড়ে কিনা সন্দেহ!

রোজেটা মহাকাশ অভিযান আমাদের নাড়া দেয়, কেননা এই পন্থায় আমরা মানব অস্তিত্বের কিছু বুনিয়াদি প্রশ্নের উত্তর খুঁজছি: জীবনের সূচনা কী থেকে এবং কী ভাবে? দার্শনিক বিচারে প্রশ্নটা এতোই গভীর ও গুরুত্বপূর্ণ যে, তার প্রযুক্তিগত দিক যতোই জটিল এবং ব্যয়সাপেক্ষ হোক না কেন, মানুষ তা মেনে নিতে রাজি৷

Deutsche Welle DW Cornelia Borrmann

কর্নেলিয়া বরমান; ডয়চে ভেলে

ডার্মস্টাট-এর ‘ইসক' কেন্দ্রের প্রযুক্তিবিদদের ক্ষমতাও মেনে না নিয়ে উপায় নেই৷ রোজেটা-র সুদীর্ঘ যাত্রাপথে তাকে পৃথিবী এবং মঙ্গলগ্রহের টান ছাড়িয়ে তবে এগোতে হয়েছে – পরিভাষায় যাকে বলে ‘সুইং বাই'৷ এই সুইং বাই থেকেই রোজেটা ছ'শো কোটি কিলোমিটারের বেশি পথ অতিক্রম করে চুরিউমভ গেরাসিমেঙ্কো বা ‘চুরি' ধূমকেতুর উপর নামতে পেরেছে৷ বলতে কি, সেই ‘নামতে পারাটাই' আসল কৃতিত্ব!

রোজেটা তার দশ বছরের যাত্রাপথে বহু অবিশ্বাস্য ছবি পাঠিয়েছে – নিজের ছবি, পৃথিবীর ছবি, মঙ্গলগ্রহের ছবি, আবার অ্যাস্টেরয়েড বা গ্রহাণুর ছবি৷ এছাড়া অবশ্যই ‘চুরি' ধূমকেতুর ছবি৷ এই সব ছবির মাধ্যমে কোটি কোটি কিলোমিটার দূরের একটি সাড়ে তিন কিলোমিটার বাই চার কিলোমিটার ধূমকেতুর জগতটা যেন আমাদের কাছাকাছি এসে পড়েছে! তারপর যখন শুনি, সেই বহুদূরের জগতটায় নাকি পৃথিবীর মতোই গন্ধ: পচা ডিমের মতো...