1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ইন্দোনেশিয়া

ধর্ষণ প্রতিরোধে মিনিস্কার্ট পরবে ইন্দোনেশিয়ার পুরুষরা

ইন্দোনেশিয়ার বেশিরভাগ পুরুষ মনে করেন রাস্তা-ঘাটে চলাফেরার সময় নারীরা মিনিস্কার্ট পরিধান না করলে ধর্ষণের ঘটনা অনেক কমে যাবে৷ তাই নারী অধিকার কর্মীরা পরিকল্পনা করছেন যে, পুরুষরা এর প্রতিবাদ হিসেবে মিনিস্কার্ট পরবেন৷

রয়টার্সের সাম্প্রতিক একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইন্দোনেশিয়ার নারীরা সবচেয়ে বেশি নির্যাতনের শিকার হয় পুরুষ সঙ্গীদের দ্বারা৷ ন্যাশনাল কমিশন অফ ভায়োলেন্স এগেইনস্ট উইম্যান বলছে, গত কয়েক বছরের মধ্যে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার এই দেশটিতে নারী নির্যাতনের ঘটনা অনেক বেড়েছে৷ প্রতিবেদন বলছে, ২৫ কোটি জনসংখ্যার এই দেশে ২০১৫ সালে ৩ লাখ ২১ হাজার নারীর উপর পারিবারিক ও যৌন নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে৷ ২০১০ সালে এই সংখ্যাটি ছিল ১ লাখ ৫ হাজার৷ কমিশন বলছে, বেশিরভাগ অভিযোগ করা হয় ধর্মীয় আদালতে৷ সরাসরি আদালতে গিয়ে রিপোর্ট করতে ভয় পান বেশিরভাগ নারী৷

জুলাই মাসে অনলাইনে একটি জরিপ করা হয়েছিল৷ সেখানে দেখা গেছে, ৯০ শতাংশ ধর্ষণের ঘটনা রিপোর্ট করা হয় না৷ মানবাধিকার কর্মীদের অভিযোগ সামাজিক বাধা-বিপত্তি এবং কুসংস্কারের কারণে থানা-পুলিশ করতে চায় না বেশিরভাগ নারী৷ নারী অধিকার কর্মী সায়ালদি সাহুদে জানালেন, এ ধরনের ঘটনা রিপোর্ট করা কতটা জরুরি সেটা নারীদের বোঝান তারা৷

এই গ্রুপটি নারী নির্যাতন রোধে পুরুষদের সম্পৃক্ত করার চেষ্টা করছে৷ সম্প্রতি এক সরকারি জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেছিলেন, নারীরা পাবলিক প্লেসে মিনিস্কার্ট না পড়লে যৌন হয়রানি ও ধর্ষণের ঘটনা অনেক কমে যাবে৷ ধর্ষণের কারণ হিসেবে নারীদের পোশাক এবং তারা নিজেদের কীভাবে উপস্থাপন করছে ও তাদের আচরণ প্রভাব রাখে বলে ধারণা তার৷ এর প্রতিবাদ স্বরূপ সায়ালদি ও তার দল ঠিক করেছেন মিনিস্কার্টই যদি ধর্ষণের কারণ হয়, তবে পুরুষরা মিনিস্কার্ট পরবেন৷ 

২০১৩ সালে জাতিসংঘ ইন্দোনেশিয়াসহ এশিয়ার ছয়টি দেশে একটি জরিপ চালিয়েছে৷ ১০ হাজার পুরুষের উপর করা এ জরিপে দেখা গেছে, অর্ধেকের বেশি পুরুষ তার নারী সঙ্গীকে শারীরিক বা যৌন হয়রানি করেছে৷ আর এদের মধ্যে ২৫ ভাগ কোন নারী বা মেয়েকে ধর্ষণ করেছে৷ ইন্দোনেশিয়ার সমাজে পুরুষ যদি বদরাগী এবং মেজাজি হয় তাহলে সমাজে তাদের খাতির করা হয় পুরুষ সিংহ বলে৷ ইন্দোনেশিয়ার ৮৫ ভাগ নারী তার পুরুষ সঙ্গীদের দ্বারা নির্যাতনের শিকার হন৷

পুরুষদের এই ধরনের নারী নির্যাতনবিরোধী প্রচারণাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছে জাতিসংঘ৷ তবে কেবল ইন্দোনেশিয়া নয়, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এখন নারী নির্যাতন প্রতিরোধে নানা ধরনের ক্যাম্পেইন চালাচ্ছেন পুরুষরা৷ কলম্বিয়ায় লিঙ্গ বৈষম্য দূর করতে পুরুষরা মঞ্চ নাটক এবং কনসার্টের মাধ্যমে বিভিন্ন স্থানে গিয়ে গিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন৷

ইন্দোনেশিয়ার সমস্যা হলো, নারী নির্যাতনের ঘটনাগুলো খুব স্বাভাবিকভাবে মেনে নেয়া হয় সমাজে৷ এটা কোনো প্রভাব ফেলে না তাদের স্বাভাবিক জীবনে৷ সায়ালদির অধিকার গ্রুপটির নাম ‘মেনস অ্যালিয়ান্স', যেখানে অনেক তরুণরাও প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন৷ এদেরই একজন ২৪ বছরের ফজর জাকরি বললেন, ‘‘একজন মানুষের দৃষ্টিভঙ্গিতেও যদি পরিবর্তন আনা যায়, তাহলেই অনেক বড় সাফল্য আমার জন্য৷''

ইন্দোনেশিয়ায় শিশু যৌন নির্যাতনকারীদের রাসায়নিকভাবে নপুংসক করা এবং ধর্ষকদের মৃত্যুদণ্ডের বিধান রয়েছে৷

এপিবি/ডিজি (থমসন রয়টার্স ফাউন্ডেশন)

ধর্ষণ প্রতিরোধে পুরুষরা মিনিস্কার্ট পরবে – ব্যাপারটা আপনাদের কেমন লাগলো? লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়