1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ব্লগওয়াচ

ধর্ষণ, নির্যাতন: এর শেষ কোথায়?

বগুড়ায় ধর্ষণের পর মা-মেয়েকে নির্যাতনের ঘটনায় ফুঁসছে বাংলাদেশ৷ একের পর এক এমন ঘটনায় রাস্তায় আন্দোলনের আহ্বান জানাচ্ছেন অনেকেই৷ আসামিরা গ্রেপ্তার হয়েছেন ঠিকই৷ কিন্তু বিচার হবে কিনা, সে নিয়েও সংশয়ের কথা জানাচ্ছেন কেউ কেউ৷

ধর্ষণের অভিযোগে বগুড়া শ্রমিক লীগের সভাপতি তুফান সরকার ছাড়াও গ্রেপ্তার হয়েছেন তার স্ত্রী আশা, স্ত্রীর বড় বোন পৌরসভার কাউন্সিলর রুমকি, শাশুরি রুমি খাতুনসহ ১০ জন৷

ধর্ষণের ঘটনা ধাপাচাপা দিতে ঐ ছাত্রী ও তার মাকে নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে তুফানের স্ত্রী ও স্ত্রীর বড় বোনের বিরুদ্ধে৷

প্রভাবশালী হলেও দ্রুততার সাথে আসামিদের গ্রেপ্তার করায় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন অনেকেই৷ কিন্তু সেই সাথে রয়েছে সংশয়ও৷ কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্টে তনু ধর্ষণ ও হত্যা এবং বনানীর হোটেলে ধর্ষণ মামলার মতো বিভিন্ন ঘটনার উদাহরণ দেখাচ্ছেন অনলাইন অ্যাকটিভিস্টিরা৷

ফেসবুকে ফড়িং ক্যামেলিয়া মহিলা পরিষদের একটি পরিসংখ্যান দিয়েছেন৷ ২০০৮ সাল থেকে গত বছর পর্যন্ত আট বছরে ধর্ষণের শিকার ৪ হাজার ৩০৪ জনের মধ্যে ৭৪০ জনকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে৷ এর মধ্যে বিচার হয়েছে হাতে গোনা কয়েকটি মামলার৷ এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তিনি৷ 

নিজের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার দেশ মধ্যযুগে ফিরে যাচ্ছে বলেও মন্তব্য করেছেন৷ এজন্য তিনি দায়ী করছেন আওয়ামী লীগকে

কিছু কিছু গণমাধ্যমে ধর্ষিতা ও তার মায়ের ছবি প্রকাশ করা হয়েছে৷ অনলাইন যোগাযোগের মাধ্যমে এরও প্রতিবাদ করছেন অনেকে৷ প্রশ্ন তুলছেন সাংবাদিকতার নৈতিকতা না মানার৷

বাংলাদেশের একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের রিপোর্টার মফিদুল আলম খান তপু এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন৷ ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, ‘‌‘‌যেসব নিউজ‌পোর্টাল নির্যাত‌নের ‌শিকার মা মে‌য়ের চেহারা ছে‌পে‌ছে, সাংবা‌দিকতার নৈ‌তিকতা বিব‌র্জিতভা‌বে, প্লিজ তা‌দের বিরু‌দ্ধে ৫৭ ধারায় মামলা ক‌রেন৷ এরা য‌দি সাংবা‌দিক হয়, আর সেটা য‌দি বিনা প্রতিবাদে মে‌নে নেই, তাহ‌লে নী‌তি নৈ‌তিকতা, প্রেস কাউন্সিল না‌মের শব্দগুলা শব্দ‌কোষ থে‌কে বাদ দেয়া উচিত৷''

বগুড়ায় বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা এই ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছেন, দ্রুত বিচারের দাবি নিয়ে নেমেছেন রাস্তায়৷ প্রতিবাদ চলছে দেশের অন্যান্য এলাকাতেও৷

এ ধরনের প্রায় প্রতিটি ঘটনাতেই বিচারহীনতার সংস্কৃতিকে দায়ী করেন সবাই৷ এবারও ব্যতিক্রম নয়৷ সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ধর্ষণ-নির্যাতনের ঘটনাগুলোর দ্রুত ও দৃষ্টান্তমূলক বিচার হলে এমন ঘটনা অনেকটাই কমে যেতো বলে মনে করছেন অনেকে৷

সংকলন: অনুপম দেব কানুনজ্ঞ

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

এ বিষয়ে আপনি কী ভাবছেন? মন্তব্য করুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক