1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ধর্ষণের পরেও ধর্ষিতা নারীর গ্লানি শেষ হয় না

ধর্ষণের পরেও ধর্ষিতা নারীর যন্ত্রণা শেষ হয় না৷ ধর্ষণ যেহেতু এক শাস্তিযোগ্য ফৌজদারি মামলা, তাই এর মেডিক্যাল পরীক্ষার দ্বারা তথ্যপ্রমাণ নথিভুক্ত করার যে সব নিয়ম কানুন আছে, তাতে নারীত্বের সম্মান ও মর্যাদা ভূলুণ্ঠিত হয়৷

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার এমন প্রেক্ষাপটে ধর্ষিতা ও নিগৃহীতা নারীর মেডিক্যাল পরীক্ষাকে সম্মানজনক ও সংবেদনশীল করে তুলতে নতুন নির্দেশিকা জারি করেছে৷ গোটা দেশে তা কার্যকর হবে৷ এই প্রসঙ্গে অন্য একটা প্রশ্ন নতুন করে উঠে এসেছে৷ ধর্ষিতা নারীকে সমাজের প্রতিটি স্তরে যে মানসিক যন্ত্রণার শিকার হতে হয় সেটা কি বন্ধ করা যায় না? পুলিশ থেকে আরম্ভ করে গোটা সমাজ ধর্ষিতার দিকেই প্রথমে আঙুল তোলে৷ ধর্ষিতা বা নিগৃহীতা নারীকে এমন সব প্রশ্ন এবং পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়, যে তাতে তাঁর লজ্জা, অপমান, গ্লানি ও অবসাদের মাত্রা বেড়ো যায় বহুগুণ৷ এমন ঘটনা বিরল নয়, যেখানে সেই যন্ত্রণা সহ্য করতে পেরে ধর্ষিতাকে আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে হয়৷ অথচ আমাদের সমাজ এমনই, কেউ তাঁকে সাহস জোগাতে মানসিক শক্তি জোগাতে এগিয়ে আসে না৷ পুনর্বাসনের কথা বলে না, রাতারাতি সমাজ তাঁকে ব্রাত্য ঘোষণা করে দেয়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চের সহায়তায় তৈরি নতুন নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, ধর্ষিতা নারীর মেডিক্যাল পরীক্ষার জন্য রাখা হবে আলাদা ঘর৷ ডাক্তারি পরীক্ষার সময় হামেশাই হাসপাতালে এমন এক অবাঞ্ছিত পরিস্থিতি তৈরি হয়, যেখানে ডাক্তার থেকে আরম্ভ করে হাজারটা কৌতূহলী চোখ পরীক্ষার দিকে তাকিয়ে থাকে৷ তাই ঠিক হয়েছে ডাক্তার পুরুষ হলে তাঁর সঙ্গে থাকবেন একজন মহিলা কর্মী বা নার্স৷ নিষিদ্ধ করা হয়েছে টু-ফিঙ্গার টেস্ট৷ সেটা হলো মহিলাদের যোনিমুখে আঙুল ঢুকিয়ে দেখা হয়, তাঁর সতীচ্ছদ বা হাইমেন অক্ষত আছে কি না৷ তা থেকেই বোঝা যাবে সে ধর্ষিতা হয়েছে কি না৷ কিন্তু এটা তো অবাস্তব বলে আমার মতো অনেকেরই মনে হয়৷ ডাক্তারদের অনেকের মতে সতীচ্ছদ ছিন্ন হতে পারে নানা কারণে৷ দ্বিতীয়ত বিবাহিতা মহিলা ধর্ষিতা হলে টু-ফিঙ্গার পরীক্ষায় কি তা প্রমাণিত হবে? বরং শারীরিক পরীক্ষার নামে দফায় দফায় আরো বেশি লজ্জা ও যন্ত্রণা সহ্য করতে হয়৷

আসলে আমাদের সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গিটীই বিচিত্র৷ প্রত্যেকেই নিজের ব্যাখ্যা অনুযায়ী ধর্ষণকান্ডের কাটা-ছেঁড়া করতে ভালবাসি৷ তার ফাঁক গলে পার পেয়ে যায় প্রকৃত অপরাধী বেশিরভাগ ক্ষেত্রে৷ এক এক সময় তাই মনে হয়৷ বিশেষ করে ভারতীয় সমাজে মেয়ে হয়ে জন্মানো যেন একটা পাপ৷ কারণ জন্ম থেকে কিংবা ভূমিষ্ঠ হবার আগে থেকেই শুরু হয়ে যায় মেয়েদের জীবন যন্ত্রণা৷ কন্যাভ্রূণ হত্যা থেকে শুরু করে লিঙ্গ-বৈষম্যের বলি হতে হয় জীবনের প্রতিটি পর্বে৷ দেহ ভোগ করতে না দিলে বান্ধবীর মুখে অ্যাসিড ছুড়ে মুখ বিকৃত করে প্রতিহিংসা মেটায় তাঁর ছেলে বন্ধু৷ বিয়েতে যথেষ্ট যৌতুক না দিলে জীবন্ত জ্বালিয়ে দেয় মেয়েটির স্বামী ও শ্বশুড়বাড়ির লোকজন, সতীদাহের নবতম সংস্করণ৷

Bildgalerie Bengali Redaktion - Anil Chatterjee

ডয়চে ভেলের নতুন দিল্লি প্রতিনিধি অনিল চট্টোপাধ্যায়

আইন আছে, প্রশাসন আছে, পুলিশ আছে, কিন্তু তাতে কিছু আটকায় না৷ অথচ পরিহাস বলে মনে হয় যখন দেখি ভারতীয় সমাজে নারীকে বসানো হয়েছে দেবীর আসনে৷ পূজা করা হয় দেবী শক্তির৷ যেখানেই যাই দেখি অন্তত ১০টা মন্দিরের মধ্যে সাতটা মন্দিরেই প্রতিষ্ঠিত আছে দেবী মূর্তি৷ সকাল সন্ধ্যায় ধুপ ধুনো, ফুল বেলপাতা দিয়ে পুজোর পর প্রসাদ বিতরণ করা হয়৷ আর জীবন্ত দেবী পড়ে থাকে ঘরের কোণে অনাদরে বেশিরভাগ সংসারে৷ তখন নারী অধিকার, নারী শিক্ষা, নারী স্বাধীনতাকে মনে হয় কথার কথা৷ হাতে গুণে বলা যায় ভারতে কতজন ধর্ষকের শাস্তি হয়েছে৷ হয়ত এমনটাতেই আমরা অভ্যস্ত হয়ে যাচ্ছি৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়