1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

‘‘ধর্মের চেয়ে রাজনীতিই বেশি দায়ী''

হিন্দুদের ওপর বীভৎস হামলা কি আপনাকে ব্যথিত করে? এই প্রশ্নের উত্তরে ফেসবুকে হেলাল আহমেদের মন্তব্য, ‘‘অবশ্যই ব্যথিত হই, কিন্তু যখন দেখি সঠিক তদন্ত না করে দায়সারাভাবে কারো ওপর দায় চাপানো হয় তখন বেড়ে যায় ব্যথা৷''

আসিফ বিন হারুনের মন্তব্য, ‘‘অবশ্যই! ওরা আমাদেরই মা-বোন৷ যারাই ওদের উপর অত্যাচার করছে আল্লাহ তাদের বিচার করবে!''

আবদুল ফারুক লিখেছেন, ‘‘না ভাই, ইসলাম কখনো অন্য ধর্মের ওপর আক্রমণ করার অনুমতি দেয় না৷ এখন যা হচ্ছে তার জন্য ধর্মের চেয়ে রাজনীতিই বেশি দায়ী৷''

মুনমুন লিখেছেন, ‘‘কি বলব? ঐ পারে হিন্দুরা মুসলিমদের মারে, এই পারে মুসলিমরা হিন্দুদের মারে, কাকে ভাল বলব? তবে সাম্প্রদায়িকতার বলি হয় সব সময় দরিদ্ররা, তা সে হিন্দু বা মুসলিম যেই হোক৷ ওপারের কথা জানি না তবে এই পারের অবস্থা দেখে মনে হয় পাকিস্তানিরা বুঝি আবার এদেশ দখল করতে চাচ্ছে৷ কিন্তু মুক্তিযোদ্ধারা শুধু নেই, এবার কে কাকে বাঁচাবে?''

মুহাম্মদ মুর্শেদুল হক ফেসবুকে তাঁর মতামত জানিয়েছেন এভাবে, বেআইনি কোনো হামলা সমর্থনযোগ্য নয়, তা হিন্দুর উপর হোক আর মুসলিমের উপর৷ তবে হামলাটি হিন্দুর উপর হলো, না মুসলিমের উপর হলো সেভাবে না দেখে মানুষের উপর হলো কিনা তা দেখা উচিত৷ যে-কোনো হামলাকে ধর্মীয় রূপ দেয়ার চেষ্টা এক ধরনের সাম্প্রদায়িক উস্কানি৷ ‘‘আমার ক্ষোভ প্রকাশের কারণটি বলি, হামলার বীভৎস রূপটি যে শুধু হিন্দুদের উপর হামলার মধ্যে পাওয়া গেছে তা নয়৷ পাঠকরা সোশ্যাল মিডিয়ার কল্যাণে দেখেছেন সাম্প্রতিক সময়ে সাতক্ষীরা, লক্ষীপুর, বগুড়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, মেহেরপুরের মুসলিম জনতার উপর যৌথবাহিনীর বর্বরতার বীভৎস দৃশ্যও৷ এই দৃশ্যগুলো হিন্দুদের উপর হামলার থেকেও বেশি বীভৎস ছিল৷''

নিয়মিত ফেসবুকে নিজেদের মন্তব্য তুলে ধরার জন্য পাঠক বন্ধুদের অনেক ধন্যবাদ৷ এভাবেই সবসময় ডিডাব্লিউ-র সাথে থাকবেন, কেমন?

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

নির্বাচিত প্রতিবেদন