1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘ধর্মীয় মৌলবাদীরা আমার স্বামীকে হত্যা করেছে’

বাংলাদেশের ধর্মীয় মৌলবাদীরা নাস্তিক ব্লগার অভিজিৎ রায়কে হত্যা করেছে, এমনটাই দাবি করেছেন তাঁর স্ত্রী রাফিদা বন্যা আহমেদ৷ ডয়চে ভেলেকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে একথা বলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসারত আহমেদ৷

বইমেলা থেকে ফেরার পথে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে দুর্বৃত্তের হামলার শিকার হন ব্লগার অভিজিৎ রায় এবং তাঁর স্ত্রী রাফিদা বন্যা আহমেদ৷ দুর্বৃত্তরা চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন লেখক রায়কে, যিনি মুক্তমনা ব্লগের প্রতিষ্ঠাতা৷ হামলায় আহমেদও একটি বৃদ্ধাঙ্গুল হারান৷ তাঁর মাথায়ও কুপিয়েছে দুর্বৃত্তরা, যারা আসলে কোনো উগ্র ইসলামপন্থি গোষ্ঠীর সদস্য বলেই বিশ্বাস অনেকের৷

রাফিদা বন্যা আহমেদ নিজেও লেখক, ব্লগার৷ মুক্তমনা ব্লগে লেখেন তিনি৷ অভিজিৎ হত্যাকাণ্ডের দু'মাস পূর্তিতে ডয়চে ভেলেকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, এটা পরিষ্কার যে অভিজিৎকে তাঁর লেখালেখির কারণেই ধর্মীয় মৌলবাদীরা হত্যা করেছে৷ তিনি ব্লগ লেখার পাশাপাশি দশটি বইও লিখেছেন৷

Blogger Avijit Roy ###ACHTUNG SCHLECHTER QUALITÄT###

অভিজিৎ রায়

মুক্তমনা এই ব্লগার সাধারণত একুশে বইমেলার সময় বাংলাদেশ বেড়াতে যেতেন৷ বইমেলায় তাঁর বই প্রকাশ হতো৷ গত ফেব্রুয়ারিতেও সে কারণেই দেশে যাওয়া তাঁর৷ তবে এবার পরিস্থিতি ভিন্ন ছিল৷ ইন্টারনেটে তাঁকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছিল৷ ফারাবি শফিউর রহমান নামের একজন উগ্র ইসলামপন্থি তাকে বাংলাদেশে গেলে হত্যা করা হবে বলে প্রকাশ্যে হুমকি দেয়৷ আহমেদ জানান, রহমানের পরিচয় এবং কর্মকাণ্ড পর্যালোচনা করে সেই হুমকিকে তাঁরা আসলে তেমন গুরুত্ব সহকারে নেননি৷

তবে আহমেদ মনে করেন, বাংলাদেশ মুক্তমনা ব্লগারদের জন্য আর নিরাপদ নেই৷ গত এক দশকে কয়েকজন মুক্তমনা লেখক খুন হয়েছেন৷ অভিজিতের পর ওয়াসিকুর রহমান নামের আরেক ব্লগার খুন হন৷ তাই তিনি মনে করেন, সরকারের এগিয়ে আসতে হবে মুক্তমনাদের রক্ষা করতে৷ এ ধরনের হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানাতে হবে, ধর্মীয় মৌলবাদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নিতে হবে৷

বলাবাহুল্য, অভিজিৎ হত্যাকাণ্ডের পর কোনো ধরনের নিন্দা জানাননি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ এই বিষয়ে কোনো মন্তব্যই করেননি তিনি৷ তবে বিভিন্ন পর্যায় থেকে এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ করা হয়েছে, যা অভিজিতের কাজের ফসল বলেই মনে করেন তিনি৷ গত এক দশকের বেশি সময় ধরে বাংলাদেশে ধর্ম নিরপেক্ষ পরিবেশ তৈরির চেষ্টা করেছেন তিনি৷ ধর্মীয় মৌলবাদের বিরুদ্ধে ছিলেন সক্রিয়৷ বাংলাদেশের রক্ষণশীল সমাজে অভিজিতের কাজ ভালো প্রভাব তৈরি করেছে বলেই মনে করেন আহমেদ৷

বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসাধীন রয়েছেন রাফিদা বন্যা আহমেদ৷ ডয়চে ভেলের দ্য বব্স প্রতিযোগিতার সামাজিক পরিবর্তন বিভাগে এ বছর মুক্তমনায় তাঁর ব্লগকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে৷ ভবিষ্যতে এই মনোনয়ন তাঁকে সহায়তা করবে বলে জানিয়েছেন আহমেদ৷ পাশাপাশি ধন্যবাদ দিয়েছেন ডয়চে ভেলেকে, অভিজিৎ হত্যাকাণ্ড নিয়ে নিয়মিত প্রতিবেদন প্রকাশের জন্য৷

আরাফাতুল ইসলাম

দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়