1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

দ্রাগির দাওয়াইয়ে খুশি ইউরোপের বাজার

ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদের হার আরও কমিয়ে সম্প্রতি যে সব পদক্ষেপ নিয়েছে, তার সরাসরি সুফল এবার দেখা যাচ্ছে ইউরোপের অর্থনীতি জগতেও৷ পুঁজিবাজার চাঙ্গা হয়ে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে রাজনৈতিক নেতাদের কাছে বেড়ে চলেছে প্রত্যাশাও৷

গত সপ্তাহে ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদের হার রেকর্ড মাত্রায় কমানোর ফলে পুঁজিবাজার বেশ চাঙ্গা হয়ে উঠেছে৷ বন্ড বাজারেও গতি এসেছে৷ অর্থাৎ অর্থনীতিকে উজ্জীবিত করতে ইসিবি-র দাওয়াই বেশ কাজ করছে৷ সুদের নিম্ন হারের ফলে বিনিয়োগ বেড়ে যাচ্ছে৷ মার্কিন ডলারের তুলনায় ইউরো-র বিনিময় মূল্যও অনেক কমে গেছে, যা ইউরোপ থেকে রপ্তানির জন্য সহায়ক হতে পারে৷ তবে প্রায় তিন দিন একটানা উন্নতির পর মঙ্গলবার পুঁজিবাজার আবার কিছুটা থমকে গিয়েছিল৷

এই অবস্থায় প্রশ্ন উঠছে, ইউরোপের অর্থনীতি জগতের জন্য এই প্রবণতা কতটা স্থিতিশীল? ইসিবি-র প্রধান মারিও দ্রাগি আর্থিক ও অর্থনৈতিক সংকটের শুরু থেকেই বেশ সক্রিয় ভূমিকা পালন করে এসেছেন৷ ফলে ইসিবি-র পদক্ষেপ ও মন্তব্য বাজারকে বার বার শান্ত করেছে, ইউরোপের প্রতি আস্থা বজায় রাখতে সাহায্য করেছে৷ কিন্তু সমস্যা দেখা দিচ্ছে ইউরোপের রাজনৈতিক নেতৃত্বকে নিয়ে৷ বাজার যে রকম স্পষ্ট, ধারাবাহিক নীতি দেখতে চায়, প্রত্যাশা অনুযায়ী সেটা ঘটছে না৷ তার উপর গত মাসে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট নির্বাচনে ইইউ-বিরোধী ভোটের মাত্রার কারণে দুশ্চিন্তা বাড়ছে৷

অর্থনীতিকে দীর্ঘমেয়াদি ভিত্তিতে চাঙ্গা করতে যে কাঠামোগত অর্থনৈতিক সংস্কার এবং সদস্য দেশগুলির নীতির মধ্যে যে সমন্বয়ের প্রয়োজন, শীর্ষ নেতারা সেই সব পদক্ষেপ নিতে পারবেন কিনা, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে৷ এখনো পর্যন্ত তাঁরা অবশ্য কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছেন৷ যেমন আর্থিক উদ্ধার তহবিল গঠন, জাতীয় স্তরে আর্থিক নীতির ক্ষেত্রে আরও কড়া নিয়ম চালু করা, কেন্দ্রীয় ব্যাংকিং তত্ত্বাবধায়ক কর্তৃপক্ষ সৃষ্টি করা ইত্যাদি৷ আসলে তাঁরা কিছুটা উভয় সংকটে পড়েছেন৷ একদিকে ঐকমত্যের ভিত্তিতে এবং জনসমর্থন নিয়ে তাঁদের সিদ্ধান্ত নিতে হয়৷ অন্যদিকে কাঠামোগত নীতির রূপায়ণ করতে হলে ব্রাসেলস-এর হাতে আরও ক্ষমতা তুলে দিতে হয়৷ এই দুইয়ের মধ্যে ভারসাম্য আনাই মূল চ্যালেঞ্জ৷

এই প্রেক্ষাপটে সংকটগ্রস্ত দেশগুলির ভূমিকাও চোখে পড়ার মতো৷ যে সব দেশকে বেলআউট নিতে হয়েছিল, গ্রিস ও সাইপ্রাস ছাড়া বাকি সবাই আবার পুরোপুরি আর্থিক বাজারে প্রবেশ করতে পেরেছে৷ গ্রিসও পাঁচ বছরের বন্ড বাজারে ছেড়েছে৷ সংস্কার ও বাজেট সামলানোর পদক্ষেপের কারণেও বাজারে এই সব দেশের প্রতি আস্থা বাড়ছে৷ শুধু বেকারত্বের মোকাবিলার ক্ষেত্রে কিছু দেশ অগ্রগতি দেখাতে পারছে না৷ বিশেষ করে স্পেন ও গ্রিসের পরিস্থিতি সবচেয়ে কঠিন৷ তাছাড়া এই সব দেশের বিপুল ঋণভার ধীরে ধীরে কমাতে হবে৷ অন্যদিকে বেলআউট-এর প্রয়োজন না হলেও ফ্রান্স ও ইটালিতে সংস্কারের অভাবের কারণে অর্থনীতির বেহাল অবস্থা৷ ইটালি কিছু পদক্ষেপ নিচ্ছে, কিন্তু ফ্রান্সের অবস্থা নিয়ে দুশ্চিন্তা বাড়ছে৷

এসবি/ডিজি (ডিপিএ, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন