1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে ভয় কেন জার্মানির?

যাঁরা দ্বৈত নাগরিকত্বের বিরোধিতা করেন, তাঁরা বলেন যে এটা গণতন্ত্রের বিরোধী৷ কিন্তু ডয়চে ভেলের সোরান আরবুটিনা বলছেন, এটা এক ধরনের সস্তা প্রচারণা, বাস্তবতাকে উপেক্ষা করা ছাড়া আর কিছুই নয়৷

জার্মানিতে দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে মতপার্থক্য রয়েছে৷ এর বিরোধীরা বলে থাকেন, দ্বৈত নাগরিকত্বের কারণে নাগরিকরা দুই দেশের জন্য সমানভাবে ভাবতে বা কাজ করতে পারে না৷ তাই এক্ষেত্রে এক ধরনের দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়৷ বলা বাহুল্য, দ্বৈত নাগরিকত্বের বিরোধীরা বরাবরই আতঙ্ক তৈরিতে ব্যস্ত৷ এটা যেন এক ধরনের স্বৈরশাসন৷ তাঁরা দ্বৈত পার্সপোর্টধারীদের গণতন্ত্রের জন্য হুমকি বলে মনে করেন৷

তবে এই বিরোধ যাঁরা মার্কিন বংশোদ্ভূত জার্মান এবং ট্রাম্পের সমর্থক, তাঁদের নিয়ে নয়৷ ফরাসি-জার্মানদের মধ্যে যাঁরা মারিন ল্য পেন বা ‘ন্যাশানাল ফ্রন্ট'-এর সমর্থক, তাঁদের নিয়েও নয়৷ এমনকি ৬ লাখ ৯০ হাজার ডানপন্থি পোলিশ-জার্মান বা কাসিনস্কি-ভক্ত অথবা ৫ লাখ ৭০ হাজার রুশ-জার্মান যাঁরা পুটিনকে পছন্দ করেন, তাঁদের নিয়েও কোনো সমস্যা নেই৷ মূল সমস্যা হলো ৫ লাখ ৩০ হাজার তুর্কি-জার্মানদের নিয়ে, যাঁরা এর্দোয়ানকে সমর্থন করে৷

তাঁকে নিয়েই এ মুহূর্তে মেতে আছে জার্মানি৷ সাম্প্রতিক কিছু ঘটনার রেশ ধরে জার্মানদের একটা বড় অংশ মনে করে যে, ইউরোপের গণতন্ত্রের জন্য এর্দোয়ান হুমকিসরূপ এবং তাঁকে সবার ভয় পাওয়া উচিত৷ আর শুধু তাঁকেই নয়, তাঁর বাহিনী বা সমর্থক, অর্থাৎ তুর্কি-জার্মানদের থেকেও দূরে থাকা ভালো৷

অথচ বর্তমান ইউরোপীয় ইউনিয়নের আইনে দ্বৈত নাগরিকত্ব বৈধ৷ যার অর্থ, ইইউ নাগরিকদের এ থেকে বঞ্চিত করা উচিত নয়৷

অবশ্য তুর্কি-জার্মানদের দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে সমস্যা বা আলোচনার প্রধান কারণ তুর্কিরাই৷ এই যেমন, ২০১১ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, জার্মানির ৪৩ লাখ মানুষের দু'টি পাসপোর্ট আছে৷ এরা প্রধানত জার্মানির নাগরিক, তবে পাশাপাশি অন্য আর একটি দেশেরও নাগরিক৷ দেখা যাচ্ছে, এঁদের মধ্যে ৫ লাখ তুর্কি৷ এর বাইরে ১৫ লাখ তুর্কি জার্মানিতে জার্মান পাসপোর্ট ছাড়াই বসবাস করছে৷ বাকি ৮ লাখ তুর্কির কেবলমাত্র জার্মান পাসপোর্ট রয়েছে৷ অর্থাৎ শতকরা মাত্র ২০ ভাগ তুর্কির দু'টি পাসপোর্ট রয়েছে৷ তাহলে এ অবস্থা জার্মানির গণতন্ত্রের জন্য কীভাবে হুমকি হয়ে উঠবে?

দু'সপ্তাহ আগে কোলনে এর্দোয়ান সমর্থকদের সমাবেশের পরই এই আলোচনাকে উসকে দিয়েছে জার্মানরা৷ ঐ সমাবেশে ৩০ থেকে ৪০ হাজার তুর্কি যোগ দিয়েছিল৷ আর সেই ৪০ হাজার তুর্কির যদি দ্বৈত নাগরিকত্ব থেকে থাকে, তাতে জার্মানির গণতন্ত্রের কি এমন ক্ষতি হবে?

সোরান আরবুটিনা

সোরান আরবুটিনা, ডয়চে ভেলে

আসলে জার্মানিতে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সংখ্যা বেড়ে যাওয়াতেই মূলত এই প্রশ্নগুলো উঠছে৷ ভিন্ন ভাষাভাষি, ভিন্ন সংস্কৃতির মানুষের কাছে স্বস্তির জায়গাটা হলো দ্বৈত নাগরিকত্ব৷ কিন্তু সেটা পাওয়া না গেলে, অর্থাৎ কাউকে যদি শুধুমাত্র জার্মান নাগরিকত্ব দেওয়া হয়, তার মানে এই নয় যে, তাঁকে জোর করে জার্মানিকে ভালোবাসতে হবে৷ নিজের দেশপ্রেমকে বিসর্জন দিয়ে অন্য দেশের প্রতি পূর্ণ আনুগত্য দেখাতে হবে৷ দ্বৈত নাগরিকত্ব পেলেও কাউকে জোর করা যাবে না জার্মানির একজন হয়ে ওঠার জন্য৷ আমার তো মনে হয়, তুমি জোর করে কাউকে ধর্ষণ হয়ত করতে পারো, কিন্তু ভালোবাসা পেতে পারো না৷

আধুনিক গণতন্ত্রের মতবাদ হলো মুক্ত সমাজ৷ নাগরিকরা মুক্তভাবে নিজের মনের ভাব প্রকাশ করতে পারলে, স্বাধীনভাবে চলাফেরা করতে পারলে, সেটাই হবে গণতন্ত্রের বহিঃপ্রকাশ৷ আর সেজন্য যদি দ্বৈত নাগরিকত্বের প্রয়োজন হয়, তবে তা দেওয়া হবে না কেন?

বন্ধু, আপনি কি লেখকের সঙ্গে একমত? এ বিষয়ে আপনার মতামত লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়