1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

দ্বিতীয় দফা ভোটে গড়ালো ব্রাজিলের নির্বাচন

শেষপর্যন্ত রবিবারে অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া ব্রাজিলের নির্বাচনটি অমীমাংসিতভাবে দ্বিতীয় দফা ভোটের দিকেই গড়ালো৷ ব্রাজিলের সুপ্রিম ইলেক্টরাল ট্রাইবুন্যাল অক্টোবরের ৩১ তারিখে সেদেশের দ্বিতীয় দফা ভোটের কথা ঘোষণা করেছে৷

default

ব্রাজিলের জনপ্রিয় প্রেসিডেন্ট লুলা দা সিলভা

এবারের নির্বাচনে ৯৮ শতাংশ ভোট পড়েছে৷ এর মধ্যে প্রেসিডেন্ট লুইস ইনাসিও লুলা দা সিলভা'র সাবেক ক্যাবিনেট প্রধান ডিলমা রুসেফ পেয়েছেন ৪৭ শতাংশ এবং নিকটতম প্রতিদ্বন্দী জোসে সেরা পেয়েছেন ৩৩ শতাংশ ভোট৷ আর সবাইকে অবাক করে দিয়ে গ্রিন পার্টির মারিনা সিলভা পেয়েছেন ১৯ শতাংশ ভোট৷ ক্ষমতাসীন দলের মনোনীত প্রার্থী ডিলমা রুসেফ দলের পক্ষে ৫০ শতাংশ ভোট টানতে না পারার কারণেই এই দ্বিতীয় দফা নির্বাচন৷

No Flash Präsidentschaftswahlen in Brasilien Jose Serra

নিকটতম প্রতিদ্বন্দী জোসে সেরা

ব্রাজিলে লুলার জনপ্রিয়তা ঈর্ষণীয়৷ অত্যন্ত সাধারণ একটি জীবন থেকে উঠে আসা এই মানুষটি নির্বাচনে জিতে সেদেশের সকল রাজনৈতিক পক্ষকে সঙ্গে নিয়েই এগিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন, বাস্তবে তা সম্ভবও করেছিলেন৷ কিন্তু দ্বিতীয়বার নির্বাচিত হলে পরবর্তীতে আর প্রতিদ্বন্দিতা করার বিধান না থাকায় এবারে তার দলের প্রার্থী ছিলেন ডিলমা রুসেফ৷

লুলা'র সযত্নে সাজানো মসনদে আরোহণ করতে না পারাটা ডিলমা'র জন্য এক ব্যর্থতাই বটে, কেননা ব্রাজিলের আজকের এই অবস্থানে আসার পেছনে লুলা অসাধারণ ভূমিকা রেখেছেন৷ সঙ্গত কারণেই ডিলমার এই ৫০ শতাংশ ভোট না পাওয়ার বিষয়টিতে অনেকে বিস্মিত হয়েছেন৷ যেমন বিস্মিত হয়েছেন গ্রিন পার্টির প্রার্থী মারিনা সিলভা'র ১৯ শতাংশ ভোট পাওয়ায়৷ উল্লেখ্য, ব্রাজিলে নাগরিকদের ভোট দেওয়ার বিষয়টি বাধ্যতামূলক৷

Dilma Rousseff und Marina Silva

প্রতিদ্বন্দী ডিলমা রুসেফ বাঁয়ে এবং মারিনা সিলভা, ডানে

মারিনা ক্ষমতাসীন দলটির পরিবেশ মন্ত্রী ছিলেন৷ মতবিরোধের কারণে পদত্যাগী মারিনা খুব ক্লেশকর এক জীবন থেকে উঠে এসেছিলেন৷ একসময় রবার বাগানে কাজ করতেন৷৷ পড়াশোনা করে নিজের যোগ্যতাতেই আজকের অবস্থানে এসেছেন তিনি৷ পরে সংসদ নির্বাচনে জেতার পর লুলা'র মন্ত্রীসভায় ঠাঁই পেয়েছিলেন ২০০৩ সালে৷

ব্রাজিলের রাজনৈতিক বিশ্লেষক আন্দ্রে পেরেইরা সিজারের মন্তব্য হচ্ছে, এবারের এই নির্বাচনে মারিনা খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবেন৷ বলা চলে, দ্বিতীয় দফা নির্বাচনের ফলাফল অনেকটাই নির্ভর করছে মারিনার ভোট ব্যাঙ্কে'র ওপর৷

অনেক রাজনৈতিক বিশ্লেষকই ধারণা করছেন যে, মারিনা সিলভা দ্বিতীয় দফা ভোটে বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবেন৷ যদিও তিনি ৩১ অক্টোবরে অনুষ্ঠিতব্য দ্বিতীয় দফা নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না৷ নির্বাচন হবে দুই নিকটতম প্রতিদ্বন্দী ডিলমা এবং জোসে সেরার মধ্যে৷ কিন্তু মারিনার পাওয়া ১৯ শতাংশ ভোট এখন অপর দুই যুযুধান প্রার্থী ডিলমা এবং জোসে সেরা, দুজনের জন্যই সোনার খনির মত বিষয়৷ যিনিই এই অংশের ভোট পাবেন তার ভাগ্যেই শিকেটি ছিঁড়বে৷

প্রতিবেদন: হুমায়ূন রেজা

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়