1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

দোলনায় ডিগবাজি খাওয়ার অভিনব খেলা

ছোটরা তো বটেই, পার্কে দোলনা দেখলে বড়দের মনেও তাতে বসে দোল খাওয়ার বাসনা জাগে৷ কিন্তু দোলনায় চেপে ৩৬০ ডিগ্রি পাক খাওয়া কি বিপজ্জনক নয়? এস্টোনিয়া দেখাচ্ছে, এই খেলা কতটা নিরাপদ ও রোমাঞ্চকর হতে পারে৷

আরেকবার টেনে ধরে ছেড়ে দিতে হয়৷ একে বলে কিকিং – এস্টোনিয়ার এক এক্সট্রিম স্পোর্ট৷ ব্যাপারটা দোলনার মতো, কিন্তু অনেক উপরে গিয়ে ডিগবাজি খেতে হয়৷ দড়ির বদলে রয়েছে লোহার রড, যা আট মিটার পর্যন্ত লম্বা করা যেতে পারে৷ মিরিয়াম পেডায়া বলেন, ‘‘নেমে এসেই কিছু একটা করার তাড়না আসে৷ মনে হয় শক্তি অনেক বেড়ে গেছে৷ অ্যাড্রেনালিনের এই ধাক্কা বড়ই ভালো৷ মাদক ছাড়াই যেন একটা ‘কিক' পাওয়া যায়৷ সত্যি নেশার মতো৷''

এস্টোনিয়ার রাজধানী টালিন থেকে প্রায় ৮০ কিলোমিটার দক্ষিণে ছোট্ট শহর ইয়েরভাকান্ডি৷ সেখানে চলছে কিকিং প্রতিযোগিতা৷ পুরুষ, নারী, শিশু দুটি ভিন্ন উচ্চতার দোলনায় দোলার চেষ্টা করছে৷ সেগুলি দড়ি দিয়ে ভালো করে মাটির সঙ্গে বাঁধা৷ ১৯৯৬ সালে অদ্ভুত এই খেলা চালু হয়েছিল৷ এস্টোনিয়ারই আডো কস্ক-কে এই খেলার আবিষ্কারক বলা হয়৷ আবিষ্কারক আডো কস্ক বলেন, ‘‘ছোটবেলা থেকেই দোলনায় দুলেছি৷ যেখানে বড় হয়েছি, সেখানে এমন লোহার মজবুত দোলনা ছিল, ডিগবাজিও খাওয়া যেত৷ এই ঘুরে যাওয়ার ব্যাপারটা আমাকে বেশ অবাক করতো৷ তখন আমার মনে আইডিয়াটা আসে৷ সাধারণ দোলনাই ছিল তার আদর্শ৷''

Symbolbild Roma

এ রকম সাধারণ দোলনায় তো আমরা সকলেই চড়ছি – তাই না?

আসলে এস্টোনিয়ায় দোলনার একটা দীর্ঘ ঐতিহ্য রয়েছে৷ সেই ঊনবিংশ শতাব্দীর ছবিতেই তা দেখা যায়৷ আগে প্রত্যেকটি গ্রামে একটা করে বড় কাঠের দোলনা থাকতো৷ সেখানেই লোকজনের দেখাসাক্ষাৎ হতো৷ আজও অনেক জায়গায় এমন ‘গণ দোলনা' দেখা যায়৷

আলারি ভাটরে টালিন শহরে থাকেন৷ ২৪ বছর বয়স্ক এই তরুণ বছর চারেক আগে প্রথম কিকিং করে দেখেছিলেন৷ টালিন-এ দোলনার ছড়াছড়ি – শিশুদের প্লেয়িং গ্রাউন্ডে শুরু থেকেই এস্টোনিয়ার এই জনপ্রিয় খেলার ভিত্তি তৈরি হয়৷ কিকিং-অনুরাগী আলারি ভাটরে বলেন, ‘‘এখান থেকেই শুরু হয়৷ শিশুরা হাত-পা ব্যবহারের মৌলিক কায়দা শেখে৷ এটা খুব মজার৷ মজার সঙ্গেই স্পোর্ট আসে৷''

ইয়েরভাকান্ডি-তে ফেরা যাক৷ কিকিং-এর সময় হাত ও পা ভালো করে বেঁধে রাখা জরুরি৷ সেন্ট্রিফুগাল ফোর্সের কারণে কিছু ধরে রাখা বেশ কঠিন৷ দেখলে মাঝেমধ্যে বিপজ্জনক মনে হলেও আয়োজক আন্টস টামে-র জন্য এটা অত্যন্ত নিরাপদ এক খেলা৷ প্রাক্তন কিকিং বিশ্বরেকর্ডধারী আন্টস টামে বলেন, ‘‘শিশু থেকে শুরু করে বাস্কেটবল খেলোয়াড় – সকলেই এটা করতে পারে৷ বয়সটা জরুরি নয়৷ দেখলে সহজ মনে হলেও যা ভাবছেন, তার থেকে অনেক কঠিন৷ তবে প্রথম চেষ্টার জন্য যথেষ্ট নিরাপদ – সবাই এটা পরখ করে দেখতে পারে৷''

দোলনায় চড়ার আগে শরীর গরম করা খুব জরুরি৷ বিশেষ করে পিঠ ও পায়ের থাই খুব গুরুত্বপূর্ণ৷ নারীদের জন্য লোহার রড ৬ মিটার পর্যন্ত লম্বা রাখা হয়৷ এর অর্থ, প্রায় ১০ মিটার উচ্চতায় মাথা নীচে রেখে পাক খেতে হয়৷ মিরিয়াম বলেন, ‘‘উচ্চতায় আমার ভয় করে, যদিও কেউ তা বিশ্বাস করে না৷ কিন্তু দোলনায় উঠলে তা ভুলে যেতে হয়৷''

সাত জন খেলোয়াড় এ দিন ৬ মিটারেরও বেশি লম্বা টেলিস্কোপ রড দিয়ে পাক দিতে পেরেছেন৷ এর জন্য চাই শক্তি, সমন্বয়ের ক্ষমতা ও সঠিক টাইমিং৷ প্রতিযোগিতার শেষে এতদিনকার বিশ্বরেকর্ডধারী আন্টস টামে নিজের সেরা পারফরমেন্স দেখিয়েও হেরে গেলেন৷

ভিলইয়ান্ডি শহরের পেশাদারি রোয়িং খেলোয়াড় কাস্পার টাউমসো ৭ দশমিক শূন্য আট মিটার ব্যাসার্ধে ৩৬০ ডিগ্রি পাক খেতে পেরেছেন৷ ২০১২ সালের সেরা পারফরমেন্সের তুলনায় এটা প্রায় ৫ সেন্টিমিটার বেশি৷ অতএব এটাই নতুন কিকিং বিশ্বরেকর্ড৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক