1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

দেশে না ফিরলে অনুপস্থিতিইে বিচার হবে তারেকের

যত বাধাই থাকুক তারেক রহমান দেশে ফিরছেন বলে ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু৷ আরেক বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন বলছেন, তারেকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরওয়ানার আইনত বৈধতা নেই৷

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বড় ছেলে এবং বিএনপি-র সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান প্রবাসে আছেন ২০০৮ সাল থেকে৷ সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় গ্রেপ্তার হওয়ার পর, আদালতের নির্দেশে প্যারোলে মুক্তি নিয়ে চিকিত্‍সার জন্য দেশের বাইরে যান তিনি৷ এই মুহূর্তে তিনি লন্ডনে আছেন৷ আদালত অর্থ পাচার মামলায় তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরওয়ানা জারি করে ইন্টারপোলের মাধ্যমে তাঁকে দেশে ফেরত আনার উদ্যোগ নিয়েছে৷

বিএনপি-র চেয়াপার্সনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু ডয়চে ভেলেকে জানান, যত বাধাই থাকুক খুব শিগগিরই তারেক রহমান দেশে ফিরবেন৷ আর তাঁর বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে, তা তিনি দেশে ফিরে আইনগতভাবেই মোকাবেলা করবেন৷ এছাড়া দেশে ফিরে তিনি দলের দায়িত্ব নেবেন, দলকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন৷ তিনি বলেন, লন্ডনে তারেক রহমানের এক বক্তব্যেই সরকার আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছে৷ তিনি দেশে এলে বোঝা যাবে সরকার কতটা সামলাতে পারে৷ তিনি দাবি করেন, আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করেই তারেক রহমান দেশের বাইরে গেছেন এবং বৈধভাবেই লন্ডনে অবস্থান করছেন৷

এদিকে বিএনপি-র ভাইস চেয়ারম্যান ও তারেকের আইনজীবী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন ডয়চে ভেলেক বলেন, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরওয়ানা জারিতে যথাযথ আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হয়নি৷ তাঁকে গ্রেপ্তারে ইন্টারপোলে যে আবেদন করা হয়েছে তারও কোনো আইনগত ভিত্তি নেই৷ তিনি বলেন, তারেক রহমান দেশে ফিরে আইনি লড়াই চালাবেন৷ তাঁর বিরুদ্ধে যেসব মামলা রয়েছে তা সবই জামিনযোগ্য৷ তিনি ২০০৮ সালে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের অনুমতি নিয়ে বিদেশে গেছেন৷ সেখানে তিনি অবশ্যই দেশের কথা ভাবেন৷ তারই প্রতিফলন হলো লন্ডনে ২০শে মে তারেক রহমানের দেয়া বক্তব্য৷

বিএনপি-র চেয়ারপার্সনের আরেকজন উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান ডয়চে ভেলেকে জানান, তিনি নিয়মিত তারেক রহমানের চিকিত্‍সার খোঁজ খবর রাখছেন৷ তাঁর চিকিত্‍সা এখনো অব্যাহত আছে৷ তাঁকে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে আটক করে যে নির্যাতন চালান হয়েছে, তাতে তিনি কখনোই শতভাগ সুস্থ হতে পারেন কিনা সন্দেহ৷ এখনো তাঁর সোজা হয়ে হাঁটতে সমস্যা হয়৷ তবে স্বাভাবিক জীবনযাপনের মতো সুস্থ হলেই তিনি দেশে ফিরবেন৷ কারণ দেশের জন্য দলের জন্য তাঁর মন পড়ে আছে৷

আওয়ামী লীগ নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেছেন, আদালত তারেক রহমান দেশে ফিরিয়ে আনতে চায়৷ তাঁর দেশে ফিরতে কোনো বাধা নেই৷ তিনি দেশে ফিরে আইনগতভাবে তাঁর মামলা মোকাবিলা করতে পারেন৷ আর ফিরে না আসলে আইনগতভাবেই তাঁকে ফিরিয়ে আনা হবে৷ তিনি বলেন, তারেক রহমান কোনো ইস্যু নয়৷ তবে হাওয়া ভবনের দুর্নীতির খবর মানুষ জানে৷ দেশের মানুষ আর হাওয়া ভবন দেখতে চায় না৷

Tarique Rahman senior Secretary General of Bangladesh Nationalist Party is addressing to party's grass root council. Bild: gemeinfrei, http://en.wikipedia.org/wiki/File:Tarique_in_Council.jpg

তারেক রহমান

দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল ডয়চে ভেলেক জানান, তারেক রহমান নিজে থেকে ফিরে আসলে ভালো৷ তাঁকে ফেরত আনা না গেলে আইন অনুযায়ী তাঁর অনুপস্থিতিইে অর্থ পাচার মামলার বিচার হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়