1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

‘দুর্নীতি পাকিস্তানের বন্যার ভয়াবহতা বাড়িয়ে তুলেছে’

পাকিস্তানের ভয়াবহ বন্যা জার্মানভাষী সংবাদ মাধ্যমে যথেষ্ট গুরুত্ব পাচ্ছে৷ বন্যাপীড়িত এলাকার চিত্র তুলে ধরার পাশাপাশি সংবাদপত্রগুলিতে পরিস্থিতির পুঙ্খানুপুঙ্খ বিশ্লেষণ করা হয়েছে৷

Pakistan, flood, UN, পাকিস্তান, বন্যা,

পাকিস্তানের বন্যা দুর্গত মানুষের ভোগান্তি

‘প্রেসিডেন্ট শুধু নিজের কথাই ভাবেন' এই শিরোনাম দিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ‘স্যুডডয়চে সাইটুং'৷ পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকায় বন্যার ধ্বংসলীলার বর্ণনা দিতে গিয়ে এমন এক অসহায় মানুষের জীবনকাহিনী তুলে ধরা হয়েছে, যিনি সব হারিয়েছেন৷ তবে রাষ্ট্রীয় সাহায্যের উপর তাঁর কোন ভরসা নেই৷ সন্ত্রাসবাদের পর এই প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের মোকাবিলার ক্ষেত্রেও চরম ব্যর্থতার ফলে রাজনৈতিক নেতৃত্বের প্রতি দেশের মানুষের প্রবল বিতৃষ্ণা ফুটে উঠছে৷ এই ক্ষোভের সবচেয়ে বড় লক্ষ্য প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারি৷ দেশের চরম বিপদের সময় তিনি যেভাবে ইউরোপ সফরে বিঘ্ন ঘটতে দেন নি, তার ফলে সেই জনরোষ আরও বেড়ে গেছে৷ রাজনৈতিক নেতৃত্বের এমন ঔদ্ধত্যের ফলে যে শূণ্যতার সৃষ্টি হয়েছে, তা পূরণ করতে এগিয়ে আসছে চরমপন্থী সংগঠনগুলি৷ এমনকি তালেবান বিদ্রোহীরা সরকারকে মার্কিন ত্রাণসাহায্য গ্রহণ করতে নিষেধ করে নিজেরাই সেই উদ্যোগ নেওয়ার কথা বলছে৷ অন্যদিকে পাকিস্তানের নেতিবাচক ভাবমূর্তির কারণে জার্মানি সহ অনেক দেশেই মানুষ বন্যার্তদের জন্য দান করতে তেমন প্রস্তুত নয়, লিখেছে ‘স্যুডডয়চে সাইটুং'৷

পাকিস্তানের এই ভয়াবহ বিপর্যয়ের বিশাল মাত্রা এবং সেদেশের জন্য প্রয়োজনীয় আন্তর্জাতিক সাহায্য সংগ্রহ করা জাতিসংঘের জন্য বড় এক চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে মন্তব্য করেছে ‘ফ্রাঙ্কফু্র্টার রুন্ডশাউ'৷ প্রায় ৩৫ কোটি ইউরো সাহায্যের জন্য আবেদন জানিয়েছে জাতিসংঘ৷ কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি ও কুয়েত'এর মতো দেশ বেশ বড়ো অঙ্কের আর্থিক সহায়তার অঙ্গীকার করলেও দাতাদের তালিকায় বাকি আরব দেশগুলির স্থান অনেক নিচে৷ পাকিস্তানের চিরশত্রু ভারতের তরফ থেকেও সহায়তা করার তেমন উৎসাহ দেখা যাচ্ছে না৷

প্রাকৃতিক বিপর্যয় হলেও এর পেছনে মানুষের ব্যর্থতার ভূমিকার একটা প্রেক্ষাপট তুলে ধরেছে ‘ফ্রাঙ্কফুর্টার আলগেমাইনে সাইটুং'৷ পাকিস্তানে বহু দশকের দুর্নীতির ফলেই পরিস্থিতি আজ এমন মারাত্মক আকার ধারণ করেছে বলে অভিযোগ উঠছে৷ বন্যা প্রতিরোধ করতে বাঁধ তৈরি ও অন্যান্য পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য যে অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে, তার একটা বড় অংশ দুর্নীতিপরায়ন রাজনীতিক ও আমলাদের পকেটে চালিত হয়েছে৷ এমনকি দুর্নীতির কারণে ত্রাণসাহায্যও বন্যার্তদের কাছে ঠিকমতো পৌঁছচ্ছে না৷ ‘ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল'এর দাবি, বন্যা প্রতিরোধের জন্য কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠার পর থেকে তার বাজেটের প্রায় ৭০ শতাংশ অর্থ তছরুপ করা হয়েছে৷ দুর্নীতির সঙ্গে সঙ্গে রাজনীতিক ও আমলাদের অক্ষমতা এই প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের মাত্রা ভয়াবহ করে তুলেছে, লিখেছে ‘ফ্রাঙ্কফুর্টার আলগেমাইনে সাইটুং'৷

সংকলন: সঞ্জীব বর্মন

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

নির্বাচিত প্রতিবেদন